Advertisement

Tuesday, October 4, 2016

আজ ৪ অক্টোবর
১৯৫৯ সালের এই দিনে রাশিয়া (তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন) মহাশূন্যে পাঠায় স্পুটনিক ১ নামের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ। অনেক মহাকাশ ইতিহাসবিদের মতে প্রকৃতপক্ষে এই দিনেই সূচনা ঘটে মহাশূন্য যুগের।

 
জাদুঘরে রক্ষিত স্পুটনিক ১ এর একটি নকল

এটি পৃথিবীকে কেন্দ্র করে ঘুরছিল ঘণ্টায় ২৯ হাজার কিলোমিটার (১৮ হাজার মাইল) বেগে। অর্থ্যাৎ, পৃথিবীকে একবার ঘুরে আসতে সময় লাগত প্রায় ৯৬ মিনিট। এটি ২১ দিন পর্যন্ত সঙ্কেত পাঠানো অব্যাহত রাখে। শেষ পর্যন্ত ২৬ অক্টোবর তারিখে এর ব্যাটারির শক্তি ফুরিয়ে গেলে শেষ হয় সঙ্কেত পাঠানোর কাজ। ১৯৫৮ সালের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে এটি কক্ষপথ থেকে ছিটকে গিয়ে প্রবেশ করে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে। কক্ষপথে তিন মাস থাকার সময় এটি ৭ কোটি কিলোমিটার পথ চলাচল করেছিল।

ধাতুর প্রলেপ দেওয়া গোলকীয় যানটির ব্যাস ছিল ২৩ ইঞ্চি বা ৫৮ সেন্টিমিটার। ভর ছিল ৮৩.৬ কেজি। বেতার সঙ্কেত পাঠানোর জন্যে এতে ছিল চারটি রেডিও অ্যান্টেনা। এই সঙ্কেত পৃথিবী থেকে ধরা যেত। খালি চোখে একে দেখা যেতে পুরো পৃথিবী থেকে। একে প্রেরণের মাধ্যমে সোভিয়েত ইউনিয়নের সাথে আমেরিকার শুরু হয় স্পেস রেস বা মহাশূ্ন্য প্রতিযোগিতা। দুই দেশের ঠাণ্ডা যুদ্ধের অন্যতম অংশ জুড়ে ছিল এই রেসও।

তবে উপগ্রহটি যে শুধু ইতিহাসই সৃষ্টি করেছে তা কিন্তু নয়, এটি বিজ্ঞানীদেরকে অনেক গুরুত্বপুর্ণ তথ্যও সরবরাহ করে।  কক্ষপথে এর চলাচলের পথের প্রকৃতি থেকে উর্ধ্বস্থ বায়ুমণ্ডলের ঘনত্ব জানা সম্ভব হয়। পাওয়া যায় আয়নোস্ফিয়ার সম্পর্কেও তথ্য।

স্পুটনিকের জবাবে মার্কিনিরা পৃথিবীকে কিছু করে দেখাতে মরিয়া হয়ে ওঠে। সাফল্য পেতে খুব বেশি দেরি হয়নি। পরের বছরের জানুয়ারি মাসের শেষ দিন তারাও এক্সপ্লোরার ১ নামক তাদের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ নিক্ষেপ করে মহাশূন্যে।

তবে রুশরা তার আগেই- স্পুটনিক ১ এর ৩২ দিন পরেই স্পুটনিক ২ কেও পাঠিয়ে দেয় মহাশূন্যে। এবং এতে একটি ছিল প্রাণীও! এটিই ছিল লাইকা নামের সেই কুকুরটি।

সূত্রঃ
১। http://earthsky.org/space/this-date-in-science-launch-of-sputnik-october-4-1957
২। https://en.wikipedia.org/wiki/Sputnik_2
৩। https://en.wikipedia.org/wiki/Sputnik_1
৪। https://en.wikipedia.org/wiki/Explorer_1
৫। http://history.nasa.gov/sputnik/
Category: articles

Monday, September 5, 2016


জুনো মহাকাশযানের ক্যামেরায় ধরা পড়া বৃহস্পতি গ্রহের দক্ষিণ মেরুর ছবি 

২০০০ সালের দিকে ক্যাসিনি মিশনের সময় মহাকাশযান ক্যাসিনিও যেটা পারেনি, ২০১৬ সালের ২৭ শে আগস্টে এসে মহাকাশযান জুনো সেটাই করে দেখাল!

কারণ, বৃহস্পতি নামক গ্যাস দৈত্যখানার (gas giant) দক্ষিণ মেরু দেখিতে পারে নাই কেহ এযাবতকাল পর্যন্ত এতখানি চক্ষু মেলিয়া! (গুরু-চণ্ডালী দোষ মাফ করবেন, আবেগ ধরে রাখতে পারিনি)

অবশেষে মহাকাশযান জুনো এতদিনের এই অসাধ্য সাধন করে দেখাল এবং বৃহস্পতির দক্ষিণ মেরুর খুব পরিষ্কার একটি ছবি আমাদেরকে উপহার দিল।

এ সময় মহাকাশযান জুনো বৃহস্পতির মেরু অঞ্চল থেকে মাত্র ৫৮ হাজার ৭০০ মাইল উপরে ছিল।

এরই মাধ্যমে এই প্রথম বৃহস্পতির দক্ষিণ মেরু অঞ্চল সম্পর্কে এত স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া গেল! বৃহস্পতির বিষুবীয় অঞ্চলে যেমন পরিচিত "বেল্ট" বা "জোন" এর অস্তিত্ব পাওয়া যায়, মেরু অঞ্চলে ঠিক তেমনটা থাকে না। এখানে বরং বিভিন্ন আকারের ছোটখাটো ঝড়ের দাগ খুঁজে পাওয়া যায়। এই ঝড়গুলোর কোনটা ঘড়ির কাঁটার দিকে আবার কোনটা ঘড়ির কাঁটার বিপরীত দিকে ঘোরে! এগুলো দেখতে অনেকটা পৃথিবীর "হ্যারিকেন" এর মত হয়।

২০০০ সালে মহাকাশযান ক্যাসিনি শনি গ্রহে যাবার পথে বৃহস্পতির মেরু অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য অংশের ছবি তুলেছিলে। কিন্তু এতটা উপযুক্ত দৃষ্টিভঙ্গী থেকে সেটি করা যায়নি।

সূত্রঃ
১। http://www.nasa.gov/image-feature/jpl/pia21032/jupiter-down-under
Category: articles
আজ ৫ সেপ্টেম্বর। ১৯৭৭ সালের এই দিনে ভয়েজার ১ মহাকাশ যানকে সৌরজগতের বহিঃস্থ অঞ্চলের খোঁজখবর জানার জন্যে প্রেরণ করা হয়। এর যমজ যান ভয়েজার ২ এর ১৬ দিন পর ছাড়া হয় একে।

শিল্পীর তুলিতে ভয়েজার-১

১৯৬০ এর দশকে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা ‘মেরিনার প্রকল্প’ হাতে নেয়। এর উদ্দেশ্য ছিল বুধ, শুক্র এবং মঙ্গল গ্রহ পর্যবেক্ষণ করা। সেই উদ্দেশ্যে ১৯৬২ থেকে ১৯৭৩ পর্যন্ত ১০টি অভিযান (মেরিনার ১ থেকে মেরিনার ১০) পরিচালনা করে নাসা। শুরুতে ভয়েজার ১ ছিল 'মেরিনার ১১' নামে মেরিনার প্রকল্পের অধীনে। কিছুদিন পর বাজেট ঘাটতির কারণে এই প্রকল্পটির কার্যক্রম শুধুমাত্র "বৃহস্পতি-শনির ফ্লাইবাই" এ নামিয়ে আনা হয় এবং নতুন প্রকল্পের নাম দেয়া হয় "মেরিনার জুপিটার-স্যাটার্ন প্রোব"।

এ প্রকল্পের কাজ এগোতে থাকলে ইতোমধ্যে "পাইওনিয়ার ১০" থেকে পাওয়া তথ্য থেকে বিজ্ঞানীরা বৃহস্পতির প্রতিকূল আবহাওয়া সম্পর্কে অবহিত হন এবং এই প্রকল্পের নাম ও কাজের ধারা আবারও পরিবর্তন করেন। এবার প্রকল্পটির নতুন নাম দেয়া হয় "ভয়েজার ১"। এই নতুন ভয়েজার ১ এর প্রকল্পের ডিজাইন ও কলাকৌশল পূর্ববর্তী অন্য যেকোনো মেরিনার প্রক্লপের চেয়ে আরও বেশি উন্নত করে করা হয়।

১৯৭৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর তারিখে টাইটান থ্রিই (Titan IIIE) নামক রকেট ইঞ্জিন থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল থেকে উৎক্ষিপ্ত হয় ভয়েজার-১। ১৯৭৭ সালের ১০ ডিসেম্বর তারিখে এটি মঙ্গল ও বৃহস্পতি গ্রহের মাঝে অবস্থিত গ্রহাণু বেষ্টনিতে (asteroid belt) প্রবেশ করে। ১৯৭৭ সালের ১৯ ডিসেম্বরে এটি ওই অঞ্চলে থাকা দুই সপ্তাহ আগে উৎক্ষিপ্ত তার যমজ ভাই ভয়েজার ২ কে অতিক্রম করে।

১৯৭৯ সালের ৫ মার্চ এটি বৃহস্পতির এলাকায় পৌঁছে। এ সময় এটি বৃহস্পতির উপগ্রহ আয়োর বুকে সক্রিয় আগ্নেয়গিরির খোঁজ পায়। এবং এবারই প্রথম পৃথিবীর মানুষ প্রথমবারের মতো পৃথিবী ছাড়াও সৌরজগতের অন্য কোথাও সক্রিয় আগ্নেয়গিরির খোঁজ পেল।

বৃহস্পতির উপগ্রহ আয়োর বুকে সক্রিয় আগ্নেয়গিরির

১৯৭৯ সালের এপ্রিলে ভয়েজার-১ বৃহস্পতির এলাকা ছেড়ে শনির দিকে রওয়ানা দেয় এবং ১৯৮০ সালের ১২ নভেম্বর শনির সবচেয়ে কাছাকাছি যায়। এরপর ১৯৮০ সালের ডিসেম্বরেই ভয়েজার-১ শনির এলাকা ছেড়ে দূর আকাশের দিকে পা বাড়ায়।

১৯৯৮ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারী ভয়েজার-১ সূর্য থেকে ৬৯ এইউ দূরে থাকা "পাইওনিয়ার-১০" কে অতিক্রম করে মানুষের প্রেরিত সবচেয়ে দূরবর্তী বস্তুতে পরিণত হয়। এ সময় এর বেগ ছিল প্রতি সেকেন্ডে ১৭ কিলোমিটার!!!
* এক এইউ হল পৃথিবী থেকে সূর্যের গড় দূরত্ব।
আরো পড়ুনঃ 
» পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব কত? 
» জ্যোতির্বিদ্যায় দূরত্বের এককেরা 

২০০৪ সালের ১৭ই ফেব্রুয়ারী এটি টারমিনেশন শক এলাকা অতিক্রম করে এবং ২০১২ সালের জুনে হেলিওপজ এলাকায় প্রবেশ করে। ২০১২ সালের আগস্টে ভয়েজার-১ হেলিওপজ এলাকা পার হয়ে যায়। এ সময় এটি সূর্য থেকে প্রায় ১২১ এইউ দূরে ছিল এবং তখন এতে সূর্যের আলো পৌঁছতে সময় লাগত ১৬.৮৯ ঘন্টা!!!

২০১৩ সালের ১২ সেপ্টেম্বর নাসার বিজ্ঞানীরা ঘোষণা দেন যে ভয়েজার-১ আমাদের সৌরজগত ত্যাগ করতে সক্ষম হয়েছে এবং এটি আন্তঃনাক্ষত্রিক স্থানে প্রবেশ করেছে। ধারণা করা হয়, ২০২৫ থেকে '৩০ সালের মধ্যে এটি আমাদের কাছ থেকে চিরতরে হারিয়ে যাবে।

অনন্ত শূন্যতায় হারিয়ে গেলেও যদি কখনও এটি অন্য কোনো বুদ্ধিমান প্রাণীদের হাতে পড়ে সে আশায় এতে উৎক্ষেপণের সময়ই সংযুক্ত করা হয়েছিল "গোল্ডেন রেকর্ড" বা "সোনালী স্মৃতি" নামক একটি গ্রামোফোন রেকর্ড। এতে পৃথিবীর কিছু ছবি, প্রাকৃতিক কিছু শব্দ এবং প্রায় ৫৫ রকম ভাষায় "সম্বোধন" রেকর্ড করা আছে, যার মধ্যে রক্তে অর্জিত আমাদের বাংলা ভাষাও একটি। ভয়েজার-১ এর কল্যাণে আমাদের মাতৃভাষা এখন আমাদের থেকে ২০.৩ বিলিয়ল কিলোমিটার দূরে ছড়িয়ে এবং যাচ্ছে আরও অনন্তের পথে।

গোল্ডেন রেকর্ড নামক গ্রামোফোন রেকর্ড
ভয়েজার ১ এর বর্তমান অবস্থা।
ছবিটি বড়ো করে দেখতে ছবির উপর বা  এখানে ক্লিক করুন। 

সূত্রঃ
১। https://en.wikipedia.org/wiki/Voyager_1
২। http://voyager.jpl.nasa.gov/
৩। ভয়েজার যান দুটির দূরত্বের আপডেট জানতে এই লিঙ্কে চোখ রাখুন।  
Category: articles

Sunday, August 28, 2016

জুনো মহাকাশযান বৃহস্পতির ঘূর্ণায়মান মেঘের মাত্র ২৫০০ মাইলের এর মধ্যে পৌঁছে গেল। এর আগে অন্য কোনো মহাকাশযানই গ্রহটির এত কাছে যেতে পারেনি।
বৃহস্পতির উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া মহকাশযান 'জুনো'। 

নাসার বক্তব্য অনুসারে,
সবচেয়ে কাছে অবস্থানের সময় জুনো বৃহস্পতির ঘূর্ণায়মান মেঘের ২৫০০ মাইল (বা ৪২০০ কিমি.) উপরে ছিল। এ অবস্থায় এর বেগ ছিল গ্রহটির সাপেক্ষে ঘন্টায় ১৩০ হাজার মাইল। 

জুনোর সবগুলো যন্ত্রপাতি কার্যকর হবার পর গ্রহটির কাছ ঘেঁষে এটাই প্রথম ফ্লাইবাই। এই ফ্লাইবাইটি ছিল বৃহস্পতির উত্তর গোলার্ধের পাশ দিয়ে। যানটির গ্রহটিকে মোট ৩৬ বার ফ্লাইবাই করার কথা রয়েছে।বৃহস্পতির সম্পূর্ণ একটা ইমেজের জন্য প্রতিবার ফ্লাইবাই এর সময় এটি বৃহস্পতির আলাদা আলাদা এক একটি অঞ্চলের কাছ দিয়ে যাবে, যাত ওই সময় জুনো ওই এলাকার একটা পরিষ্কার ইমেজ তৈরি করতে পারে।

যানটির প্রথম ফ্লাইবাই এর সময় তোলা। এটি এখন পর্যন্ত বৃহস্পতির সবচেয়ে কাছ থেকে তোলা ছবি
যানটি জুলাই মাসের ৪ তারিখে বৃহস্পতির কক্ষপথে প্রবেশ করে।

আরো পড়ুনঃ 
☛ এক নজরে বৃহস্পতি

ভিডিওতে জুনো মহাকাশযানঃ

Category: articles

Friday, August 5, 2016

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন পৃথিবীকে কেন্দ্র করে ১ লক্ষ বার ঘুরে ফেলল। এর যাত্রা শুরু ১৯৯৮ সালের ২০ নভেম্বর। ১ লক্ষ বার প্রদক্ষিণের মাইলফলক অর্জিত হয় এ বছরের মে মাসের ১৬ তারিখে। এর মোট অতিক্রান্ত দূরত্ব হল ২.৬ বিলিয়ন মাইল বা ৪ বিলিয়ন কিমি.। এই চলাচল যদি সরল রেখায় হত তবে মোট অতিক্রান্ত দূরত্ব হত পৃথিবী থেকে নেপচুনের দূরত্বের সমান, অথবা পৃথিবী থেকে মঙ্গলের দূরত্বের দশ গুণ।
পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে চলছে আইএসএস
শুরু থেকেই এই স্টেশন পৃথিবীর অনেকগুলো দেশকে ঐক্যবদ্ধ করতে ভূমিকা রেখেছে। বিশেষ করে মহাকাশ গবেষণায় আমেরিকা ও রাশিয়ার এক হওয়া এর বড়ো অর্জন।
১৯৯৮ সালে রুশ মডিউল জারিয়া ও আমেরিকান মডিউল ইউনিটির সমন্বয়ে তৈরি হয় বর্তমান মহাকাশ স্টেশন
১৮ বছর পরে বর্তমানে এসে আইএসএস অনেকগুলো জাতির অংশগ্রহোণে নির্মিত সবচেয়ে জটিল স্থাপনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। মানুষের তৈরি সবচেয়ে ব্যয়বহুল স্থাপনাও এটি। আমেরিকা, রাশিয়া, ইউরোপ, জাপান ও কানাডার সমন্বিত অর্থায়নে তৈরি এই যান নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ১০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি অর্থ। 
মাইক্রোগ্র্যাভিটি অবস্থানে একমাত্র বাসযোগ্য যান এই মহাকাশ স্টেশন। এর অনন্য ল্যাবে কী পরিমাণ গবেষণা চালানোর সুযোগ হচ্ছে তা নিয়ে একটা বই লিখে ফেলা যাবে। স্টেশনটি নিজের বিদ্যুতের ব্যবস্থা নিজেই করে। উৎস হচ্ছে সূর্য। 

সময় সময় বিভিন্ন জায়গা থেকে খালি চোখেই মহাকাশ স্টেশনকে দেখা যায়। ঢাকা থেকে কীভাবে দেখা যাবে তা আমাদের সাইটে দেখানো আছে। ডান পাশের সাইডবারে দেখুন (মোবাইল থেকে হলে স্ক্রোল করে নিচে নেমে)
সোর্সঃ Earthsky

Category: articles

Wednesday, March 9, 2016

আজ মার্চের ৯ তারিখ। ১৯৩৪ সালের এই দিনে জন্মগ্রহণ করেন প্রথম মহাকাশচারী ইউরি গ্যাগারিন। এখন বেঁচে থাকলে তাঁর বয়স হত ৮২। অবশ্য তিনি মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই ১৯৬৮ সালে পরলোক গমন করেন যান। ১৯৬১ সালের এপ্রিলের ১২ তারিখে তিনি প্রথম নভোচারী হিসেবে মহাকাশ ভ্রমণের রেকর্ড গড়েন। রাশিয়ার ভোস্টক ১ যানে করে তিনি ৮৯.১ মিনিট ধরে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করেন। তিনি সম্পূর্ণ পৃথিবী একবার ঘুরে আসেন এবং সর্বোচ্চ ২০০ মাইল (৩২৭ কিলোমিটার) পর্যন্ত উপরে উঠেন। ভ্রমণ শুরু থেকে অবতরণ পর্যন্ত সম্পূর্ণ অভিযান শেষ হতে সময় লাগে ১০৮ মিনিট।
প্রথম নভোচারী ইউরি গ্যাগারিন

মস্কো শহরের পশ্চিমে একটি খামারে তাঁর জন্ম। বাবা ছিলেন একইসাথে রাজমিস্রি, কাঠমিস্রি ও কৃষক। মা ছিলেন গোয়ালিনী। বাবা-মায়ের চার সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। ২য় বিশ্ব যুদ্ধের সময় তাঁর পরিবার নাৎসি বাহিনীর হাতে নিপীড়নের শিকার হয়। তাঁর দুই বোনকে নির্বাসন দিয়ে পোল্যান্ড পাঠানো হয়। যুদ্ধের পরে অবশ্য তারা পরিবারের সাথে মিলিত হন। গ্যাগারিন পড়াশোনা চালিয়ে যান।
কিশোর বয়সেই গ্যাগারিন বৈমানিক হতে উৎসুক ছিলেন। একবার রাশিয়ার একটি ইওক ফাইটার প্লেন বাধ্য হয়ে গ্যাগারিনের বাড়ির কাছে অবতরণ করে। বিমানের বৈমানিকরা মানুষের কাছে যে পরিমাণ শ্রদ্ধা পেয়েছিলেন তা তরুণ গ্যাগারিনের উপর গভীর ছাপ ফেলে। তিনিও তাদের মত হবার স্বপ্ন দেখতে থাকলেন।
১৬ বছর বয়সে তিনি ঢালাইয়ের কাজ শেখা শুরু করেন। পাশাপাশি পড়তে থাকেন সান্ধ্য স্কুলে। ১ বছর পর, ১৯৫১ সালে তিনি ভোকেশনাল ও স্কুলের সেভেন্থ গ্রেড- দুটোই পাস করেন। এরপর ডাক আসে সারাতোভ ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনিক্যাল স্কুল থেকে। এখানে থাকা অবস্থায়ই তিনি প্রতি সপ্তাহের ছুটির দিনগুলোতে স্থানীয় ফ্লায়িং ক্লাবে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করতেন। এখানেই তিনি প্রথমে বাইপ্লেন ও পরে ইয়ক-১৮ ট্রেইনার প্লেন চালানো শিখে ফেলেন।
১৯৫৫ সালে তিনি সর্বপ্রথম নিজে নিজে বিমান চালান। একই বছর তিনি স্কুল থেকে পাস করে সোভিয়েট আর্মিতে যোগ দেন। পরে চলে আসেন বিমান বাহিনীতে। ভর্তি হন ওরেনবার্গ স্কুল অব এভিয়েশনে।
১৯৫৭ সালে তিনি এই স্কুল থেকে পাস করে স্কুলের মেডিকেল গ্র্যাজুয়েট ভেলেন্টিনা ইভানোভা গরভাচেভার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। পরবর্তীতে এ দম্পতি ইয়েলিনা ও গ্যালিনা নামে দুটি কন্যা সন্তান জন্ম দেয়।
১৯৫৯ সালে রাশিয়া লুনা ৩ যানের সাহাযে প্রথমবারের মত চাঁদের উল্টো পাশের ছবি তুলতে সক্ষম হয়। গ্যাগারিন অনুভব করলেন, মানুষের মহাশুন্য ভ্রমণেরও আর বেশি দেরি নেই। ১৯৬০ সালে অনেক যাচাই-বাছাইয়ের পর নভোচারী হিসেবে প্রশিক্ষের জন্যে নির্বাচিত অল্প কিছু ব্যক্তির মধ্যে তিনিও স্থান করে নেন। এখানে শারীরিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি দেওয়া হল মন-মানসিকতার প্রশিক্ষণও। গ্যাগারিন তাঁর রসিক মনোভাব, অধ্যবসায় ও নম্রতা দিয়ে বিশেষ নজর কাড়লেন।
১৯৬১ সালের ১২ এপ্রিল। রাশিয়ার বাইকোনুর কসমোড্রোম থেকে মহাশূন্যে যাত্রা করল ভোস্টক ১ মহাকাশযান। যানের একমাত্র যাত্রী আর কেউ নন, ইতিহাসের প্রথম নভোচারী ইউরি গ্যাগারিন।
রুশ ভাষায় ভোস্টক শব্দের অর্থ পূর্ব। পূর্বের তাৎপর্য সূর্যোদয়। অর্থ্যাৎ, মহাকাশ অভিযানের সূর্যোদয় ঘটল।
জাদুঘরে রক্ষিত ভোস্টক ১ মহাকাশযানের ক্যাপসুল

ফিরে এসে তিনি রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গেলেন সারা বিশ্বে। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের সর্বোচ্চ খেতাব হিরো অব দা সোভিয়েত ইউনিয়ন পুরস্কারও পেলেন। স্বপ্ন সত্যি হল। বিশ্বজুড়ে সফর করলেন। তবে, তাঁর খ্যাতি যেভাবে নিজের কল্যাণে কাজে লাগাতে পারতেন তা তিনি করেননি।
১৯৬২ সালে তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্যতম ডেপুটি হলেন। ইয়ং কমিউনিস্ট লিগের কেন্দ্রীয় পর্যায়ে পদ দেওয়া হল। কিন্তু এটা তার খুশির কারণ হতে পারল না। তাঁর মনে হলে একবার মাত্র মহাকাশ সফরের জন্যে তিনি ট্রেনিং করেননি। কিন্তু জানা যায় অন্যরা সোভিয়েত হিরো হবার সুযোগ হারাবার ভয়ে তাঁকে থামানোর চেষ্টা করত।
১৯৬৩ সালে মস্কোর বাইরে গড়ে ওঠা কসমোনট ট্রেনিং সেন্টারের ডেপুটি ট্রেনিং ডিরেকটর মনোনীত হন। পরে এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি তাঁর নামে নামকরণ করা হয়।
১৯৬৮ সালের ২৭ মার্চ তারিখে একজন সহকর্মীসহ (ভ্লাদিমির সেরিয়োগিন) বিমান দুর্ঘটনার কবলে পড়ে তিনি ইহকাল ত্যাগ করেন।

সূত্রঃ
[১] Earthsky
[২] উইকিপিডিয়াঃ Yuri Gagarin
Category: articles