Advertisement

Sunday, November 1, 2015

নক্ষত্রের পরিচয়

নিজস্ব অভিকর্ষের বন্ধনে আবদ্ধ আলোকোজ্জ্বল গোলাকার প্লাজমাকে নক্ষত্র বলা হয়। উল্লেখ্য, কঠিন, তরল ও গ্যাসীয় পদার্থের বাইরে পদার্থের আরেকটি অবস্থা হচ্ছে এই প্লাজমা। নক্ষত্রকে বাংলায় তারকা বা তারাও বলা হয়। তবে, আমরা রাতের আকাশে চাঁদ ছাড়া যা কিছু তাদের দেখি সবাইকেও আবার অনেক সময় তারা বলে সম্বোধন করি। যদিও রাতের আকাশে তারা পাশাপাশি সৌরজগতের গ্রহদের মধ্যে খালি চোখে দৃশ্যমান পাঁচটি গ্রহসহ অন্যান্য বস্তুও থাকতে পারে। পৃথিবীর নিকটতম এবং দিনের আকাশের একমাত্র নক্ষত্র সূর্য। অন্যান্য নক্ষত্ররা অনেক দূরে থাকায় দিনে সূর্যের আলোর সাথে টেক্কা দিতে না পেরে রাতের আকাশে হাজির হয়।
নক্ষত্রের জন্ম নেবুলা তথা গ্যাসীয় মেঘ ও ধূলিকণা থেকে। নেবুলার এই সকল উপাদান নিজস্ব উপাদানের চাপে সঙ্কুচিত হয়ে তৈরি করে প্রোটো স্টার বা ভ্রুণ তারা। ধীরে ধীরে এর তাপমাত্রা বাড়তে থাকে। তাপমাত্রা এক কোটি কেলভিনে পৌঁছলে এতে শুরু হয় নিউক্লিয় ফিউশান বিক্রিয়া। এ প্রক্রিয়া চলতে থাকে নক্ষত্রে হাইড্রোজেন শেষ হবার আগ পর্যন্ত। এর পরবর্তীতে এটি জায়ান্ট বা সুপারজায়ান্ট ধাপে প্রবেশ করে। পরিশেষে শ্বেত বামন, নিউট্রন স্টার বা ব্ল্যাক হোলে পরিণত হবার মধ্য দিয়ে এর জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে।
ছবিটি বড় করে দেখতে এখানে ক্লিক করুন। 
অনেকগুলো তারকা মিলিতভাবে কোন নক্ষত্রস্তবক বা গ্যালাক্সি তৈরি করতে পারে। সাধারণত, একেকটি গ্যালাক্সিতে কয়েক হাজার থেকে শুরু করে লক্ষ কোটি পর্যন্ত তারকা থাকতে পারে। রাতের আকাশের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র লুব্ধক। অন্য দিকে পৃথিবীর নিকটতম নক্ষত্র প্রক্সিমা সেন্টোরি। এর দূরত্ব পৃথিবী থেকে ৪.২৪ আলোকবর্ষ দূরে।
সূত্রঃ
১। ইংরেজি উকিপিডিয়াঃ প্লাজমা
২। ইংরেজি উকিপিডিয়াঃ প্রক্সিমা সেন্টোরি
৩। ব্যাপন ম্যাগাজিনঃ ব্ল্যাক হোলের জন্মগ্রহণ
৪। স্কাই অ্যান্ড টেলিস্কোপঃ তারকা কাকে বলে? 


Advertisement 02

Abdullah Al Mahmud

লেখকের পরিচয়

আব্দুল্যাহ আদিল মাহমুদ। প্রভাষক, পরিসংখ্যান বিভাগ, পাবনা ক্যাডেট কলেজ। এর আগে রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন EAL-এ। পড়াশোনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগে। সম্পাদনা করছেন Stat Mania বিশ্ব ডট কম। পাশাপাশি লিখছেন বিজ্ঞানচিন্তা, ব্যাপন পাই জিরো টু ইনফিনিটিসহ বিভিন্ন ম্যাগাজিনে। অসীম সমীকরণ মহাবিশ্বের সীমানা নামে দুটি বই লেখার পাশাপাশি অনুবাদ করেছেন অ্যা ব্রিফার হিস্ট্রি অব টাইম । লেখকের এই সাইটের সব লেখা এখানে ফেসবুক | পারসোনাল ওয়েবসাইট