Advertisement

সোমবার, ২৭ মে, ২০২৪

পৃথিবী সূর্যের চারদিকে উপবৃত্তাকার কক্ষপথে ঘুরছে। ঋতুর পরিবর্তনের জন্য সূর্য দায়ী তা ঠিক। তবে ভূমিকা আছে পৃথিবীর নিজেরও। পৃথিবী সূর্যের দিকে বিশেষভাবে হেলে আছে বলেই ঘটছে এ পরিবর্তন। এর মূল কারণ, পৃথিবীর ঘূর্ণন অক্ষ কক্ষীয় তলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে। 


পৃথিবীর বিষুবরেখা কক্ষীয় তলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে

বছরের দুটি দিন সূর্য বিষুবরেখা বরাবর খাড়াভাবে আলো দেয়। ২০শে মার্চ ও ২২শে সেপ্টেম্বর। বছরভেদে তারিখ এক-দুই দিন এদিক-সেদিক হতে পারে। এসময় দুই গোলার্ধই সূর্যের আলো সমানভাবে পায়। পৃথিবীর সব জায়গায় দিন-রাত (প্রায়) সমান হয়। 

মহাবিষুবের দিন পৃথিবীর সব জায়গায় দিন-রাত (প্রায়) সমান হয়।

২০শে মার্চের পর পৃথিবীর উত্তর মেরু ক্রমেই সূর্যের দিকে হেলতে থাকে। এভাবে যেতে যেতে ২০শে জুনের দিকে সূর্য কর্কটক্রান্তি রেখার (Tropic of Cancer) ওপর খাড়াভাবে আলো দেয়। কল্পিত এ রেখা ভূপৃষ্ঠের ২৩.৫ উত্তর অক্ষাংশে অবস্থিত। এটাই সূর্যের পৃথিবীর সর্বউত্তরের অবস্থান। বিশেষ নাম তাই উত্তরায়ণ (northern solstice)। ঐ দিন উত্তর গোলার্ধে সবচেয়ে বড় দিন ও সবচেয়ে ছোট রাত হয়। ২০শে জুনের আগে-পরে মিলিয়ে প্রায় তিন মাস উত্তর গোলার্ধে গ্রীষ্মকাল থাকে। একইসময়ে দক্ষিণ গোলার্ধে থাকে শীত। দক্ষিণ গোলার্ধে আলো বাঁকাভাবে পড়ায় তীব্রতা কম থাকে। 


২০শে জুনের দিকে সূর্য কর্কটক্রান্তি রেখার (Tropic of Cancer) ওপর খাড়াভাবে আলো দেয়।


২০শে জুন সূর্যের উত্তরায়ণের শেষ দিন। এবার আবার উত্তর মেরুর সূর্যের দিকে হেলে থাকার পরিমাণ কমতে থাকে। গরম কমতে শুরু করে। (প্রায়) ২২শে সেপ্টেম্বর সূর্য আবার বিষুবরেখায় খাড়াভাবে আলো ফেলে। দুই মহাবিষুবের একটি এটি। উত্তর গোলার্ধে এর নাম শারদ বিষুব (autumnal equinox)। দক্ষিণ গোলার্ধে নাম বাসন্ত বিষুব (vernal equinox)। এদিনের আগে-পরে উত্তর গোলার্ধে শরৎ ও দক্ষিণ গোলার্ধে বসন্তকাল। 


পৃথিবীর ঋতুচক্র ও তার কারণ

এবার সূর্যের দিকে হেলতে শুরু করে পৃথিবীর দক্ষিণ মেরু। দক্ষিণ গোলার্ধে দিন বড় হতে থাকে। রাত ছোট হতে থাকে। গরমের আগমন শুরু হয়। উত্তরে রাত ছোট হতে থাকে। এভাবে চলতে চলতে ২২শে ডিসেম্বর সূর্য দক্ষিণের মকরক্রান্তি রেখার (Tropic of Capricorn) ওপর খাড়াভাবে আলো দেয়। কল্পিত এ রেখা ভূপৃষ্ঠের ২৩.৫ দক্ষিণ অক্ষাংশে অবস্থিত। এ তারিখের দেড় মাস আগে থেকেই উত্তরে শীত ও দক্ষিণে গরম পড়তে থাকে। এদিন উত্তর গোলার্ধে সবচেয়ে ছোট দিন ও সবচেয়ে বড় রাত। দক্ষিণ গোলার্ধে তার উল্টো। 


দক্ষিণ মেরুর হেলে থাকা এবার আবার কমতে থাকে। ২০শে মার্চ এসে সূর্য আবার বিষুবরেখায় খাড়া আলো দেয়। আরেকটি মহাবিষুব (equinox)।  দক্ষিণ গোলার্ধে এর নাম শারদ বিষুব (autumnal equinox)। উত্তর গোলার্ধে নাম বাসন্ত বিষুব (vernal equinox)।  এদিনও পুরো পৃথিবীতে দিন-রাত (প্রায়) সমান হয়। এরপর আবার পৃথিবীর উত্তর মেরু সূর্যমুখী হতে থাকে। আগেই তা বলা হয়েছে। মহাবিষুবের দিন আসলে পুরো পৃথিবীতে দিন-রাত সমান হয় না। তবে দিন-রাতের দৈর্ঘ্য খুব কাছাকাছি হয়। 


পুরো ব্যাপারটি বুঝতে ভিডিওটি সহায়ক হতে পারে। 




মজার ব্যাপার হলো, পৃথিবীর গরম বা ঠান্ডা নির্ভর করে পৃথিবীর নতির ওপরই। দূরত্বের ওপর নয়। সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর কক্ষপথ উপবৃত্তকার। ফলে কখনও সূর্য কাছে আসে, কখনও বা দূরে যায়। তার সাথে পৃথিবীর তাপমাত্রার সম্পর্ক নেই বললেই চলে। জানুয়ারি মাসে পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে। অথচ এ সময়ই উত্তর গোলার্ধে সবচেয়ে শীত থাকে। 


পৃথিবীর তাপমাত্রা সূর্যের দূরত্বের ওপর নির্ভর করে না বললেই চলে। 

আরও পড়ুন


সূর্যের কাছে গেলে কি পৃথিবীর তাপমাত্রা বেশি হয়?


পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব কত?


সূত্র

১। টাইম অ্যান্ড ডেইট ডট কম: https://www.timeanddate.com/astronomy/seasons-causes.html

Category: articles

পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘোরে উপবৃত্তাকার পথে। জানুয়ারি মাসে পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে আসে। পৃথিবীর কক্ষপথের এ অবস্থানের নামে অনুসূর (perihelion)। এসময় পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব হয় ১৪.৭ কোটি  কিলোমিটার৷ জুলাই মাসে দূরত্ব থাকে ১৫.২ কোটি কিলোমিটার। এ জায়গার নাম অপসূর (aphelion)। 


পৃথিবীর কক্ষপথে অনুসূর ও অপসূর


আরও পড়ুন 


সূর্যের নিকটতম অবস্থানে পৃথিবী


অনুসূর অবস্থানে সূর্য তুলনামূলক কাছে আসায় সূর্যের আলোও স্বাভাবিকভাবেই পৃথিবীতে বেশি পড়ে। অপসূর অবস্থানের তুলনায় এ সময় পৃথিবী ৭ ভাগ আলো বেশি পায়। কিন্তু আবার জানুয়ারি মাসে উত্তর গোলার্ধের বেশিরভাগ জায়গায় সবচেয়ে ঠান্ডা থাকে। কারণ আবহাওয়া প্রধানত নির্ভর করে পৃথিবীর কক্ষপথের সাথে বিষুবরেখার নতির ওপর। পৃথিবীর বিষুব বা নিরক্ষরেখা কক্ষীয় তলের সাথে সাড়ে ২৩ ডিগ্রি হেলে আছে। 


নিরক্ষরেখা কক্ষীয় তলের সাথে সাড়ে ২৩ ডিগ্রি হেলে আছে

এখানেই একটা মজার ব্যাপার আছে। সূর্য অনুসূরে থাকার সময় পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা অপসূরে থাকার সময়ের তাপমাত্রার চেয়ে ২.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস কম। অথচ এসময় সূর্যের বেশি কাছে থাকে পৃথিবী। 


এর কারণ, মহাদেশ ও মহাসাগরগুলো পৃথিবীজুড়ে সমানভাবে বিন্যস্ত নয়। উত্তর গোলার্ধে ভূমির পরিমাণ বেশি। দক্ষিণে আবার মহাসাগর বেশি। জুন-জুলাই মাসে পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধ সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে। আর এতে করে উত্তর গোলার্ধের ভূমি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। মাটি ও বালুর তাপধারণ ক্ষমতা কম। মরুভূমির কথা ভাবুন। দিনের সূর্যে বালু দ্রুত উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। তাপমাত্রা হয়ে যায় প্রায় ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাতের বেলা সে তাপ হারিয়ে যায়। মরুভূমি হয়ে যায় শীতল। তাপমাত্রা নেমে হয়ে যায় দিনের অর্ধেকেরও কম (সেলসিয়াস স্কেলে)। 


পৃথিবীর ঋতুচক্র

অন্যদিকে পানির তাপধারণ ক্ষমতা বেশি। সূর্য ডোবার আগে-পরে তাপমাত্রার পার্থক্য খুব বেশি হয় না। কয়েক ডিগ্রি এদিক-সেদিক। 


এ কারণেই জুলাই মাসে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা সবচেয়ে বেশি থাকে। আর জানুয়ারি সবচেয়ে শীতল মাস। সেসময় পৃথিবীর জলীয় অংশ সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে। আমরা বেশি তাপ পাই। তবে সে বাড়তি তাপ সমুদ্রের পানিতে বিক্ষিপ্ত হয়ে যায়। এ কারণেই দক্ষিণ গোলার্ধের গরমকাল উত্তরে চেয়ে কম উষ্ণ হয়। অথচ দক্ষিণ গোলার্ধের গরমের সময় পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে (জানুয়ারি)। 


আরেকটা মজার ব্যাপার আছে। কেপলারের গ্রহের দ্বিতীয় সূত্র অনুসারে, অপসূর অবস্থানের চেয়ে অনুসূর অবস্থান দিয়ে চলার পৃথিবী কক্ষপথে দ্রুত চলে। এ কারণে উত্তর গোলার্ধের গ্রীষ্মকাল দক্ষিণের চেয়ে ২-৩ দিন লম্বা হয়। ফলে উত্তরের মহাদেশীয় অঞ্চল গরম হওয়ার জন্য একটু বেশি সময় পায়। 


সূত্র

স্পেস ওয়েদার

টাইম এন্ড ডেট ডট কম

Category: articles

শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪

সম্প্রতি নওতাপ নিয়ে একটি গুজব সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। কিছু পত্রিকাও (যেমন দৈনিক ভোরের বার্তা) ফলাও করে তা প্রচার করেছে। নাসার নাম ব্যবহার করায় ব্যাপারটা অনেক মানুষ সহজেই বিশ্বাসও করে ফেলেছেন। 


অল্প কিছু কথার মধ্যে অনেকগুলো ভুল তথ্য দেওয়া হয়েছে। 


প্রথমেই বলা হয়েছে, সূর্য রোহিণী নক্ষত্রে প্রবেশ করবে। কথাটা পুরোপুরি ভুল। একইসাথে বিভ্রান্তিকর। সূর্য নিজেও একটি নক্ষত্র। সাধারণত এক নক্ষত্র অন্য নক্ষত্রের কাছে-ধারেও যায় না। খুব দুর্লভ কিছু ক্ষেত্রে নক্ষত্ররা একে অপরের সাথে সংঘর্ষ করে বা মিশে যায়। সাধারণত একই নক্ষত্রপুঞ্জের (Star cluster) নক্ষত্ররা কখনো কখনো একীভূত হতে পারে। নক্ষত্রপুঞ্জে কয়েক হাজার থেকে কয়েক কোটি নক্ষত্র মহাকর্ষীয় বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে গুচ্ছ আকারে থাকে। 


রোহিণী নক্ষত্র (Aldebaran)

আবার নক্ষত্রের জীবনের শেষ ভাগে জ্বালানি ফুরিয়ে গেলে নক্ষত্রের বাইরের অংশ বড় হয়ে যায়। সেক্ষেত্রেও অন্য নক্ষত্র সে স্ফীত অংশে ঢুকে যেতে (প্রবেশ করতে) পারে। 


 নক্ষত্রের জীবনচক্র 


তবে সূর্যের ক্ষেত্রে কোনোটাই সম্ভব না। সূর্য কোনো নক্ষত্রপুঞ্জের অংশ নয়। আশেপাশে সূর্যকে গিলে খাওয়ার মতোও কেউ নেই। তথাকথিত রোহিণী নক্ষত্র সূর্য থেকে ৬৫ আলোকবর্ষ দূরে৷ এটা বৃষমণ্ডলের (Taurus) নক্ষত্র। ইংরেজি নাম Aldebaran। রাতের আকাশের চতুর্দশ উজ্জ্বল নক্ষত্র এটি। উপযুক্ত সময়ে (জানুয়ারি মাস ও তার আগে-পরে) সহজেই খালি চোখে দেখা যায়। 


 আলোকবর্ষ কত বড়?



 উজ্জ্বল তারাদের গল্প


এটা ঠিক বর্তমানে সূর্য বৃষমণ্ডলে অবস্থান করছে। তার মানে এই নয় সূর্য রোহিণীর কাছে চলে গেছে। কথাটা একটু ব্যাখ্যা করতে হয়। আসলে ব্যাপারটা খুব সরল। পৃথিবীকে ঘিরে থাকা পুরো আকাশকে পৃথিবী থেকে দেখতে ৩৬০ ডিগ্রি গম্বুজের মতো লাগে। বাস্তবে তা না হলেও আকাশ পর্যবেক্ষণের সুবিদার্থে উপমাটা কাজে লাগে। পুরো আকাশকে ৮৮টা এলাকায় ভাগ করা আছে। এগুলোকে বলে একেকটি তারামণ্ডল (constellation)। নক্ষত্র, ছায়াপথ, কৃত্রিম উপগ্রহ বা দূর আকাশের বিভিন্ন বস্তুর অবস্থান নির্দেশ করতে তারামণ্ডল ভাল ভূমিকা পালন করে। এই মুহূর্তে (২৫ মে) সূর্য গম্বুজের যেখানটায় আছে (বলে মনে হয়), সেটার নাম বৃষমণ্ডল। জ্যোতিষবিদরা বলবেন বৃষরাশি। আগেই বলেছি, রোহিণী এ মণ্ডলেরই তারা। 


আরও পড়ুন


তারামণ্ডলের পরিচয়


আবার মনে করিয়ে দেই, মণ্ডল একই হলেই মণ্ডলের বস্তুরা কাছাকাছি থাকে না। পৃথিবী থেকে আকাশের একই দিকে তাকালে দেখা গেলে একই মণ্ডলে থাকতে পারে। বাস্তবে কোনোটা সামনে আর কোনোটা অনেক পেছনে থাকতে পারে। অনেকসময় আমরা আকাশের চাঁদকে অন্য তারার পাশে দেখি। এটা আসলে পৃথিবীর আকাশে তাদের আপাত অবস্থান। একইদিকে অবস্থিত হওয়ায় পাশাপাশি দেখা যায়। বাস্তবে সূর্যের সবচেয়ে কাছের নক্ষত্র প্রক্সিমা সেন্টোরিও (Proxima Centauri) ৪ আলোকবর্ষের বেশি দূরে। মানে সেখান থেকে পৃথিবীতে আলো আসতে ৪ বছরের বেশি সময় লাগবে। অথচ চাঁদ থেকে আসতে সময় লাগে মাত্র ১.৩ সেকেন্ড। 


পুরো বছরে সূর্য এমন ১৩টা অঞ্চল বা তারামণ্ডল ঘুরে আসে। মানে, পৃথিবী থেকে দেখতে সূর্যকে আকাশের এসব অঞ্চল দিয়ে চলতে দেখা যায়। সূর্যের চলাচলের আপাত এ পথকে বলে সূর্যপথ (ecliptic)। তেরটি অঞ্চলের সমন্বিত নাম রাশিচক্র (zodiac)। প্রচলিত জ্যোতিষবিদ্যার (astrology) রাশিচক্রে ১২টি দেওয়া আছে। তাও তারিখগুলো আধুনিক জ্যোতির্বিদ্যার (astronomy) হিসাবের সাথে মেলে না। জ্যোতিষবিদ্যার প্রাচীন হিসাব বলে, সূর্য বৃষরাশিতে থাকে ২০ এপ্রিল থেকে ২০ মে। আধুনিক বৈজ্ঞানিক হিসাবে সময়কালটা হলো ১৩ মে থেকে ২১ জুন। 


স্টেলারিয়াম সফটওয়্যার দিয়ে মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে আপনি নিজেই সূর্যের গতিবিধি দেখতে পারবেন। 


আরও পড়ুন


 সূর্য কখন কোথায় থাকে?



রাশিচক্রের পরিচয় 


১৩ মে থেকে ২১ জুন সূর্য বৃষমণ্ডল পাড়ি দেওয়ার সময় পৃথিবী থেকে দেখতে রোহিণী নক্ষত্রের কাছ দিয়ে পার হবে। আগেই বলেছি, এ অবস্থান নিছক পৃথিবীর আকাশে সূর্য ও রোহিণীর আপাত অবস্থান। বাস্তবে কিন্তু রোহিণীর দূরত্ব সূর্য থেকে ৬৫ আলোকবর্ষই। 


বলা হয়েছে সূর্য ও পৃথিবীর উত্তাপের জন্য রোহিণী নক্ষত্র দায়ী। অথচ সূর্য ছাড়া অন্য নক্ষত্র পৃথিবীর উত্তাপে ভূমিকা রাখে না। হ্যাঁ, রাখে। তার পরিমাণ কতটুকু জানেন? ১০ কোটি-কোটি-কোটি ভাগের ($১০^{২২}$) এক ভাগ। আরও মজার ব্যাপার হলো রোহিণীর পৃষ্ঠের তাপমাত্রা সূর্যের চেয়েও কম। সূর্যের পৃষ্ঠ তাপমাত্রা ৫,৪০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সূর্যের চেয়ে বয়স্ক লোহিত দানব ধরনের তারা রোহিণীর তাপমাত্রা ৩,৬০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। (সূর্যের বয়স ৪৬০ কোটি বছর আর রোহিণীর ৬৬০ কোটি।)


 সূর্যের তাপমাত্রা কত?



 সূর্যের বয়স কত? 


পৃথিবীর গরম বা ঠান্ডার সাথে সূর্যের নিজস্ব অবস্থানের কোনো সম্পর্ক নেই। এটা নির্ভর করে  পৃথিবী সূর্যের সাথে কীভাবে হেলে আছে তার ওপর। পৃথিবীর ঘূর্ণন অক্ষ কক্ষীয় তলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে। ফলে কখনো উত্তর ও কখনো দক্ষিণ গোলার্ধ সূর্যের দিকে হেলে থাকে। ইদানিং ২০ জুনে হয় উত্তরায়ন (northern solstice)। এ সময় সূর্য পৃথিবীর সর্বউত্তরে আসে। ২৩.৫ ডিগ্রি অক্ষাংশে খাড়াভাবে আলো দেয়। এসময় ও তার আগে-পরে উত্তর গোলার্ধে তীব্র গরম আর দক্ষিণে শীত থাকে। আবার ২১ ডিসেম্বর সূর্য চলে যায় সর্বদক্ষিণে। তখন উত্তরে শীত আর দক্ষিণে গরম চলে। কারণ উত্তর গোলার্ধে তখন সূর্যের আলো পড়ে বাঁকাভাবে। খাড়াভাবে পড়লে তাপের তীব্রতা বেশি থাকে। বেঁকে আসায় তা কমে যায়। 





এখান থেকেই যাই পরের ভুল কথায়। ধারণা দেওয়া হয়েছে, পুরো পৃথিবী উত্তপ্ত হয়ে ওঠবে রোহিণীর কারণে। অথচ পুরো পৃথিবীতে কখনোই একইসাথে গরম ও ঠান্ডা থাকে না। বৃষ্টি বা আবহাওয়াহগত অন্য কারণ না থাকলে দুই গোলার্ধে তাপমাত্রা থাকবে বিপরীতধর্মী। 


তবে একটা ভাল পরামর্শও দেওয়া হয়েছে। গরমে অবশ্যই সাবধান থাকতে হবে। 


উল্লেখ্য, নাসা এমন কোনো কথা বলেনি।  কেউ দাবি করে থাকলে সূত্র দিতে বলুন।


Category: articles

বৃহস্পতিবার, ৫ অক্টোবর, ২০২৩

সূর্য সৌরজগতের সবচেয়ে বড় বস্তু। যেমন ভারী, তেমনি তার বিশাল অবয়ব৷ সৌরজগতের মোট ভরের ৯৯.৮৬ ভাগ ভরই সূর্যের একার৷ আর আকার? ১০৯টা পৃথিবীকে পাশাপাশি বসালে সূর্যের এপাশ থেকে ওপাশ পর্যন্ত যাওয়া যাবে৷ মানে ব্যাস পৃথিবীর ১০৯ গুণ। 


১০৯টা পৃথিবীকে একটার পর একটা বসিয়ে দিলে সূর্যের সমান চওড়া হবে। 

তবে ফুটবলের মতো প্রায় গোলাকার সূর্যের পেটের ভেতরে বসিয়ে দেওয়া যাবে ১৩ লক্ষ সূর্য৷ এটাই প্রচলিত কথা। সংখ্যাটায় একটু গোলমাল আছে অবশ্য। এ সংখ্যা পাওয়া গেছে সূর্যের আয়তনকে পৃথিবীর আয়তন দিয়ে ভাগ করে। সেটাকেই স্বাভাবিক মনে হয়। তবে এটা সঠিক হত যদি পৃথিবীকে গলিয়ে সূর্যের পেটে ভরে রাখা যেতে। কিন্তু পৃথিবী শক্ত ও কঠিন পদার্থে তৈরি। পৃথিবীকে সূর্যের ভেতরে বসাতে গেলে এখানে-সেখানে ফাঁকা জায়গায় থেকে যাবে। পুরো আয়তন ভর্তি করা যাবে না। ফলে, সবমিলিয়ে সূর্যের ভেতরে জায়গা পাবে নয় ৯ লাখ ৩২ হাজার পৃথিবী। 


সৌরজগত কত বড়?


গোলাকার সূর্যের পেটের ভেতর রাখা যাবে প্রায় ৯ লাখের বেশি পৃথিবী 

সূর্যের আকার প্রায় পুরোপুরি গোলাকার৷ মেরু ও বিষুব অঞ্চলের ব্যবধান মাত্র ১০ কিলোমিটার বা ৬.২ মাইল৷ গড় ব্যাসার্ধ ৪,৩২,৪৫০ মাইল (৬,৯৬,০০০ কিলোমিটার)৷ ব্যাস ৮,৬৪,৯৩৮ মাইল বা ১৩,৯২,০০০ কিলোমিটার৷ তবে সূর্য আকারে চাঁদ ও পৃথিবীর তুলনায় বিশাল হলেও পৃথিবীর আকাশে চাঁদ ও সূর্যকে সমান দেখায়। এর কারণ, সূর্য চাঁদের তুলনায় প্রায় ৪০০ গুণ বড়। আবার, পৃথিবী থেকে দূরত্বও ৪০০ গুণ। ফলে পৃথিবীর আকাশে এ দুই বস্তুকে সাধারণত সমান দেখা যায়। তবে সবসময় নয়।  


চাঁদ-সূর্য সমান কেন? 


ভরও দারুণ বিশাল। তিন লাখ ত্রিশ হাজার পৃথিবী একত্র করলে সূর্যের সমান ভর পাওয়া যাবে৷ তবে ভর কিন্তু কমে যাচ্ছে ক্রমশ৷ পরিমাণে সেটা বিশাল হলেও মূল ভরের তুলনায় নগণ্য৷ সৌরবায়ুর সময় সূর্য সেকেন্ডে ১৫ লাখ টন ভর হারায়৷ অভ্যন্তরে চলা ফিউশন বিক্রিয়ায় প্রতিনিয়ত ভর থেকে আলো ও তাপশক্তি তৈরি হচ্ছে৷ এভাবে প্রতি সেকেন্ডে খরচ হচ্ছে ৪০ লাখ টন পদার্থ৷ সব মিলিয়ে সূর্য তার ৪৫০ কোটি বছরের জীবনে ভর হারিয়েছে পৃথিবীর ভরের ১০০ গুণ পদার্থ৷ দেখতে বিশাল লাগলেও এটা সূর্যের ভরের মাত্র ০.০৫ ভাগ। অন্য কথায় দশ হাজার ভাগের ৫ ভাগ৷ সারা জীবনে সূর্য  এক হাজার ভাগের মাত্র ৭ ভাগ ভরকে শক্তিতে রূপান্তর করবে৷ 


তবে সূর্যের বাহাদুরি শুধু সৌরজগতেই। পৃথিবী বা সৌরজগতের অন্যান্য বস্তুর তুলনায় প্রকাণ্ড হলেও সূর্য আসলে সাদামাটা এক তারা৷ রাতের আকাশের নবম উজ্জ্বল তারা বিটলজুস৷ কালপুরুষ তারামণ্ডলের দ্বিতীয় উজ্জ্বল এ তারা সূর্যের প্রায় ৭০০ গুণ বড় ও ১৪,০০০ গুণ উজ্জ্বল৷ বিটলজুসকে জানুয়ারি মাসে সবচেয়ে ভাল দেখা যায়৷ তবে এমন তারাও আছে যার তুলনায় বিটলজুসও নস্যি! 


লুব্ধক, কালপুরুষ ও বিটলজুস


সূর্যের তুলনায় বিটলজুস কত বিশাল দেখুন। এ তো সবে শুরু। আছে আরও বিশাল বিশাল তারাও।

বিটলজুস তো সূর্যের ৭০০ গুণ বড়। মিউ সিফিয়াই তারা প্রায় এক হাজার গুণ বড় (৯৭২)। সূর্যের চেয়ে এক হাজার গুণ বা আরও বড় প্রায় ১০০ তারা আবিষ্কৃত হয়েছে। এর মধ্যে ভিওয়াই ক্যানিস মেজোরিস তো ১৪২৯ গুণ বড়। ইউওয়াই স্কুটি ১৭০৮ গুণ। এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত সবচেয়ে বড় আকারের তারার নাম স্টিফেনসন ২-১৮। অন্য নাম স্টিফেনসন ২ ডিএফকে ১। সূর্যের তুলনায় ২১৫০ গুণ বড়। পৃথিবী থেকে দূরত্ব ১৯ হাজার আলোকবর্ষ। 


বড় বড় নক্ষত্রের গল্প


সূর্যের চেয়ে বড় বড় তারকারা

তবে আবার সূর্যের চেয়ে ছোট তারাও আছে। এমন তারাও আছে, যাদের ভর সূর্যের দশ ভাগের এক ভাগ। তবে সূর্যের চেয়ে বেশি ভারী তারা আবার জীবনের শেষ ভাগে অনেক ছোট হয়ে যায়। এই যেমন ব্ল্যাকহোল ও নিউট্রন তারা। জীবনের শেষভাগে ব্ল্যাকহোল তো বিন্দু বা রেখার মতো হয়ে যায়। আর নিউট্রন তারা হয় পৃথিবীর চেয়ে ছোট। জ্বালানি ফুরিয়ে গুটিয়ে যাবার সময় তৈরি নিউট্রন আরও ছোট হতে বাধা দেয়। ফলে তারাটা ব্ল্যাকহোল হতে পারে না। চওড়ায় হয় মাত্র ১২ মাইলের মতো। ঘন এ তারা থেকে একটি চিনির দানার সমান পদার্থ নিলে তার ভরই হবে একশো কোটি টন। 


ব্ল্যাকহোলের জন্ম হয় কীভাবে?


এখন সূর্যের আকার প্রায় ধ্রুব থাকলে আরও প্রায় ৫০০ কোটি সূর্য বড় হয়ে যাবে৷ ততদিনে হাইড্রোজেন জ্বালানি শেষ হওয়ায় বন্ধ হবে হিলিয়াম তৈরির প্রক্রিয়া৷ ফলে ভেতরের অংশ গুটিয়ে একটা সময় লোহিত দানব ও পরে শ্বেত বামন তারায় পরিণত হবে৷ ওদিকে বাইরের অংশে তখনও চলমান ফিউশনের বহির্মুখী চাপে প্রসারিত হয়ে অনেকদূর বিস্তৃত হবে৷ বর্তমান আকার থেকে ২০০ গুণ বড়৷ বুধ ও শুক্রের কক্ষপথ চলে যাবে সূর্যের পেটের ভেতর। এবং সম্ভবত পৃথিবীও। 


সূর্য কীভাবে জ্বলে?


লোহিত দানব তারার গল্প


সূত্র: স্পেস ডট কম, স্লুহ ডট কম, নাসা, আর্থস্কাই, আইএফএল সায়েন্স, ওউক্ল্যাশন

Category: articles

সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

সূর্যগ্রহণের ছবি

সূর্য একটা নক্ষত্র। যার চারপাশে ঘুরছে পৃথিবী নামক গ্রহটা। চাঁদ ঘুরছে পৃথিবীর চারপাশে৷ চলতে চলতে একটা সময় চাঁদ চলে আসে সূর্য ও পৃথিবীর ঠিক মাঝখানে৷ আড়াল করে সূর্যের আলো। আর তখনই হয় সূর্যগ্রহণ৷ চাঁদ ও সূর্যের আকারে বিশাল ব্যবধান থাকলেও দূরত্বের ব্যবধান ঘুচিয়ে দেয় আকারের তারতম্য। তাই তো চাঁদ আকারে ছোট হয়েও পৃথিবীর আকাশে সূর্যের সমান৷ 

সূর্যের চারদিকে পৃথিবী ও চাঁদের কক্ষপথ


আগেই বলেছি, সূর্যগ্রহণের সময় চাঁদ থাকে পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে৷ ফলে চাঁদের আলোকিত অংশও থাকে পৃথিবী থেকে উল্টো দিকে৷ এ জন্যই সূর্যগ্রহণ আসলে হয় অমাবশ্যার সময়। তবে সব অমাবশ্যায় কিন্তু সূর্যগ্রহণ হয় না। কারণ চাঁদ পৃথিবী ও সূর্যের একই সমতলে থাকে না৷ একই রেখা বরাবর চলে এলেই কেবল গ্রহণ হতে পারে৷ আর সেটা আবার পুরো পৃথিবী থেকে দেখা যায় না। চাঁদের কারণে পৃথিবীর যে অঞ্চলে সূর্যের আলো পৌঁছতে পারে না শুধু সে অঞ্চল থেকেই তা দেখা যাবে৷ কোনো কোনো অঞ্চলে তো ঐ বিশেষ সময়ে রাত থাকবে। ফলে এমনিতেই সূর্য দেখা যাবে না। 

সূর্যগ্রহণ ও চন্দ্রগ্রহণ। চন্দ্রগ্রহণে পৃথিবী থাকে সূর্য ও চাঁদের মাঝখানে। আর সূর্যগ্রহণে চাঁদ থাকে পৃথিবী ও সূর্যের মাঝে। 


সূর্যগ্রহণ তিন রকম আছে। পূর্ণগ্রাস, বলয় ও আংশিক৷ চাঁদ সূর্যের আলোকে পুরোপুরি ঢেকে দিলে হয় পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ৷ এ সময় চাঁদের ছায়ার কেন্দ্রে (প্রচ্ছায়া) থাকা পৃথিবীর মানুষেরা পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখেন। আকাশ হয়ে যায় অন্ধকার। গোধূলির সময়ের মতো৷ আবহাওয়া ভাল হলে এ সময় পূর্ণগ্রাস অঞ্চলের মানুষের সূর্যের করোনা বা সৌরমুকুট দেখতে পাবেন। এটা হলো সূর্যের বহিস্থ বায়ুমণ্ডল৷ এমনিতে সূর্যের উজ্জ্বল অংশের জন্য এটা দৃষ্টির আড়ালে থাকে৷ 

চাঁদ কক্ষপথের অপভূ অবস্থান বা এর কাছাকাছি জায়গায় থাকা অবস্থায় সূর্যগ্রহণ হলে সেটা হয় বলয়গ্রাস৷ চাঁদ এ সময় পৃথিবী থেকে দূরে থাকায় আকার অপেক্ষাকৃত ছোট থাকে৷  ফলে পৃথিবীর আকাশে চাঁদের আপেক্ষিক আকার সূর্যের চেয়ে কম হয়। ফলে চাঁদের ছায়ায় সূর্য পুরোপুরি ঢাকা পড়ে না। চাঁদের চারপাশ ঘিরে দেখা যায় বলয়৷ 

তিন রকম সূর্যগ্রহণ

অন্যদিকে আংশিক গ্রহণ হয় যখন সূর্য, চাঁদ আর পৃথিবী সরলরেখায় থাকে না৷ চাঁদ সূর্যের একটা অংশকেই শুধু ঢেকে দেয়৷ সূর্যকে তখন ক্রিসেন্ট বা অর্ধচন্দ্রের মতো লাগে৷ আংশিক গ্রহণ কিন্তু বলয় বা পূর্ণগ্রাস থেকেও হতে পারে৷ এই দুই গ্রহণের সময় প্রচ্ছায়া অঞ্চলের বাইরের মানুষ দেখবে আংশিক গ্রহণ৷ 

সাবধান!
সূর্যগ্রহণ ভুলেও খালি চোখে দেখবেন না। দেখতে হলে লাগবে বিশেষ চশমা অথবা নির্দিষ্ট কৌশল। তবে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণের সময় সামান্য সময়ের জন্য খালি চোখেও নিরাপদে গ্রহণ দেখা যাবে৷

 
সূর্যগ্রহণ জ্যোতির্বিজ্ঞান গবেষণারও দূর্লভ এক সুযোগ৷ ১৯১৯ সালে এমন এক সূর্যগ্রহণের সময়ই প্রমাণ হয় আইনস্টাইনের সার্বিক আপেক্ষিকতা৷ সূর্য চাঁদের আড়ালে ঢেকে যাওয়ার সূর্যের পেছনে থাকা হায়াডিজ নক্ষত্রপুঞ্জ থেকে বেঁকে আসা আলো ধরা পড়ে অনুসন্ধানী দলের টেলিস্কোপের চোখে। মিলে যায় আইনস্টাইনের পূর্বানুমান৷ 

Category: articles

শুক্রবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

চাঁদ ও সূর্য। পৃথিবীর আকাশকে সুন্দর করে তোলার পেছনে যাদের জুড়ি মেলা ভার। আকারে দুই বস্তুতে ব্যাপক পার্থক্য। সূর্য চাঁদের তুলনায় বিশাল। তাও পৃথিবীর আকাশে দুটো বস্তুকে সমান দেখায়। কিন্তু কেন? 


পৃথিবী থেকে দূরত্ব ও আকার - এই দুই মানের ভারসাম্যে চাঁদ ও সূর্য পৃথিবীর আকাশে সমান। 

সূর্য বিশাল এক বস্তু। ১৩ লক্ষ ৯০ হাজার কিলোমিটার চওড়া৷ মাইলের হিসাবে ৮ লক্ষ ৬৪ হাজার৷ দূরত্বও আবার বিশাল। পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব ৯ কোটি ৩০ লক্ষ মাইল৷ 


অপরদিকে চাঁদের ব্যাস ২১৫৯ মাইল বা ৩৪৭৫ কিলোমিটার৷ মানে চাঁদ সূর্যের চারশ ভাগের একভাগ মাত্র চওড়া৷ আর পৃথিবীর থেকে চাঁদের দূরত্ব ৩ লক্ষ ৮৪ হাজার কিলোমিটার বা ২ লাখ ৩৮ হাজার ৯০০ মাইল। 


সূর্য পৃথিবী থেকে কত দূরে?


চাঁদ পৃথিবী থেকে কত দূরে? 


এ হিসাবগুলোতে দারুণ মজার একটা ব্যাপার আছে৷ পৃথিবী থেকে চাঁদের তুলনায় সূর্যের দূরত্ব ৪০০ গুণ৷ আবার সূর্যের আকার চাঁদের ৪০০ গুণ। ফলে চাঁদের তুলনায় সূর্যের বিশালতা আমাদের চোখে হারিয়ে যায় দূরত্বের কারণে৷ ঠিক এভাবেই দূরের উজ্জ্বল নক্ষত্র কাছের অনুজ্জ্বল নক্ষত্রের আলোর কাছে হেরে যায়৷


নক্ষত্রের উজ্জ্বলতা


চাঁদ ও সূর্য দুটোরই আকার পৃথিবীর আকাশে ০.৫ ডিগ্রি৷ তবে সবসময় আকার সমান থাকে না। পৃথিবীর চারপাশে চাঁদের কক্ষপথ উপবৃত্তাকার। চাঁদের পৃথিবীর চারপাশের কক্ষপথের নিকটতম অবস্থানের নাম অনুভূ। আর সবচেয়ে দূরের অবস্থানের নাম অপভূ৷  একইভাবে সূর্যের চারপাশে পৃথিবীর কক্ষপথও উপবৃত্তাকার৷ কাছের ও দূরের অবস্থানের নামগুলো অনুসূর ও অপসূর৷ জানুয়ারি মাসে পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে। 


খালি হাতে আকাশ মাপুন


জ্যোতির্বিদ্যায় কোণের পরিমাপ


এসব কারণে সময় সময় চাঁদ ও সূর্যকে পৃথিবীর আকাশে বড় ও ছোট দেখায়৷ তবে চাঁদ পৃথিবীর বেশি কাছে বলেই আকারের তারতম্য বেশি ফুটে ওঠে৷ আমরা দেখি মাইক্রোমুন ও সুপারমুন৷ 


তবে চাঁদ ক্রমেই পৃথিবী থেকে দূরে সরছে। ২৫০ কোটি বছর ধরেই চলছে এ কাজ। প্রতি বছর সরছে প্রায় ৩.৮ সেন্টিমিটার করে৷ দূর অতীতে তাই  সূর্য ও চাঁদ পৃথিবীর আকাশে সমান ছিল না। চাঁদ ছিল বড়৷ বর্তমানে আমরা ভাগ্যবান। এই সময়টায় দুটোই সমান। ধীরে ধীরে চাঁদ আরও ছোট হবে৷ 


আবার এই চাঁদ ও সূর্য পৃথিবীর আকাশে সমান বলেই আমরা নানানসময় দেখি সূর্যচন্দ্রগ্রহণ৷ সেটা হতে হলে তিন বস্তুকে অবশ্য একই রেখায় আসতে হয়। সাইজ মিলে গেলে দেখি পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ৷ সূর্যগ্রহণের সময় চাঁদ দূরে থাকলে (অপভূ) দেখা যায় বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ৷ চাঁদের চারপাশ ঘিরে এ সময় দেখা যায় সূর্যের বৃত্তাকার আলোকরেখা৷ 


সূর্যগ্রহণ কেমন হবে তা নির্ভর করে পৃথিবী থেকে চাঁদের দূরত্বের ওপর। 


অন্য গ্রহেও কি এমন? আকাশে কি চাঁদ (গ্রহের উপগ্রহ) ও সূর্যের সাইজ সমান? এই যেমন মঙ্গল গ্রহ। এর দুই চাঁদ ডিমোস ও ফোবোস দুটোই সূর্যের চেয়ে অনেক ছোট৷ পৃথিবীর চেয়েও মঙ্গল থেকে সূর্য বেশি দূরে৷ মঙ্গলের আকাশে তাই এর চাঁদদের ছোট হওয়ার কারণ তাই চাঁদদেরই ছোট সাইজ৷ 

সূত্র: স্পেস ডট কম, সায়েন্স নোটস

Category: articles

বুধবার, ২৩ আগস্ট, ২০২৩

আজ ২৩ আগস্ট। ১৯৬৬ সালের এই দিন চাঁদের কক্ষপথ থেকে প্রথমবারের মতো পৃথিবীর ছবি তোলা হয়। যা একইসাথে অন্য মহাজাগতিক বস্তু থেকেও প্রথম তোলা ছবি। ছবিটি তোলে নাসার মহাকাশযান লুনার অরবিটার ১।


চাঁদ থেকে পৃথিবীর প্রথম ছবি। 


যানটা ছিল নাসার লুনার অরবিটার প্রোগ্রামের প্রথম অভিযান৷ যুক্তরাষ্ট্রের পাঠানো যানের মধ্যে এটাই প্রথম চাঁদকে প্রদক্ষিণ করে৷ প্রেরণের মূল উদ্দেশ্য ছিল চাঁদের মসৃণ পৃষ্ঠের ছবি তোলা৷ যাতে পরবর্তী সার্ভেয়ার ও অ্যাপোলো অভিযানের যানগুলো নিরাপদে অবতরণ করতে পারে৷ চাঁদের উদ্দেশ্যে পাঠানো হয় ঐ বছরই আগস্টের ১০ তারিখে। নাম থেকে বোঝা যাচ্ছে যানটা অরবিটার। মানে কক্ষপথে ঘুরবে৷ আগস্টের ২৫ তারিখে এটা কক্ষপথের নিকটবিন্দুতে পৌঁছে৷ তার আগেই তোলে বিখ্যাত ছবিটা৷

অক্টোবর মাসের ২৯ তারিখ। যানটা এর ৫৭৭তম প্রদক্ষিণের সময় চাঁদের উল্টো পাশে আছড়ে পড়ে৷ কাজটা পরিকল্পিতই ছিল। কারণে ততদিনে লুনার অরবিটার ২ যান পাঠানোর পরিকল্পনা হয়ে গেছে৷ এর সাথে যোগাযোগ নির্বিঘ্ন করতেই পূর্বসূরিকে অকেজো করা হয়৷

সূত্র: উইকিপিডিয়া: লুনার অরবিটার
Category: articles

রবিবার, ১১ জুন, ২০২৩

আমরা জানি, সূর্যের আলোই পৃথিবীর আকাশকে আলোকিত করে। সূর্যের আলো ৭টি আলোর সমন্বয়ে তৈরি। বেগুনি নীল, আসমানী, সবুজ, হলুদ, কমলা ও লাল। এক কথায় বেনীআসহকলা। কিন্তু সব রঙ ছাড়িয়ে আমরা আকাশ দেখি নীল। কারণ হিসেবে বলা হয়, নীল আলোর তরঙ্গদৈর্ঘ্য কম। তাই বায়ুকণায় ধাক্কা লেগে সবচেয়ে বেশি ছড়িয়ে পড়ে।  আলোর এ বিক্ষেপণের কারণে সবদিকে নীল দেখি আমরা। 


সিলেট ক্যাডেট কলেজ থেকে আকাশের দৃশ্য 

এখন, কথা হলো দৃশ্যমান সাত আলোর বর্ণালীতে সবচেয়ে কম তরঙ্গদৈর্ঘ্যের আলো বেগুনি। নীল নয়। আমাদের না দেখা অনেক আলো আছে। এই যেমন গামা, অবলোহিত ইত্যাদি। তবে বেগুনি আলো তো আমাদের চোখে দৃশ্যমান। আর এর বিক্ষেপণ বা বিচ্ছুরণ সবচেয়ে বেশি হওয়ার কথা। নীল আলোর চেয়েও বেশি। তাহলে তো আকাশের সবদিক বেগুনি আলোয় ভরপুর হয়ে ওঠার কথা। কিন্তু কেন বেগুনি না হয়ে নীল হলো?


চিত্র ১: দৃশ্যমান বর্ণালী

ব্যাপারটা কয়েকটি কারণে হয়। প্রথমত, সূর্য থেকে নীলের সাথে বেগুনি আলোও বের হয় তা ঠিক। তবে সব তরঙ্গদৈর্ঘ্যের আলোর নির্গমন একই হারে হয় না। সূর্য থেকে আসা আলোকশক্তির খুব সামান্য একটি অংশই বেগুনি তরঙ্গদৈর্ঘ্যের। আরেকটি কারণ হলো, বায়ুমণ্ডল বেগুনি আলোকে শোষণ করে নেয়। এই কারণেই আমরা সূর্যের অদৃশ্য ক্ষতিকর অতিবেগুনি রশ্মি থেকেও রক্ষা পাই। আর বেগুনি আলো দেখিও কম। 


তবে এগুলোই একমাত্র কারণ নয়। রংধনুতে আমরা কিন্তু নীল বা আসমানীর পাশাপাশি বেগুনি রংও দেখি। 


আকাশকে বেগুনি না দেখানোর আছে জীববৈজ্ঞানিক কারণও। আমাদের চোখ বেগুনি আলোর প্রতি অপেক্ষাকৃত কম সংবেদনশীল। আমাদের চোখের রেটিনায় তিন ধরনের কালার রিসেপ্টর বা বর্ণগ্রাহক আছে। এগুলোকে বলে কোন। জ্যামিতির কোণ নয়। আকৃতি কোন বা শঙ্কুর মতো। কলার মোচার নিচেরটা দেখতে যেমন। 


তিন ধরনের কোন কোষের নাম লাল, নীল ও সবুজ। এ নাম দেওয়ার কারণ কোষগুলো এই আলোর তরঙ্গদৈর্ঘ্যে সাড়া দেয়। আমরা কী রং দেখব তা নির্ভর করে এই কোষগুলোর উদ্দীপনার ওপর। 



ছবি ২: তিন ধরনের আলোর প্রতিক্রিয়া

লাল কোন কোষ আকাশের লাল আলো দ্বারা উদ্দীপ্ত হয়। পাশাপাশি একটু কম মাত্রায় উদ্দীপ্ত হয় কমলা ও হলুদ রং দ্বারাও। সবুজ কোন কোষ হলুদ আলোর প্রতিও সাড়া দেয়। আরেকটু বেশি মাত্রায় উদ্দীপ্ত হয় সবুজ ও নীল-সবুজ আলো দিয়ে। নীল কোন কোষ মূলত নীল ও এর আশেপাশের কিছু রংয়ের আলোর প্রতি সাড়া দেয়। এ আলোগুলো খুব বেশি বিক্ষিপ্ত হয়। বর্ণালীতে গাঢ় নীল ও বেগুনি না থাকলে আকাশ নীলের সাথে হালকা সবুজ হত। 


গাঢ় নীল ও বেগুনি রং সবচেয়ে বেশি বিক্ষিপ্ত হয়। এ দুই রং লাল কোন কোষের পাশাপাশি নীল কোনকেও উদ্দীপ্ত করে। এ কারণেই এদেরকে নীল ও সাথে মৃদু লাল আভা দেখা যায়। সার কথা হলো, সবুজ ও লাল কোন কোষ আকাশের আলোয় প্রায় সমান সাড়া দেয়। তবে নীল কোন সাড়া দেয় এদের চেয়ে অনেক বেশি তীব্রভাবে। এ কারণেই আকাশকে মলিন নীল দেখায়। বেগুনি দেখায় না। 


আর কোন কোষের এ বৈশিষ্ট্যের কারণেই ক্যামেরা কিন্তু আকাশকে আমাদের চেয়ে ভিন্ন দেখে। ডিজিটাল ক্যামেরায় আকাশকে কিছুটা রক্তবর্ণের বা গাঢ় নীল দেখা যায়৷ পাহাড় বা বিমান থেকে তোলা ছবিতে ব্যাপারটা আরও বেশি স্পষ্ট। ক্যামেরার চোখ বেগুনি আলোর প্রতি মানুষের চোখের চেয়ে বেশি সংবেদনশীল। এ কারণে ক্যামেরায় ইউভি বা অতিবেগুনি ফিল্টার থাকে। 


** নীল ও আকাশী রং নিয়ে বাংলা ভাষায় কিছু বিভ্রান্তি  আছে৷ আমরা সাধারণত যাকে নীল বলি সেটা আসলে আসমানী। যেমন আকাশ আসলে নীল নয়, আসমানী। নীল রংয়ের প্রকৃত কিছু উদাহরণ হলো ব্লুবেরি, কালো আঙ্গুর বা বেগুন। ইংরেজি blue এর বাংলা আসমানী। আর নীলের ইংরেজি indigo। আকাশের রং হলো ব্লু বা আসমানী। ইন্ডিগো বা নীল নয়। তবে লেখায় বোঝার সুবিদার্থে আসমানীকে নীল লিখেছি। মানে আকাশকে আসমানী না বলে নীল ধরে নিয়েছি। আর নীলকে লিখেছি গাঢ় নীল। 


লেখাটি ইতোপূর্বে দৈনিক বাংলা পত্রিকার বিজ্ঞান পাতা ইউরেকায় প্রকাশিত। 

সূত্র

  1. http://www.atmo.arizona.edu/students/courselinks/fall14/atmo170a1s2/lecture_notes/scattering/why_not_violet.html
  2. https://math.ucr.edu/home/baez/physics/General/BlueSky/blue_sky.html
  3. https://www.quora.com/Why-isnt-the-sky-violet-since-violet-light-has-an-even-shorter-wavelength

Category: articles

রবিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২৩

আমাদের চোখে কোনো কিছুর আলো এসে পড়লে তবেই আমরা জিনিসটা দেখতে পাই। সূর্যও তাই। সূর্যের আলো আমাদের চোখে এসে লাগলে আমরা দেখি সূর্যকে। ধরুন কোনো অজানা কারণে সূর্য হারিয়ে গেল। বা গায়েব হয়ে গেল। কতক্ষণ পরে ব্যাপারটা আমরা বুঝতে পারব? উত্তর হলো, সূর্যের আলো পৃথিবীতে আসতে যে সময় লাগে।



আলো সূর্যের হোক আর যারই হোক, তা তো চলবে আলোর বেগেই। আর আলোর বেগ সেকেন্ডে ৩ লক্ষ কিলোমিটার। এবার হিসাবটা আমরা নিজেরাই করে ফেলি। পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব আমাদের জানা। ১৫ কোটি কিলোমিটার বা ৯ কোটি ৩০ লক্ষ মাইল। দূরত্বটার একটা নামও আছে। অ্যাস্ট্রোনমিকেল ইউনিট বা এইউ। জ্যোতির্বিদ্যায় বড় বড় দূরত্বের এককের মধ্যে সুবিধাজনক এক একক এটি।

পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব কত?
জ্যোতির্বিদ্যায় দূরত্বের এককেরা

দূরত্বকে আলোর বেগ দিয়ে ভাগ করলেই আমরা সময়টা পেয়ে যাব। ৫০০ সেকেন্ড বা ৮ মিনিট ২০ সেকেন্ড।

এখানে একটি ব্যাপার মাথায় রাখতে হবে। এই দূরত্বটা হলো গড় পরিমাপ। পৃথিবী সূর্যের চারপাশে উপবৃত্তাকার কক্ষপথে চলে। ফলে পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব ১৪.৭ কোটি থেকে ১৫.২ কোটি কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে। পৃথিবী সূর্যের নিকটতম অবস্থানে থাকলে আলো আসতে ৪৯০ সেকেন্ড বা ৮ মিনিট ১০ সেকেন্ড সময় লাগে। আবার দূরতম অবস্থানে সময় লাগবে ৮ মিনিট ২৭ সেকেন্ড বা ৫০৭ সেকেন্ড।

অপসূর বনাম অনুসূর
কক্ষপথ কেন উপবৃত্তাকার? (লেখা আসছে...)

আসল কথা শেষ। সূর্যের আলো পৃথিবীতে আসতে গড়ে ৮ মিনিট ২০ সেকেন্ড লাগে।

তবে কথা আরও আছে। সূর্যের আলো তো সূর্যের পৃষ্ঠ থেকে আসে না। সূর্যের অভ্যন্তরে ঘটা ফিউশনের ফলে সৃষ্ট আলো ও তাপ প্রায় ৭ লক্ষ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে বাইরে আসে।

সূর্যের আলো কেন্দ্র থেকে যাত্রা শুরু করে গামা বিকিরণ হিসেবে। এরপর যাত্রাপথে সূর্যের বিকিরণ অঞ্চলে বহুবার নির্গত ও শোষিত হয়। বহু চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে এরপর বেরিয়ে আসে বাইরে।

সূর্য কত বড় (লেখা আসছে...)
সূর্য জ্বলে কীভাবে?
এক নজরে সূর্য

বাস্তবতা হলো আমরা এখন সূর্যের আলো দেখি তা তৈরি হয়েছিল বহু হাজার বছর আগে। পৃষ্ঠে চলে আসার পর আমাদের কাছে আসতে ৮ মিনিট ২০ সেকেন্ড লাগে তা ঠিক আছে। মহাবিশ্বের অন্য ব্যাপারের মতো এখানেও তাই যত দূরে তাকাব, মহাবিশ্বের তত অতীত দেখব। আমরা তাই সূর্যকে দেখি ৮ মিনিট আগের অবস্থায়। সূর্যের নিকটতম তারা প্রক্সিমা সেন্টোরিকে দেখি প্রায় চার বছর আভে এটি যেমন ছিল তেমন।

যত দূর তত অতীত
 সূর্যের নিকটতম তারা 

ধরুন দূরের কোনো ছায়াপথে এলিয়েন আছে। টেলিস্কোপে চোখ রেখে তারা হয়ত ডাইনোসরদেরও দেখতে পারে!

Category: articles

মঙ্গলবার, ৫ জুন, ২০১৮

যে-কোনো গোলাকার জিনিসেই মেরু ও বিষুব অঞ্চল নামে দুটো অংশ থাকে। আরও সঠিক করে এ অঞ্চল দুটি থাকে ঘুর্ণনরত গোলাকার বস্তুতে। যেমন গ্রহ, নক্ষত্র ইত্যাদি। যেমন ধরুন, আমাদের পৃথিবী। এটি ঘুরছে পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে। এ কারণেই আমরা সকালবেলা পূর্ব দিকে সূর্য উঠতে দেখি। ডুবে যেতে দেখি পশ্চিমে।

আরও পড়ুনঃ
☛ গ্রহের পরিচয়
নক্ষত্রের পরিচয়

পৃথিবী ঘুরছে পশ্চিম থেকে পূবে। 
এই ঘুর্ণন থেকেই বিষুব ও মেরু অঞ্চল চিহ্নিত করা হয়। উপরের ছবির একেবারে মাঝখান দিয়ে উপরে-নীচে একটি রেখা কল্পনা করুন। এই রেখাটি পৃথিবীর পৃষ্ঠ বরাবর যাবে না। যাবে পৃথিবীর পেটের ভেতর দিয়ে। উপরের পৃথিবীটাকে ফুটবলের মতো চিন্তা করলেই ব্যাপারটা পরিষ্কার হয়ে যাবে।

এখন এই কল্পিত রেখাকে বলা হয় ঘুর্ণন অক্ষ। মানে যে রেখাকে কেন্দ্র করে পৃথিবী ঘুরছে। এবার কল্পনা করুন এই রেখাটি উপরে ও নীচে কোন বিন্দুতে গিয়ে পৌঁছেছে। এই দুটিই বিন্দুকেই বলা হয় মেরু (pole)। উপরের বিন্দুটি হলো উত্তর মেরু। অপর নাম সুমেরু। নীচের বিন্দুটির নাম কুমেরু বা দক্ষিণ মেরু। আর মেরু বিন্দু দুটির আশেপাশের অঞ্চলই মেরু অঞ্চল নামে পরিচিত।

এবার উত্তর মেরু ও দক্ষিণ মেরুর মাঝখানে একটি রেখা কল্পনা করুন। অবশ্যই রেখাটি হবে পূর্ব-পশ্চিমে। এই রেখাটিরই নাম বিষুব রেখা (equator)। অপর নাম নিরক্ষ রেখা। এই রেখার উত্তরে পৃথিবীর যে অংশ পড়েছে তার নাম উত্তর গোলার্ধ (Northern hemisphere)। আর দক্ষিণের অংশের নাম দক্ষিণ গোলার্ধ।

পৃথিবীর মেরু ও বিষুব অঞ্চল। 

বিষুব অঞ্চলে পৃথিবীর পরিধি সবচেয়ে বেশি হয়। বিষয়টা খুব সহজ। উপরের ছবিতে দেখুন, বিষুব রেখা থেকে আমরা যতই উত্তরে বা দক্ষিণে যাব, ততই পূর্ব ও পশ্চিমের ব্যাবধান কমে যাচ্ছে। তার মানে অক্ষ রেখা থেকে পৃষ্ঠের দূরত্ব কমে যাচ্ছে। বুঝতে অসুবিধা হলে ফুটবলের কথা আবার মনে করুন। এভাবে যেতে যেতে মেরুতে গিয়ে দেখুন, পূর্ব ও পশ্চিমের মাঝে কোন ব্যবধানই নেই। দুটো একে অপরের সাথে মিশে গেছে।

এবার আরেকভাবে চিন্তা করি। আমরা প্রায়ই শুনে থাকি, বিষুব অঞ্চলে পৃথিবীর ব্যাসার্ধ বেশি। মেরু অঞ্চলে কম। হ্যাঁ, এটা সত্যি। তবে একটু আগে আমরা যে ব্যাসার্ধের কথা বলেছি, সেটা ছিল অক্ষ রেখা থেকে পরিধির দূরত্ব। মানে উত্তরে-দক্ষিণে কল্পিত রেখার প্রতিটি বিন্দু থেকে পৃথিবীর পৃষ্ঠের দূরত্ব। তবে এবারে আমরা চিন্তা করছি পৃথিবীর একেবারে কেন্দ্র থেকে দূরত্ব। এই ব্যসার্ধ আপাত দৃষ্টিতে মেরু ও বিষুব অঞ্চলে সমান হওয়ার কথা। কিন্তু আসলে তা নয়।

উপরের ছবি দুটোতে আমরা পৃথিবীকে একদম খাঁটি গোলকের মতো চিন্তা করেছি। পৃথিবী সেরকমই হতো যদি এটি স্থির থাকত। কিন্তু পৃথিবী ঘণ্টায় দেড় হাজার কিলোমিটারেরও বেশি বেগে পশ্চিমে থেকে পূবে ঘুরছে। এই ঘূর্ণনের কারণেই বিষুব অঞ্চলটা একটি লম্বা হয়ে গেছে। অন্য দিকে মেরু অঞ্চলটা একটু চেপে গেছে। তার মানে পৃথিবীর সঠিক আকৃতি হবে এ রকম:
দেখুন মেরুর দিকে ব্যাসার্ধ b দিয়ে বোঝানো হয়েছে। আর বিষুব রেখায় ব্যাসার্ধ a। অবশ্যই a বড় b এর চেয়ে। ছবি থেকে বোঝাও যাচ্ছে কেন এমন হল। ছবির সূত্র

আরও পড়ুন: 
পৃথিবী কত জোরে ঘোরে?

এবারে আরও কিছু অঞ্চল চিনে নেওয়া যাক। উত্তর মেরু থেকে প্রায় ২৩.৫ ডিগ্রি দক্ষিণ পর্যন্ত এলাকা নিয়ে একটি বৃত্ত আঁকলে যে এলাকা পাওয়া যায়, তাকে বলে সুমেরু বৃত্ত (arctic circle)। একইভাবে দক্ষিণ মেরুর উত্তর দিকে বৃত্ত আঁকলে তার নাম হয় কুমেরু বৃত্ত (antarctic circle)।

সুমেরু বৃত্ত ও আশেপাশের অঞ্চল। 
আবার বিষুব রেখা থেকে ২৩.৫ ডিগ্রি উত্তরে পূর্ব-পশ্চিমে কল্পিত রেখাকে বলে কর্কটক্রান্তি রেখা (tropic of cancer)। অন্য দিকে, একই কৌণিক দূরত্বে দক্ষিণের রেখাকে বলে মকরক্রান্তি রেখা (tropic of capricorn)। মজার ব্যাপার হলো, আমাদের কর্কটক্রান্তি রেখা আমাদের বাংলাদেশের উপর দিয়ে চলে গেছে। আরও নিখুঁত করে বলা যায়, ঢাকার উপর দিয়ে চলে গেছে।

আরও পড়ুন: 
☛ পৃথিবীর উত্তর-দক্ষিণ মেরু থাকলেও পূর্ব পশ্চিম মেরু নেই কেন?
Category: articles

বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

প্রাচীনকালের মানুষজন পৃথিবীকে সমতল মনে করত। এ বিশ্বাস শুরু হয়েছিল সুমেরীয়দের দিয়ে। তারাই ছিল প্রথম সভ্যতা, যারা লিখতে পারত। তারা ধরে নিয়েছিল, পৃথিবী একটি বিশাল সমতল মাঠ। তাদের ধারণার পেছনে যথেষ্ট যুক্তিও ছিল। কারণ সাধারণভাবে দেখলে মনে হবে, পৃথিবীর উঁচু ও নিচু স্থানগুলোকে মিলিয়ে সমতল করে ফেলা সম্ভব। তাছাড়া শান্ত পুকুর বা হ্রদের পানির দিকে তাকালে তা সমতল দেখায়। ভিন্নভাবে দেখলে, পৃথিবীর বক্রতা মেপেও বোঝা যায় তা আসলে সমতল নাকি গোলাকার। পরিমাপ করলে দেখা যাবে পৃথিবীর প্রতি মাইলে বক্রতার ব্যাসার্ধ শুন্য! যেখানে ১ মিটার ব্যাসার্ধের কোনো গোলকের বক্রতা প্রতি মিটারে ১ একক।

 বক্র পৃথিবী 

কিন্তু আজ আমরা সবাই জানি, পৃথিবী সমতল নয়। বরং প্রায় কমলালেবুর মতো গোলাকার। তবে প্রাচীনকালের যন্ত্রপাতি দ্বারা প্রাপ্ত পৃথিবীর সমতল তত্ত্ব প্রায় সঠিক ছিল। এ কারণে অনেক দিন ধরেই মানুষ পৃথিবীকে সমতল ভাবত।

তবে পৃথিবী সমতল হলে কিছু সমস্যা থেকেই যায়, যা ব্যাখ্যা করা অসম্ভব। যেমনঃ ৩৫০ খ্রিস্টপূর্বে বিখ্যাত বিজ্ঞানী অ্যারিস্টটল দেখলেন, পৃথিবীকে সমতল ধরলে তিনটি প্রাকৃতিক ঘটনার কারণ সঠিকভাবে বর্ণনা করা যায় না। প্রথমটি হল, যদি কেউ উত্তর দিকে ভ্রমণ করতে থাকে, তবে তার কাছে রাতের আকাশের কিছু তারা দিগন্তে মিলে যাচ্ছে বলে মনে হবে। আবার দক্ষিণ দিকে ভ্রমণ করলেও অন্য কিছু তারা দিগন্তে মিলে যায়। দ্বিতীয়টি হল, চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদের গায়ে পৃথিবীর ছায়া সব সময় গোলাকার দেখায়। তৃতীয় ঘটনা, সমুদ্রে কোনো জাহাজ যেদিকেই ভ্রমণ করুক না কেন জাহাজের কোল সবার আগে অদৃশ্য হয়ে যায়। এছাড়াও তিনি মনে করতেন সব বস্তুই গোলকে রুপান্তরিত হতে চায়।

অ্যারিস্টটল  
অ্যারিস্টটলের প্রায় ১০০ বছর পরে ইরাটোস্থেনিস নামে আরেকজন বিজ্ঞানী খেয়াল করেন, একই বস্তুর ছায়া পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে যদি একই সময়ে পরিমাপ করা যায়, তবে ছায়ার দৈর্ঘ্য বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন হয়।
 
ছায়ার এই দৈর্ঘ্যের পার্থক্য থেকে তিনি পৃথিবীর পরিধি নির্ণয় করেন ২৮ হাজার ৬৫০ মাইল। যার বক্রতার ব্যাসার্ধ দাঁড়ায় প্রতি মাইলে ০.০০০১২৬। এই মানটি শূন্যের খুব কাছাকাছি। প্রাচীনকালের যন্ত্রপাতি দিয়ে তা পরিমাপ করা ছিল প্রায় অসম্ভব। তাই সেই সময় পৃথিবীর সমতলতত্ত্ব নিয়ে কেউ তেমন দ্বিমত পোষণ করেনি।

ইরাটোস্থেনিস 

তারপরেও পৃথিবী কি সম্পূর্ণ গোলক? টেলিস্কোপ দিয়ে শনি ও বৃহস্পতি গ্রহ পর্যবেক্ষণ করা হলে দেখা গেল, তারা পুরোপুরি গোলক নয়। বরং উপবৃত্তাকার। ১৭ শতকের শেষের দিকে আইজ্যাক নিউটন দেখিয়েছিলেন, যদি বিশালাকার কোনো বস্তু ঘূর্ণায়মান থাকে, তবে একটা কেন্দ্রবিমুখী বল তৈরি হবে, যার মান বিষুবীয় অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি হবে। এই বলের কারণে পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ বস্তুসমুহ অভিকর্ষ বলের বিরুদ্ধে পৃথিবী ছেড়ে বাইরে চলে যেতে চাইবে। যেহেতু বিষুবীয় অঞ্চলে এই বল সর্বাধিক, তাই এই অঞ্চলে পৃথিবীর ব্যাসার্ধ সর্বোচ্চ হবে। অষ্টাদশ শতকে পরিমাপ করে দেখা গেল নিউটন ঠিকই বলেছিলেন। পৃথিবী আকৃতি আসলে কমলালেবুর মত। তখন প্রতি মাইলে পৃথিবীর ব্যাসার্ধের পার্থক্য পাওয়া যায় ০.০০৩৪।

নিউটন 

তাহলে শেষ পর্যন্ত কী দাঁড়াল?
পৃথিবীর বক্রতা প্রাথমিকভাবে প্রতি মাইলে শূন্য। আরও সূক্ষ্মভাবে বললে ০.০০০১২৬ ,যা প্রতি মাইলে ৭.৯৭৩ থেকে ৮.০২৭ ইঞ্চি পর্যন্ত পরিবর্তিত হতে পারে। তাই সমতল পৃথিবীর ধারণা যেমন ভুল ছিল, গোলাকার পৃথিবীর ধারণাটিও তেমনি ভুল। কিন্তু সেই ভুলের পরিমাণ সমতল পৃথিবীর ধারনার চেয়ে অনেক অনেক কম।

ঠিক এরকমভাবেই আজ আমরা যা জানি, তা আমাদের কাছে এখন  সঠিক ও নির্ভুল মনে হচ্ছে। কিন্তু আমাদের জ্ঞান আরেকটু সমৃদ্ধ হলে নিজের জানা সঠিক বিষয়টাই হয়ত এক সময় ভুল বলে মনে হতেই পারে। এই মহাবিশ্বের অসীম জ্ঞান সমুদ্রের তুলনায় আমরা যে নিতান্তই মূর্খ!

আরও পড়ুনঃ
পৃথিবীর উত্তর-দক্ষিণ মেরু থাকলেও পূর্ব পশ্চিম মেরু নেই কেন?

তথ্যসূত্রঃ 
১। ইউটিউব
২। উইকিপিডিয়া
Category: articles

বৃহস্পতিবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০১৬

আপনারা আকাশে কখনও কি আলোর নৃত্য দেখেছেন? অনেকেই হয়তো ভাবছেন আতোশবাজি বা অন্যান্য জিনিসের কথা। কিন্তু প্রকৃতি যে নিজেই আলোর নৃত্য দেখায়। এরই নাম অরোরা (Aurora)। আলোর এই নাচন চোখে পড়ে সাধারণত পৃথিবীর দুটি মেরু অঞ্চলে। সুমেরু (Arctic) ও কুমেরুর (Antarctic) আকাশে। 

মেরু অঞ্চলে সৃষ্ট অরোরা 

অরোরা শব্দতি এসেছে ল্যাটিন থেকে। অর্থ Sunrise বা সূর্যোদয়। এই মেরুজ্যোতি বা মেরুপ্রভা (Polar aurora) পৃথিবীর দুই মেরুর  আকাশে ঘটে যাওয়া এক নৈসাদৃশ্য ঘটনা। উত্তরে মেরুতে ঘটলে নাম হয় সুমেরু প্রভা (Northern Lights বা Auorora Borealis),আর দক্ষিণ মেরুতে এরই নাম কুমেরু প্রভা (Southern Lights বা Aurora Australis)। 

এই অরোরা দেখতে আপ্রাকিতিক দৃশ্য বলে একে এক রহস্যময় শক্তি বলে বিবেচনা করা হত। অধিকাংশ মানুষই একে স্বর্গীয় আলো মনে করত। অনেকে আবার একে সৃষ্টিকর্তার পক্ষ হতে ভবিষ্যতের দিকনির্দেশনা মনে করত। সবুজ রঙের প্রভাকে তারা ভাবতো তাদের ভবিষ্যতের সুখের আভাস। আর এর রঙ লাল হলেই তাদের মনে হত ভবিষ্যৎ হবে দুর্যোগময়। লোহিত মেরুপ্রভাকে যুদ্ধের পূর্বাভাস হিসেবেও দেখা হত।

অরোরা দেখতে অনেকটা অনেকগুলো সমান্তরাল আলোক রশ্মির মতো, যা একটির পর একটি করে ঘন সন্নিবিষ্ট হয়ে তৈরি করে আলোক পর্দার মতো। প্রতি মুহূর্তে হতে থাকে স্থানান্তরিত। রাতের বেলা মনে হয় অনেকগুলো সমান্তরাল আলোক রশ্মি পৃথিবীর বুকে নেমে আসছে। মূলত এই আলোক পর্দাই প্রতিনিয়ত স্তানন্তরিত হতে থাকে। আর এটা মনে হয় যেন পৃথিবীর বুকে সমুদ্রের ঢেউ খেলছে। এই অরোরা বিভিন্ন রঙের হতে পারে।


অরোরা তৈরির কারণঃ

সূর্য প্রতিনিয়তই পৃথিবীর চারদিকে বিভিন্ন চার্জিত কণা নিক্ষেপ করছে, যা আমাদের জন্য ক্ষতিকর। সূর্যের এই চার্জিত কণার প্রবাহকেই বলে সৌরবায়ু (solar wind)। কিন্তু সৌভাগ্যের ব্যাপার হল, আমাদের পৃথিবীতে রয়েছে শক্তিশালী চৌম্বক ক্ষেত্র (Magnetic field) । এটি দক্ষিণ মেরু থেকে উত্তর মেরুতে প্রবেশ করছে। সূর্য থেকে যখন এসব আয়নিত কণা পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসে, তখন এরা পৃথিবীর আয়োনিত চৌম্বক ক্ষেত্র দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হয়। তাই তা ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। কিন্তু মেরু অঞ্চল যেখানে চৌম্বক ক্ষেত্র একদম কম সেখানে এই আয়নিত কণাগুল প্রবেশের সুযোগ পায় এবং এ অঞ্চলের বায়ুমণ্ডলে অবস্থিত নাইট্রোজেন ও অক্সিজেনকে আঘাত করে। তখন এদের পরমাণু উত্তেজিত হয় এবং কিছুক্ষণ পরেই শক্তি বিকিরন করে আগের অবস্থায় ফিরে আসে। আর এই বিকিরণই আমরা দৃশ্যমান আলোতে দেখতে পাই। আর এটাই হল অরোরা। 

অরোরায় আলোর নাচন 

বায়ুমণ্ডল আছে এমন কোনো গ্রহে যদি দ্রুতগতির চার্জিত কণা প্রবেশ করে তবেই মেরুপ্রভা সৃষ্টি হবে। সৌরবায়ু যেহেতু সকল গ্রহেই পৌঁছে, তাই সব গ্রহেই অরোরা বা মেরুপ্রভা সৃষ্টি হয়। তবে গ্রহভেদে এদের রুপ ভিন্ন। শক্তিশালী চৌম্বকক্ষেত্র বিশিষ্ট শনি ও বৃহস্পতি গ্রহে পৃথিবীর ন্যায়
মেরু অঞ্চলে অরোরা উৎপন্ন হয়। শুক্রের মতো গ্রহের ক্ষেত্রে যেখানে উল্লেখযোগ্য চৌম্বকক্ষেত্র নেই, সেখানে অনিয়মিত প্রভা উৎপন্ন হয়। যে সকল গ্রহের চৌম্বক অক্ষ এবং ঘূর্ণন অক্ষ এক নয়
(যেমন ইউরেনাস ও নেপচুন), সেখানে বিকৃত (Distorted) মেরুপ্রভ অঞ্চল সৃষ্টি হয়। 

আজকের ছবিঃ বৃহস্পতির অরোরা
বৃহস্পতি গ্রহে সৃষ্ট অরোরা 
Category: articles

শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

একটি গল্প দিয়েই শুরু করা যাক। দুই বন্ধু ইকরাম ও রিফাত ভ্রমন করতে খুবই পছন্দ করে। ইকরাম একজন ভালো ফটোগ্রাফার আর রিফাত বেশ সাহসী। তো, একদিন তারা আমেরিকার ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্কে  ঘুরতে গেল। ইকরাম প্রকৃতির ছবি তুলতেছিলো, তখন রিফাত পানির একটি রিজার্ভারের সামনে দাঁড়িয়ে বলল, 'দোস্ত, আমার একটা ছবি তোল।'

ইকরাম ক্যামেরা ফোকাস করে যখনি ক্যাপচারিং বাটনে ক্লিক করবে তখনি রিফাতের পাশে মাটি থেকে হঠাৎ ধোঁয়া বের হতে দেখল। আর, অমনি চিৎকার করে উঠল। রিফাত তাকে সান্তনা দিয়ে বলল, 'শোন, বাচ্চা ছেলের মত ভয় পাস না, বরং দেখি কী ঘটে?

তারপর মাটি ফেটে তীব্র বেগে উর্ধমূখে পানি বের হতে লাগল। আশ্চর্য হয়ে গেল ওরা। আর একসাথে বলে উঠল "দারুণ তো!"।

গেইসার 

আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। এরই নাম আসলে গেইসার।

গেইসার হল ভূ-অভ্যন্তর থেকে উৎক্ষিপ্ত গরম পানি বা বাষ্প। জলভূতাত্ত্বিক (Hydrogeological) কারণে পৃথিবীর পাতলা ভূ-ত্বক ভেদ করে এটি বেরিয়ে আসে। পিচকারি বা ফোয়ারার মতো উর্ধ্বমুখী হয়ে বিস্ফোরণের আকারে নির্দিষ্ট সময় পরপর বেরিয়ে আসে। উচ্চতা হয় সর্বোচ্চ ২০০ ফুট পর্যন্ত। স্থায়িত্ব হয় সর্বোচ্চ ১০ মিনিট।


এটি একটি বিরল ঘটনা। বর্তমানে পৃথিবীব্যাপী প্রায় ১০০০  গেইসার আছে। আমেরিকার Yellowstone National Park এ আছে প্রায়  ৪৬৫ টি সক্রিয় গেইসার। এখানেই পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ওল্ড ফেইথফুল গেইসার সক্রিয়। এটি থেকে  প্রতি ৩৫-১২০ মিনিট পর পর প্রায়  ১.৫- ৫ মিনিট ধরে প্রস্রবণ ১০৬-১৮৫ ফুট পর্যন্ত  উৎক্ষিপ্ত হয়।


এছাড়া  রাশিয়ার Dolina Geiserov, চিলির El Tatio, নিউজিল্যান্ডের Taupo Volcanic Zone আইসল্যান্ডের পুরো অঞ্চলের গেইসার উল্লেখযোগ্য।
পৃথিবী জুড়ে  গেইসারের বিস্তৃতি 


গেইসার সৃষ্টির প্রক্রিয়া : 
তিনটি ভূতাত্বিক কারণে গেইসার তৈরী হয়ঃ-

১. প্রচন্ড তাপ:
ভূ-অভ্যন্তরে প্রচণ্ড তাপ সৃষ্টিকারী পদার্থ যেমন গরম শিলা, ম্যাগমা ইত্যাদির উপস্থিতি গেইসার সৃষ্টির জন্য অপরিহার্য। এজন্য আগ্নেয়গিরি প্রবণ এলাকায় এটি ঘটে থাকে।

২. পানির উপস্থিতি: 
পৃথিবীর পৃষ্ঠে বড় ধরনের পানির রিজার্ভার এর উপস্থিতিতে অভিকর্ষের টানে পৃথিবীর ২০০০ মিটার পর্যন্ত পানি নিচে নেমে প্রচণ্ড তাপের সংস্পর্শে আসা অপরিহার্য।

৩. পাতলা ভূত্বক ও জলনির্গমন প্রণালী: 
পানি গরম হয়ে  ঊর্ধমুখী চাপে জলনির্গমন পথে  (conduit) বের হওয়ার জন্য ভূত্বক পাতলা হওয়া প্রয়োজন।

গরম পানি চারটি ধাপে উৎক্ষেপিত হয় : 
১. গরম পানি হতে বাষ্প বের হওয়া
২. টগবগানো পানি ঊর্ধমুখে স্ফীত হওয়া (একটি পানি বুদবুদের মতো অবস্থা, যেটির যেকোনো সময় ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে)
৩. পাতলা  ভূপৃষ্ঠ ভেঙ্গে যাওয়া
৪. পানি তীব্র বেগে উর্ধমুখে স্প্রে হওয়া


সূত্র: উইকিপিডিয়া,  ইউটিউব
[লেখাটি ইতোপূর্বে ব্যাপন ম্যাগাজিনে প্রকাশিত] 
Category: articles

মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৬

আচ্ছা বলুনতো, গাড়ি কোন পথে চলতে পারে? নিশ্চয়ই সমতল, ঢালু, আকাবাঁকা সব ধরনের পথেই গাড়ি চলবে। উত্তর সঠিক। এবার তাহলে বলুন, গাড়ির ইন্জিন বন্ধ করে দিলে এটি কোথায় কোথায় চলবে? এবার নিশ্চয়ই বলবেন, শুধু ঢালু পথ ধরে উপর থেকে নিচে সেটা হতে পারে। আমি যদি বলি, ঢালু পথে ইঞ্জিন বন্ধ করে রাখা গাড়িও নিচ থেকে উপরেও উঠতে পারে- এমনকি তা হতে পারে ঘন্টায় ১২০ কিলোমিটার বেগে, তবে কি বিশ্বাস করবেন?

সাধারণত একটি বস্তু নিজে নিজেই ঢালু পথে উপর হতে নিচে নামে। কারণ পৃথিবী অভিকর্ষ বল দ্বারা প্রতিটি বস্তুকে কেন্দ্রের দিকে টানে। কিন্তু এমনটা অস্বাভাবিক মনে হয় যখন কোনো বস্তু পাহাড়ের ঢালু পথে নিচ থেকে উপরে ওঠে কোনো প্রকার বল প্রয়োগ ছাড়াই। আশ্চর্যজনক হলেও আপাত দৃষ্টিতে এমনটি সত্য। এই বিশেষ ধরনের পাহাড়ের নাম গ্র্যাভিটি হিল। এর আরেক নাম ম্যাগনেটিক হিল।



আপাত দৃষ্টিতে দেখে মনে হচ্ছে কোনো শক্তি খরচ না করেই নিচ থেকে উপরে উঠা যাচ্ছে। আসলে কিন্তু এ সাইকেলের আরোহী উপর থেকেই নিচে নামছেন। কিন্তু দৃশ্যপট এমন হয়ে আছে যে উল্টোটাই মনে হচ্ছে। 

অনেকেই একে  রহস্যময় পর্বত বা রহস্যময় স্থান হিসেবে অভিহিত করে থাকেন, এমন কিছু স্থান যেখানে পরিপার্শ্বিক দৃশ্যপট এমন একটি দৃষ্টি বিভ্রম সৃষ্টি করে, যাতে একজন দর্শকের কাছে ঐ স্থানের একটি নিম্মমুখী ঢাল বিশিষ্ট রাস্তাকে উর্ধ্বমুখী ঢালু মনে হতে থাকে। এ সকল স্থানে কোনো গাড়ির গিয়ার বন্ধ করে রাখলেও তা আপনা আপনি চলতে থাকে। এতে করে চালক বা দর্শকের কাছে গাড়িটি উঁচু রাস্তা বেয়ে উঠে যাচ্ছে বলে মনে হয়। অথবা রাস্তায় পানি ঢালা হলে তা গড়িয়ে উঁচু রাস্তায় উঠছে বলে মনে হয়। এই পৃথিবীতে এরকম প্রায় একশ পাহাড় আছে । যেমন কানাডার কুইবেকের চারটিয়ারভিল, সৌদি আরবের মদিনার ওয়াদি ই জ্বিন, অস্ট্রেলিয়ার ওরোরা, ভারতের লাদাখে ইত্যাদি।

এসব পাহাড় পর্যটকদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। অনেকে মনে করেন, অতপ্রাকৃতিক শক্তি (supernatural force) বা চুম্বকীয় বলের এর কারণে এমনটি হয়ে থাকে, যা বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যার বিপরীত। তবে বিজ্ঞানীরা গ্রাভিটি হিলের রহস্য বের করেছেন।

সৌদিআরবের মদিনার ওয়াদি ই জ্বিন

বিজ্ঞানীরা জিপিএস ব্যবহার করে নিশ্চিত হয়েছেন যে, এটা মরীচিকার মতই একটি দৃষ্টি ভ্রম, যা আলোক বিভ্রমের (optical illusion)  জন্য হয়ে থাকে। আশেপাশের গাছপালা, ঢালু এলাকা, আকাবাঁকা দিগন্তরেখা বা বাধাগ্রস্থ দৃষ্টিসীমার কারণে মানব চোখ ঐ এলাকার ঢাল নির্ণয়ের জন্য কোনো প্রসঙ্গ কাঠামো খুঁজে পায় না বলে মস্তিষ্কে এমন অনুভূতি সৃষ্টি হয় যাতে ঐ এলাকাটিকে
ঊর্ধমুখী ঢাল বলে মনে হয়।

গ্র্যাভিটি হিলের আরেকটি উদাহরণ 
Category: articles

রবিবার, ১৯ জুন, ২০১৬

প্রশ্নঃ পৃথিবী যদি সেকেণ্ডে ৩০ কিলোমিটার বেগে নিজ অক্ষের উপর ঘুরতে থাকে তাহলে মহাকাশ থেকে পৃথিবীকে স্থির দেখায় কেন?
অত জোরে নিজ অক্ষের উপর ঘুরলে তো মহাকাশ থেকে পৃথিবীতে ফিরে আসার সময় বাংলাদেশে অবতরণ করতে গেলে তো আমেরিকায় চলে যাওয়ার কথা! আর মহাকাশ থেকে তো পৃথিবীকে পাগলের মত ঘুরতে দেখা যায় না, তাহলে এর ব্যাখ্যা কি?
[রাকিব হাসান]

উত্তরঃ
প্রথমত, পৃথিবী নিজ অক্ষের উপর সেকেন্ডে ৩০ কিমি. বেগে ঘুরছে না। বিষুব অঞ্চলে পৃথিবীর আবর্তন বেগ হল ঘণ্টায় ১৬৭০ কিলোমিটার বা সেকেন্ডে প্রায় ৪৬৪ মিটার। আপনি যেটি উল্লেখ করেছেন সেটি হল সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর প্রদক্ষিণ বেগ। কিন্তু তাতে আপনার প্রশ্ন বাতিল হচ্ছে না।
আরও পড়ুনঃ 
 ☛ পৃথিবীর আবর্তন বেগ কত?
 ☛ আবর্তন ও প্রদক্ষিণের পার্থক্য কী?

পৃথিবী পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে নিজ অক্ষের সাপেক্ষে ঘুরছে। দুই মেরুর ঠিক মাঝখানে বিষুব অঞ্চল অবস্থিত।
তাছাড়া আবর্তন বেগ পৃথিবীর সব জায়গায় সমান নয়। বিষুব রেখা থেকে উত্তরে বা দক্ষিণে আবর্তন বেগ কমে যায়। আমাদের বাংলাদেশে পৃথিবীর আবর্তন হচ্ছে সেকেন্ডে ৪২৪ মিটার করে।
কিন্তু তবু প্রতি সেকেন্ডে ৪৬৪ বা ৪২৪ মিটার বেগও খুব একটা ছোট নয়। এই গতিতে যেতে থাকলে কোনো বাস তিনি সেকেন্ড পার হবার আগেই এক কিমি. পথ পার হয়ে যাবে। তাহলে পৃথিবীর এই ঘূর্ণন মহাকাশ থেকে দেখা যাচ্ছে না কেন?

একটা গল্প শুনি। একবার রাশিয়ায় একজন লোক দাবি করলেন তিনি খুব সহজে ভ্রমণ করার একটি কৌশল বের করেছেন। দরকার হবে শুধু একটি বেলুন। ধরুন কেউ বাংলাদেশ থেকে ইউরোপ যেতে চাইছেন। তাহলে বাংলাদেশ থেকে একটি বেলুনে চেপে উপরে উঠে যেতে হবে। ইতোমধ্যে পৃথিবী ঘুরতে ঘুরতে বেলুনের নিচে ইউরোপ এসে যাবে। এখন নেমে পড়লেই হল। খুব সহজ ভ্রমণ। বিমান আবিষ্কারের প্রয়োজনীয়তা অনেকটাই এভাবে মিটে যেত।
এই কৌশল বাস্তবে কাজ করে না। এর কারণ হল, আমরা যখন বেলুনে চেপে উপরে উঠব, তখনো আমরা পৃথিবীর মহাকর্ষ ক্ষেত্রের মধ্যেই থাকব। ঘুরতে থাকব পৃথিবীর সাথেই। এটা যদি না হত তাহলে আমাদের কষ্ট করে বেলুনে চড়ার দরকার ছিল না। মাটি থেকে এক লাফ দিয়ে উপরে উঠে ৩ সেকেন্ড পরে নামলেই দেখা যেত এক কিলোমিটারের বেশি পশ্চিমে চলে গেছি। বাস্তবে আমরা যখন আকাশ পথে ভ্রমণ করি, তখনো পৃথিবীর সাথে সাথে ঘুরতেই থাকি।
বিমান নিজেও পৃথিবীর সাথে সাথে ঘুরতে থাকে 
এ জন্যেই বিমান থেকে তাকালেও আমরা পৃথিবীকে স্থিরই দেখব।
মূল কারণ পৃথিবীর অভিকর্ষ এতটা শক্তিশালী যে আমরা এর থেকে অনেক উপরে উঠলেও এর অভিকর্ষীয় টানের সীমানার মধ্যেই থেকে যাই। আর এই টানের কারণেই কিন্তু পৃথিবীতে বায়ুমণ্ডল আছে। আমাদের মাথার উপরে যে বায়ুমণ্ডল সেটিও পৃথিবীর সাথে সাথে ঘুরছে। আরেকটি মজার ব্যাপার হল, একটু আগে বলেছি কেউ লাফ দিলে তিন সেকেন্ডে এক কিলোমিটারেরর বেশি পথ যেতে পারবেন। আসলে যাবেন ঠিকই। কিন্তু পৃথিবী যদি তাকে নিজের অভিকর্ষ দ্বারা ধরে না রাখত তবে পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘোরার কারণে কিছুক্ষণ পরই তিনি পৃথিবী থেকে আলাদা হয়ে যেতেন। পৃথিবী ছুটে চলে যেত কক্ষপথ ধরে। এছাড়াও পৃথবীর অভিকর্ষ যদি যথেষ্ট শক্তিশালী না হত, তবে আমরা কেন্দ্রবিমুখী বলের কারণে এর পৃষ্ঠ থেকে আলাদা হয়ে যেতাম।
আরও পড়ুনঃ
পৃথিবীর আবর্তনের কারণে আমরা পড়ে যাই না কেন?

আবার বেলুনের ঘটনায় ফিরে আসি। বেলুনকে কি এমন কোনো উচ্চতায় পাঠানো সম্ভব না, যেখানে এটি পৃথিবীর সাথে ঘুরবে না? নিচে এসে আমরা দেখব পায়ের তলার পৃথিবী ঠিকই ঘুরে গেছে?
হ্যাঁ, সম্ভব। সেক্ষেত্রে বেলুনকে অনেক বেশি বেগ দিয়ে পৃথিবীর মহাকর্ষীয় ক্ষেত্রের বাইরে নিয়ে যেতে হবে। বাস্তবতা হচ্ছে এটা বেলুন দিয়ে সম্ভব না। এই কাজ করা হয় রকেটের মাধ্যমে। এর জন্যে রকেটের প্রাথমিক বেগ হতে সেকন্ডে অন্তত ১১ দশমিক ২ কিলোমিটার। এই বেগকে বলা হয় মুক্তি বেগ।
আরও পড়ুনঃ 
মুক্তি বেগের পরিচয়

এখন কথা হল, পৃথিবীর উপরের সব জায়গা থেকেই কি পৃথিবীকে স্থির দেখায়? অবশ্যই না। শুধু পৃথিবীর মহাকর্ষ ক্ষেত্রের অভ্যন্তর থেকেই এমনটা দেখাবে। আমরা টেল্কিস্কোপ দিয়ে সূর্যসহ অন্যান্য গ্রহদের আবর্তন দেখি, কারণ আমরা এদের মহাকর্ষীয় ক্ষেত্রের এতটা ভেতরে নই যে এরা আমাদেরকেসহ ঘুরবে। একইভাবে আমরা যদি যথেষ্ট দূরে গিয়ে পৃথিবীর দিকে তাকাই তাহলে একেও ঘুরতে দেখব। আবর্তন ও প্রদক্ষিণ দুটোই দেখা যাবে।
দেখুন নিচের ভিডিও অনেক দূর থেকে সৌরজগৎসহ বিভিন্ন নক্ষত্রদের ঘূর্ণন দেখা যাচ্ছে। কারণ এই ছবি তোলা হয়েছে এদের অনেক দূর থেকে, এদের মহাকর্ষীয় ক্ষেত্রের ভেতর থেকে নয়।

এখন বাকি প্রশ্ন হল, মহকাশযান ফিরে আসার সময় এক জায়গায় অবতরণ করতে গিয়ে আরেক জায়গায় চলে যায় না কেন? এটাও এতক্ষণে মোটামুটি স্পষ্ট হবার কথা। মহাকাশযান ফিরে আসার বিভিন্ন কৌশলে প্রথমে পৃথিবীর মহাকর্ষীয় ক্ষেত্রের ভেতরে প্রবেশ করে। পরে স্বাভাবিকভাবে অবতরণ করে।
মহাকাশযানের ভেতরে আগে থেকেই প্রোগ্রাম করা থাকে এটি কখন, কীভাবে কোথায় অবতরণ করবে। ফলে পৃথিবীর আবর্তনের কারণেতো দূরের কথা, পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘুরলেও কোনো সমস্যা হয় না। 
Category: articles

জ্যোতির্বিজ্ঞান পরিভাষা: জেনে নিন কোন শব্দের কী মানে

এখানে সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যাসহ জ্যোতির্বিদ্যায় প্রয়োজনীয় পরিভাষাগুলোর তালিকা দেওয়া হলো। সাজানো হয়েছে অক্ষরের ক্রমানুসারে। এই তালিকা নিয়মিত আপডেট...