Advertisement

সোমবার, ২৭ মে, ২০২৪

পৃথিবী সূর্যের চারদিকে উপবৃত্তাকার কক্ষপথে ঘুরছে। ঋতুর পরিবর্তনের জন্য সূর্য দায়ী তা ঠিক। তবে ভূমিকা আছে পৃথিবীর নিজেরও। পৃথিবী সূর্যের দিকে বিশেষভাবে হেলে আছে বলেই ঘটছে এ পরিবর্তন। এর মূল কারণ, পৃথিবীর ঘূর্ণন অক্ষ কক্ষীয় তলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে। 


পৃথিবীর বিষুবরেখা কক্ষীয় তলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে

বছরের দুটি দিন সূর্য বিষুবরেখা বরাবর খাড়াভাবে আলো দেয়। ২০শে মার্চ ও ২২শে সেপ্টেম্বর। বছরভেদে তারিখ এক-দুই দিন এদিক-সেদিক হতে পারে। এসময় দুই গোলার্ধই সূর্যের আলো সমানভাবে পায়। পৃথিবীর সব জায়গায় দিন-রাত (প্রায়) সমান হয়। 

মহাবিষুবের দিন পৃথিবীর সব জায়গায় দিন-রাত (প্রায়) সমান হয়।

২০শে মার্চের পর পৃথিবীর উত্তর মেরু ক্রমেই সূর্যের দিকে হেলতে থাকে। এভাবে যেতে যেতে ২০শে জুনের দিকে সূর্য কর্কটক্রান্তি রেখার (Tropic of Cancer) ওপর খাড়াভাবে আলো দেয়। কল্পিত এ রেখা ভূপৃষ্ঠের ২৩.৫ উত্তর অক্ষাংশে অবস্থিত। এটাই সূর্যের পৃথিবীর সর্বউত্তরের অবস্থান। বিশেষ নাম তাই উত্তরায়ণ (northern solstice)। ঐ দিন উত্তর গোলার্ধে সবচেয়ে বড় দিন ও সবচেয়ে ছোট রাত হয়। ২০শে জুনের আগে-পরে মিলিয়ে প্রায় তিন মাস উত্তর গোলার্ধে গ্রীষ্মকাল থাকে। একইসময়ে দক্ষিণ গোলার্ধে থাকে শীত। দক্ষিণ গোলার্ধে আলো বাঁকাভাবে পড়ায় তীব্রতা কম থাকে। 


২০শে জুনের দিকে সূর্য কর্কটক্রান্তি রেখার (Tropic of Cancer) ওপর খাড়াভাবে আলো দেয়।


২০শে জুন সূর্যের উত্তরায়ণের শেষ দিন। এবার আবার উত্তর মেরুর সূর্যের দিকে হেলে থাকার পরিমাণ কমতে থাকে। গরম কমতে শুরু করে। (প্রায়) ২২শে সেপ্টেম্বর সূর্য আবার বিষুবরেখায় খাড়াভাবে আলো ফেলে। দুই মহাবিষুবের একটি এটি। উত্তর গোলার্ধে এর নাম শারদ বিষুব (autumnal equinox)। দক্ষিণ গোলার্ধে নাম বাসন্ত বিষুব (vernal equinox)। এদিনের আগে-পরে উত্তর গোলার্ধে শরৎ ও দক্ষিণ গোলার্ধে বসন্তকাল। 


পৃথিবীর ঋতুচক্র ও তার কারণ

এবার সূর্যের দিকে হেলতে শুরু করে পৃথিবীর দক্ষিণ মেরু। দক্ষিণ গোলার্ধে দিন বড় হতে থাকে। রাত ছোট হতে থাকে। গরমের আগমন শুরু হয়। উত্তরে রাত ছোট হতে থাকে। এভাবে চলতে চলতে ২২শে ডিসেম্বর সূর্য দক্ষিণের মকরক্রান্তি রেখার (Tropic of Capricorn) ওপর খাড়াভাবে আলো দেয়। কল্পিত এ রেখা ভূপৃষ্ঠের ২৩.৫ দক্ষিণ অক্ষাংশে অবস্থিত। এ তারিখের দেড় মাস আগে থেকেই উত্তরে শীত ও দক্ষিণে গরম পড়তে থাকে। এদিন উত্তর গোলার্ধে সবচেয়ে ছোট দিন ও সবচেয়ে বড় রাত। দক্ষিণ গোলার্ধে তার উল্টো। 


দক্ষিণ মেরুর হেলে থাকা এবার আবার কমতে থাকে। ২০শে মার্চ এসে সূর্য আবার বিষুবরেখায় খাড়া আলো দেয়। আরেকটি মহাবিষুব (equinox)।  দক্ষিণ গোলার্ধে এর নাম শারদ বিষুব (autumnal equinox)। উত্তর গোলার্ধে নাম বাসন্ত বিষুব (vernal equinox)।  এদিনও পুরো পৃথিবীতে দিন-রাত (প্রায়) সমান হয়। এরপর আবার পৃথিবীর উত্তর মেরু সূর্যমুখী হতে থাকে। আগেই তা বলা হয়েছে। মহাবিষুবের দিন আসলে পুরো পৃথিবীতে দিন-রাত সমান হয় না। তবে দিন-রাতের দৈর্ঘ্য খুব কাছাকাছি হয়। 


পুরো ব্যাপারটি বুঝতে ভিডিওটি সহায়ক হতে পারে। 




মজার ব্যাপার হলো, পৃথিবীর গরম বা ঠান্ডা নির্ভর করে পৃথিবীর নতির ওপরই। দূরত্বের ওপর নয়। সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর কক্ষপথ উপবৃত্তকার। ফলে কখনও সূর্য কাছে আসে, কখনও বা দূরে যায়। তার সাথে পৃথিবীর তাপমাত্রার সম্পর্ক নেই বললেই চলে। জানুয়ারি মাসে পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে। অথচ এ সময়ই উত্তর গোলার্ধে সবচেয়ে শীত থাকে। 


পৃথিবীর তাপমাত্রা সূর্যের দূরত্বের ওপর নির্ভর করে না বললেই চলে। 

আরও পড়ুন


সূর্যের কাছে গেলে কি পৃথিবীর তাপমাত্রা বেশি হয়?


পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব কত?


সূত্র

১। টাইম অ্যান্ড ডেইট ডট কম: https://www.timeanddate.com/astronomy/seasons-causes.html

Category: articles

পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘোরে উপবৃত্তাকার পথে। জানুয়ারি মাসে পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে আসে। পৃথিবীর কক্ষপথের এ অবস্থানের নামে অনুসূর (perihelion)। এসময় পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব হয় ১৪.৭ কোটি  কিলোমিটার৷ জুলাই মাসে দূরত্ব থাকে ১৫.২ কোটি কিলোমিটার। এ জায়গার নাম অপসূর (aphelion)। 


পৃথিবীর কক্ষপথে অনুসূর ও অপসূর


আরও পড়ুন 


সূর্যের নিকটতম অবস্থানে পৃথিবী


অনুসূর অবস্থানে সূর্য তুলনামূলক কাছে আসায় সূর্যের আলোও স্বাভাবিকভাবেই পৃথিবীতে বেশি পড়ে। অপসূর অবস্থানের তুলনায় এ সময় পৃথিবী ৭ ভাগ আলো বেশি পায়। কিন্তু আবার জানুয়ারি মাসে উত্তর গোলার্ধের বেশিরভাগ জায়গায় সবচেয়ে ঠান্ডা থাকে। কারণ আবহাওয়া প্রধানত নির্ভর করে পৃথিবীর কক্ষপথের সাথে বিষুবরেখার নতির ওপর। পৃথিবীর বিষুব বা নিরক্ষরেখা কক্ষীয় তলের সাথে সাড়ে ২৩ ডিগ্রি হেলে আছে। 


নিরক্ষরেখা কক্ষীয় তলের সাথে সাড়ে ২৩ ডিগ্রি হেলে আছে

এখানেই একটা মজার ব্যাপার আছে। সূর্য অনুসূরে থাকার সময় পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা অপসূরে থাকার সময়ের তাপমাত্রার চেয়ে ২.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস কম। অথচ এসময় সূর্যের বেশি কাছে থাকে পৃথিবী। 


এর কারণ, মহাদেশ ও মহাসাগরগুলো পৃথিবীজুড়ে সমানভাবে বিন্যস্ত নয়। উত্তর গোলার্ধে ভূমির পরিমাণ বেশি। দক্ষিণে আবার মহাসাগর বেশি। জুন-জুলাই মাসে পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধ সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে। আর এতে করে উত্তর গোলার্ধের ভূমি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। মাটি ও বালুর তাপধারণ ক্ষমতা কম। মরুভূমির কথা ভাবুন। দিনের সূর্যে বালু দ্রুত উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। তাপমাত্রা হয়ে যায় প্রায় ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাতের বেলা সে তাপ হারিয়ে যায়। মরুভূমি হয়ে যায় শীতল। তাপমাত্রা নেমে হয়ে যায় দিনের অর্ধেকেরও কম (সেলসিয়াস স্কেলে)। 


পৃথিবীর ঋতুচক্র

অন্যদিকে পানির তাপধারণ ক্ষমতা বেশি। সূর্য ডোবার আগে-পরে তাপমাত্রার পার্থক্য খুব বেশি হয় না। কয়েক ডিগ্রি এদিক-সেদিক। 


এ কারণেই জুলাই মাসে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা সবচেয়ে বেশি থাকে। আর জানুয়ারি সবচেয়ে শীতল মাস। সেসময় পৃথিবীর জলীয় অংশ সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে। আমরা বেশি তাপ পাই। তবে সে বাড়তি তাপ সমুদ্রের পানিতে বিক্ষিপ্ত হয়ে যায়। এ কারণেই দক্ষিণ গোলার্ধের গরমকাল উত্তরে চেয়ে কম উষ্ণ হয়। অথচ দক্ষিণ গোলার্ধের গরমের সময় পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে (জানুয়ারি)। 


আরেকটা মজার ব্যাপার আছে। কেপলারের গ্রহের দ্বিতীয় সূত্র অনুসারে, অপসূর অবস্থানের চেয়ে অনুসূর অবস্থান দিয়ে চলার পৃথিবী কক্ষপথে দ্রুত চলে। এ কারণে উত্তর গোলার্ধের গ্রীষ্মকাল দক্ষিণের চেয়ে ২-৩ দিন লম্বা হয়। ফলে উত্তরের মহাদেশীয় অঞ্চল গরম হওয়ার জন্য একটু বেশি সময় পায়। 


সূত্র

স্পেস ওয়েদার

টাইম এন্ড ডেট ডট কম

Category: articles

শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪

সম্প্রতি নওতাপ নিয়ে একটি গুজব সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। কিছু পত্রিকাও (যেমন দৈনিক ভোরের বার্তা) ফলাও করে তা প্রচার করেছে। নাসার নাম ব্যবহার করায় ব্যাপারটা অনেক মানুষ সহজেই বিশ্বাসও করে ফেলেছেন। 


অল্প কিছু কথার মধ্যে অনেকগুলো ভুল তথ্য দেওয়া হয়েছে। 


প্রথমেই বলা হয়েছে, সূর্য রোহিণী নক্ষত্রে প্রবেশ করবে। কথাটা পুরোপুরি ভুল। একইসাথে বিভ্রান্তিকর। সূর্য নিজেও একটি নক্ষত্র। সাধারণত এক নক্ষত্র অন্য নক্ষত্রের কাছে-ধারেও যায় না। খুব দুর্লভ কিছু ক্ষেত্রে নক্ষত্ররা একে অপরের সাথে সংঘর্ষ করে বা মিশে যায়। সাধারণত একই নক্ষত্রপুঞ্জের (Star cluster) নক্ষত্ররা কখনো কখনো একীভূত হতে পারে। নক্ষত্রপুঞ্জে কয়েক হাজার থেকে কয়েক কোটি নক্ষত্র মহাকর্ষীয় বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে গুচ্ছ আকারে থাকে। 


রোহিণী নক্ষত্র (Aldebaran)

আবার নক্ষত্রের জীবনের শেষ ভাগে জ্বালানি ফুরিয়ে গেলে নক্ষত্রের বাইরের অংশ বড় হয়ে যায়। সেক্ষেত্রেও অন্য নক্ষত্র সে স্ফীত অংশে ঢুকে যেতে (প্রবেশ করতে) পারে। 


 নক্ষত্রের জীবনচক্র 


তবে সূর্যের ক্ষেত্রে কোনোটাই সম্ভব না। সূর্য কোনো নক্ষত্রপুঞ্জের অংশ নয়। আশেপাশে সূর্যকে গিলে খাওয়ার মতোও কেউ নেই। তথাকথিত রোহিণী নক্ষত্র সূর্য থেকে ৬৫ আলোকবর্ষ দূরে৷ এটা বৃষমণ্ডলের (Taurus) নক্ষত্র। ইংরেজি নাম Aldebaran। রাতের আকাশের চতুর্দশ উজ্জ্বল নক্ষত্র এটি। উপযুক্ত সময়ে (জানুয়ারি মাস ও তার আগে-পরে) সহজেই খালি চোখে দেখা যায়। 


 আলোকবর্ষ কত বড়?



 উজ্জ্বল তারাদের গল্প


এটা ঠিক বর্তমানে সূর্য বৃষমণ্ডলে অবস্থান করছে। তার মানে এই নয় সূর্য রোহিণীর কাছে চলে গেছে। কথাটা একটু ব্যাখ্যা করতে হয়। আসলে ব্যাপারটা খুব সরল। পৃথিবীকে ঘিরে থাকা পুরো আকাশকে পৃথিবী থেকে দেখতে ৩৬০ ডিগ্রি গম্বুজের মতো লাগে। বাস্তবে তা না হলেও আকাশ পর্যবেক্ষণের সুবিদার্থে উপমাটা কাজে লাগে। পুরো আকাশকে ৮৮টা এলাকায় ভাগ করা আছে। এগুলোকে বলে একেকটি তারামণ্ডল (constellation)। নক্ষত্র, ছায়াপথ, কৃত্রিম উপগ্রহ বা দূর আকাশের বিভিন্ন বস্তুর অবস্থান নির্দেশ করতে তারামণ্ডল ভাল ভূমিকা পালন করে। এই মুহূর্তে (২৫ মে) সূর্য গম্বুজের যেখানটায় আছে (বলে মনে হয়), সেটার নাম বৃষমণ্ডল। জ্যোতিষবিদরা বলবেন বৃষরাশি। আগেই বলেছি, রোহিণী এ মণ্ডলেরই তারা। 


আরও পড়ুন


তারামণ্ডলের পরিচয়


আবার মনে করিয়ে দেই, মণ্ডল একই হলেই মণ্ডলের বস্তুরা কাছাকাছি থাকে না। পৃথিবী থেকে আকাশের একই দিকে তাকালে দেখা গেলে একই মণ্ডলে থাকতে পারে। বাস্তবে কোনোটা সামনে আর কোনোটা অনেক পেছনে থাকতে পারে। অনেকসময় আমরা আকাশের চাঁদকে অন্য তারার পাশে দেখি। এটা আসলে পৃথিবীর আকাশে তাদের আপাত অবস্থান। একইদিকে অবস্থিত হওয়ায় পাশাপাশি দেখা যায়। বাস্তবে সূর্যের সবচেয়ে কাছের নক্ষত্র প্রক্সিমা সেন্টোরিও (Proxima Centauri) ৪ আলোকবর্ষের বেশি দূরে। মানে সেখান থেকে পৃথিবীতে আলো আসতে ৪ বছরের বেশি সময় লাগবে। অথচ চাঁদ থেকে আসতে সময় লাগে মাত্র ১.৩ সেকেন্ড। 


পুরো বছরে সূর্য এমন ১৩টা অঞ্চল বা তারামণ্ডল ঘুরে আসে। মানে, পৃথিবী থেকে দেখতে সূর্যকে আকাশের এসব অঞ্চল দিয়ে চলতে দেখা যায়। সূর্যের চলাচলের আপাত এ পথকে বলে সূর্যপথ (ecliptic)। তেরটি অঞ্চলের সমন্বিত নাম রাশিচক্র (zodiac)। প্রচলিত জ্যোতিষবিদ্যার (astrology) রাশিচক্রে ১২টি দেওয়া আছে। তাও তারিখগুলো আধুনিক জ্যোতির্বিদ্যার (astronomy) হিসাবের সাথে মেলে না। জ্যোতিষবিদ্যার প্রাচীন হিসাব বলে, সূর্য বৃষরাশিতে থাকে ২০ এপ্রিল থেকে ২০ মে। আধুনিক বৈজ্ঞানিক হিসাবে সময়কালটা হলো ১৩ মে থেকে ২১ জুন। 


স্টেলারিয়াম সফটওয়্যার দিয়ে মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে আপনি নিজেই সূর্যের গতিবিধি দেখতে পারবেন। 


আরও পড়ুন


 সূর্য কখন কোথায় থাকে?



রাশিচক্রের পরিচয় 


১৩ মে থেকে ২১ জুন সূর্য বৃষমণ্ডল পাড়ি দেওয়ার সময় পৃথিবী থেকে দেখতে রোহিণী নক্ষত্রের কাছ দিয়ে পার হবে। আগেই বলেছি, এ অবস্থান নিছক পৃথিবীর আকাশে সূর্য ও রোহিণীর আপাত অবস্থান। বাস্তবে কিন্তু রোহিণীর দূরত্ব সূর্য থেকে ৬৫ আলোকবর্ষই। 


বলা হয়েছে সূর্য ও পৃথিবীর উত্তাপের জন্য রোহিণী নক্ষত্র দায়ী। অথচ সূর্য ছাড়া অন্য নক্ষত্র পৃথিবীর উত্তাপে ভূমিকা রাখে না। হ্যাঁ, রাখে। তার পরিমাণ কতটুকু জানেন? ১০ কোটি-কোটি-কোটি ভাগের ($১০^{২২}$) এক ভাগ। আরও মজার ব্যাপার হলো রোহিণীর পৃষ্ঠের তাপমাত্রা সূর্যের চেয়েও কম। সূর্যের পৃষ্ঠ তাপমাত্রা ৫,৪০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সূর্যের চেয়ে বয়স্ক লোহিত দানব ধরনের তারা রোহিণীর তাপমাত্রা ৩,৬০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। (সূর্যের বয়স ৪৬০ কোটি বছর আর রোহিণীর ৬৬০ কোটি।)


 সূর্যের তাপমাত্রা কত?



 সূর্যের বয়স কত? 


পৃথিবীর গরম বা ঠান্ডার সাথে সূর্যের নিজস্ব অবস্থানের কোনো সম্পর্ক নেই। এটা নির্ভর করে  পৃথিবী সূর্যের সাথে কীভাবে হেলে আছে তার ওপর। পৃথিবীর ঘূর্ণন অক্ষ কক্ষীয় তলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে। ফলে কখনো উত্তর ও কখনো দক্ষিণ গোলার্ধ সূর্যের দিকে হেলে থাকে। ইদানিং ২০ জুনে হয় উত্তরায়ন (northern solstice)। এ সময় সূর্য পৃথিবীর সর্বউত্তরে আসে। ২৩.৫ ডিগ্রি অক্ষাংশে খাড়াভাবে আলো দেয়। এসময় ও তার আগে-পরে উত্তর গোলার্ধে তীব্র গরম আর দক্ষিণে শীত থাকে। আবার ২১ ডিসেম্বর সূর্য চলে যায় সর্বদক্ষিণে। তখন উত্তরে শীত আর দক্ষিণে গরম চলে। কারণ উত্তর গোলার্ধে তখন সূর্যের আলো পড়ে বাঁকাভাবে। খাড়াভাবে পড়লে তাপের তীব্রতা বেশি থাকে। বেঁকে আসায় তা কমে যায়। 





এখান থেকেই যাই পরের ভুল কথায়। ধারণা দেওয়া হয়েছে, পুরো পৃথিবী উত্তপ্ত হয়ে ওঠবে রোহিণীর কারণে। অথচ পুরো পৃথিবীতে কখনোই একইসাথে গরম ও ঠান্ডা থাকে না। বৃষ্টি বা আবহাওয়াহগত অন্য কারণ না থাকলে দুই গোলার্ধে তাপমাত্রা থাকবে বিপরীতধর্মী। 


তবে একটা ভাল পরামর্শও দেওয়া হয়েছে। গরমে অবশ্যই সাবধান থাকতে হবে। 


উল্লেখ্য, নাসা এমন কোনো কথা বলেনি।  কেউ দাবি করে থাকলে সূত্র দিতে বলুন।


Category: articles

শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২৩

আজ ৮ ডিসেম্বর। ১৯৯২ সালের এই দিন গ্যালিলিও মহাকাশযান দ্বিতীয়বারের মতো পৃথিবীর পাশ দিয়ে উড়ে যায়। 


বৃহস্পতি গ্রহের উপগ্রহ আয়োর পাশ দিয়ে উড়ে যাচ্ছে গ্যালিলিও যান

কোনো মহাকাশযান  উড়তে উড়তে কোনো বস্তুর পাশ দয়ে উড়ে যাওয়ার নাম ফ্লাইবাই। ফ্লাইবাই অন্তত দুটি কারণে হতে পারে। এক, বস্তুটিকে কাছ থেকে দেখা। দুই, শক্তি অর্জন করে গতি বৃদ্ধি ও দিক পরিবর্তন। মহাকাশযানদের ক্ষেত্রে এই দ্বিতীয় কাজটি খুব কমন ব্যাপার। উড়তে উড়তে মহাকাশযান সাময়িক সময়ের জন্য কোনো বস্তুর (সাধারণত গ্রহ) মহাকর্ষক্ষেত্রে প্রবেশ করে। বস্তুটি থেকে কিছু শক্তি সংগ্রহ করে বাড়িয়ে নেয় নিজের গতি। প্রয়োজন অনুসারে পাল্টে নেয় দিক। এগুলো আগেই প্রোগ্রাম করা থাকে। 


গ্যালিলিও যানটি নাসার পাঠানো। উদ্দেশ্য ছিল বৃহস্পতি ও এর উপগ্রহদের এবং গ্রহাণু গ্যাসপ্রা ও আইডা সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা। ১৯৮৯ সালের ১৮ অক্টোবর এটি মহাকাশের উদ্দেশ্যে ছুটে যায়। বৃহস্পতিতে পৌঁছে ১৯৯৫ সালের ডিসেম্বর মাসে। এর আগেই এটি শুক্র ও পৃথিবীর পাশ দিয়ে উড়ে যায়। প্রথম মহাকাশযান হিসেবে এটি পৃথিবীর বাইরের দিকে কোনো গ্রহকে প্রদক্ষিণ করে। এছাড়াও প্রথম যান হিসেবে গ্রহাণুকে প্রদক্ষিণ করে ও ছবি তোলে। 





২০০৩ সালে যানটিকে ইচ্ছাকৃতভাবে ধ্বংস করা হয়। বৃহস্পতির মহাকর্ষ ভেদ করে বেরিয়ে আসার মতো জ্বালানি অবশিষ্ট ছিল না বলেই এমন সিদ্ধান্ত। 


সূত্র

https://solarsystem.nasa.gov/missions/galileo/overview 

https://en.wikipedia.org/wiki/Flyby_(spaceflight)

https://en.wikipedia.org/wiki/Galileo_(spacecraft)


Category: articles

রবিবার, ২৯ অক্টোবর, ২০২৩

মহাকাশের বস্তুদের দূরত্ব নির্ণয় জ্যোতির্বিদ্যার অন্যতম বড় একটি সমস্যা। আকাশের দিকে খালি চোখে তাকিয়েই তো আর তারাদের দূরত্ব সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায় না। এ কারণেই প্রাচীন জ্যোতির্বিদরা ভাবতেন, আকাশের সবগুলো তারা পৃথিবী থেকে একই পরিমাণ দূরত্বে একটি গোলকীয় পৃষ্ঠে বসানো আছে। 

নক্ষত্রের দূরত্বের মাপার ক্ষেত্রে কাজে লেগেছে টেলিস্কোপ- তাও নিকটবর্তী নক্ষত্রদের দূরত্ব নির্ণয়ের ক্ষেত্রে। পদ্ধতিটির নাম প্যারালাক্স বা লম্বন (Parallax)। নক্ষত্রের দূরত্বের একক পারসেক এসেছে এ শব্দটা থেকেই। এক পারসেক = ৩.২৬ আলোকবর্ষ। 


প্যারালাক্স বুঝতে হলে হাতের সামনে একটি আঙ্গুল ধরুন। এক চোখ বন্ধ করে এর দিকে তাকান। এবার আরেক চোখ খুলে এই চোখ বন্ধ করে আঙ্গুলের দিকে তাকান। কী ঘটছে? ব্যাকগ্রাউন্ডের সাপেক্ষে আঙ্গুলের অবস্থান বদলে যাচ্ছে। অবস্থানের এই বিচ্যুতির কৌণিক হিসাবকেই প্যারালাক্স বলে। আঙ্গুলের বদলে আরো দূরের কোন বস্তুর ক্ষেত্রে একই পরীক্ষা চালালে দেখা যাবে যে দুই চোখের দেখা অবস্থানের পার্থক্য তথা প্যারালাক্সের মান কমে যাচ্ছে।

প্যারালাক্স। পর্যবেক্ষণের স্থান পাল্টালে পাল্টে যায় বস্তুর অবস্থান। 

এখন, নক্ষত্রদের দূরত্ব নির্ণয়ের জন্যে আমরা এই প্যারালাক্স পদ্ধতি প্রয়োগ করতে পারি। কিন্তু উপরে যেমন বললাম, বস্তুর দূরত্ব বেশি হলে কৌণিক বিচ্যুতিও কম হবে। নক্ষত্রের দূরত্ব বের করার জন্যে পৃথিবীর দুইটি আলাদা জায়গা থেকে একে দেখে নিয়ে ত্রিকোণমিতি কাজে লাগিয়ে দূরত্ব বের করা সম্ভব। এক্ষেত্রে পৃথিবীর আলাদা জায়গা দুটি দুই চোখের মত কাজ করবে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, নক্ষত্ররা পৃথিবী থেকে এত বেশি দূরে যে এদের প্যারালাক্সের মান হয় খুবই সামান্য। ফলে খুব ভাল মান পাওয়া যায় না।
 
এ সমস্যার সমাধানের জন্যেও পথ বের করেছেন বিজ্ঞানীরা। পৃথিবী বছরে এক বার সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে। ফলে সূর্যের চারদিকের উপবৃত্তাকার কক্ষপথে পৃথিবী ৬ মাস পর পর বিপরীত বিন্দুতে পৌঁছায়। এই দুই বিপরীত অবস্থান থেকে অপেক্ষাকৃত নিকটবর্তী নক্ষত্রের প্যারালাক্সের ভালো মান পাওয়া যায়।
যেমন চিত্রে দেখা যাচ্ছে জুন ও ডিসেম্বর মাসে পৃথিবী কক্ষপথের ঠিক বিপরীত প্রান্তদ্বয়ে থাকে। এই দুই বিন্দুতে কোন নক্ষত্র যে কোণ তৈরি করবে তার অর্ধেকই হল প্যারালাক্স (চিত্রে কোন p)।



এই পদ্ধতিটিও শুধু কাজ করবে পৃথিবী থেকে অপেক্ষাকৃত নিকটবর্তী তারকাদের ক্ষেত্রে। আরো দূরের তারকা বা অন্য কোন বস্তুদের ক্ষেত্রে প্যারালাক্সের মান অনেক কমে যাবে বিধায় ভাল হিসাব পাওয়া যাবে না। 

পারালাক্স পদ্ধতি দিয়ে পৃথিবী থেকে সর্বোচ্চ ৪০০ আলোকবর্ষ দূরের তারার দূরত্ব মাপা যায়। আরও দূরের তারার দূরত্ব মাপার সরাসরি কোনো উপায় নেই। তবে নক্ষত্রের রঙ ও উজ্জ্বলতার সম্পর্ক কাজে লাগিয়ে দূরত্ব জানা যায়। রং থেকে জানা যায় প্রকৃত উজ্জ্বলতা বা দীপ্তি। নক্ষত্রের আলো পৃথিবীতে আসতে আসতে সে উজ্জ্বলতা নিয়ম মেনে কমে। সে নিয়মটা হলো বিপরীত বর্গীয় সূত্র। আর এটা থেকেই জানা যায় নক্ষত্রের দূরত্ব। ছায়াপথের দূরত্ব মাপতেও প্রায় একই ধরনের ধারণা ব্যবহার করা হয়। সৌরজগতের গ্রহ বা সূর্য তো আরও অনেক কাছে। ফলে প্যারালাক্স দিয়েই এদের দূরত্ব বেশ ভালোভাবেই পাওয়া যায়। 
 
১। http://www.astronomy.ohio-state.edu/~pogge/Ast162/Unit1/Images/parallax.png
২। http://curious.astro.cornell.edu/the-universe/79-stars-and-star-clusters/distances/359-how-can-i-measure-the-distance-of-a-star-beginner
৩। https://science.howstuffworks.com/question224.htm
৪। https://www.sciencefocus.com/space/how-do-we-calculate-distances-to-other-galaxies
Category: articles

বৃহস্পতিবার, ৫ অক্টোবর, ২০২৩

সূর্য সৌরজগতের সবচেয়ে বড় বস্তু। যেমন ভারী, তেমনি তার বিশাল অবয়ব৷ সৌরজগতের মোট ভরের ৯৯.৮৬ ভাগ ভরই সূর্যের একার৷ আর আকার? ১০৯টা পৃথিবীকে পাশাপাশি বসালে সূর্যের এপাশ থেকে ওপাশ পর্যন্ত যাওয়া যাবে৷ মানে ব্যাস পৃথিবীর ১০৯ গুণ। 


১০৯টা পৃথিবীকে একটার পর একটা বসিয়ে দিলে সূর্যের সমান চওড়া হবে। 

তবে ফুটবলের মতো প্রায় গোলাকার সূর্যের পেটের ভেতরে বসিয়ে দেওয়া যাবে ১৩ লক্ষ সূর্য৷ এটাই প্রচলিত কথা। সংখ্যাটায় একটু গোলমাল আছে অবশ্য। এ সংখ্যা পাওয়া গেছে সূর্যের আয়তনকে পৃথিবীর আয়তন দিয়ে ভাগ করে। সেটাকেই স্বাভাবিক মনে হয়। তবে এটা সঠিক হত যদি পৃথিবীকে গলিয়ে সূর্যের পেটে ভরে রাখা যেতে। কিন্তু পৃথিবী শক্ত ও কঠিন পদার্থে তৈরি। পৃথিবীকে সূর্যের ভেতরে বসাতে গেলে এখানে-সেখানে ফাঁকা জায়গায় থেকে যাবে। পুরো আয়তন ভর্তি করা যাবে না। ফলে, সবমিলিয়ে সূর্যের ভেতরে জায়গা পাবে নয় ৯ লাখ ৩২ হাজার পৃথিবী। 


সৌরজগত কত বড়?


গোলাকার সূর্যের পেটের ভেতর রাখা যাবে প্রায় ৯ লাখের বেশি পৃথিবী 

সূর্যের আকার প্রায় পুরোপুরি গোলাকার৷ মেরু ও বিষুব অঞ্চলের ব্যবধান মাত্র ১০ কিলোমিটার বা ৬.২ মাইল৷ গড় ব্যাসার্ধ ৪,৩২,৪৫০ মাইল (৬,৯৬,০০০ কিলোমিটার)৷ ব্যাস ৮,৬৪,৯৩৮ মাইল বা ১৩,৯২,০০০ কিলোমিটার৷ তবে সূর্য আকারে চাঁদ ও পৃথিবীর তুলনায় বিশাল হলেও পৃথিবীর আকাশে চাঁদ ও সূর্যকে সমান দেখায়। এর কারণ, সূর্য চাঁদের তুলনায় প্রায় ৪০০ গুণ বড়। আবার, পৃথিবী থেকে দূরত্বও ৪০০ গুণ। ফলে পৃথিবীর আকাশে এ দুই বস্তুকে সাধারণত সমান দেখা যায়। তবে সবসময় নয়।  


চাঁদ-সূর্য সমান কেন? 


ভরও দারুণ বিশাল। তিন লাখ ত্রিশ হাজার পৃথিবী একত্র করলে সূর্যের সমান ভর পাওয়া যাবে৷ তবে ভর কিন্তু কমে যাচ্ছে ক্রমশ৷ পরিমাণে সেটা বিশাল হলেও মূল ভরের তুলনায় নগণ্য৷ সৌরবায়ুর সময় সূর্য সেকেন্ডে ১৫ লাখ টন ভর হারায়৷ অভ্যন্তরে চলা ফিউশন বিক্রিয়ায় প্রতিনিয়ত ভর থেকে আলো ও তাপশক্তি তৈরি হচ্ছে৷ এভাবে প্রতি সেকেন্ডে খরচ হচ্ছে ৪০ লাখ টন পদার্থ৷ সব মিলিয়ে সূর্য তার ৪৫০ কোটি বছরের জীবনে ভর হারিয়েছে পৃথিবীর ভরের ১০০ গুণ পদার্থ৷ দেখতে বিশাল লাগলেও এটা সূর্যের ভরের মাত্র ০.০৫ ভাগ। অন্য কথায় দশ হাজার ভাগের ৫ ভাগ৷ সারা জীবনে সূর্য  এক হাজার ভাগের মাত্র ৭ ভাগ ভরকে শক্তিতে রূপান্তর করবে৷ 


তবে সূর্যের বাহাদুরি শুধু সৌরজগতেই। পৃথিবী বা সৌরজগতের অন্যান্য বস্তুর তুলনায় প্রকাণ্ড হলেও সূর্য আসলে সাদামাটা এক তারা৷ রাতের আকাশের নবম উজ্জ্বল তারা বিটলজুস৷ কালপুরুষ তারামণ্ডলের দ্বিতীয় উজ্জ্বল এ তারা সূর্যের প্রায় ৭০০ গুণ বড় ও ১৪,০০০ গুণ উজ্জ্বল৷ বিটলজুসকে জানুয়ারি মাসে সবচেয়ে ভাল দেখা যায়৷ তবে এমন তারাও আছে যার তুলনায় বিটলজুসও নস্যি! 


লুব্ধক, কালপুরুষ ও বিটলজুস


সূর্যের তুলনায় বিটলজুস কত বিশাল দেখুন। এ তো সবে শুরু। আছে আরও বিশাল বিশাল তারাও।

বিটলজুস তো সূর্যের ৭০০ গুণ বড়। মিউ সিফিয়াই তারা প্রায় এক হাজার গুণ বড় (৯৭২)। সূর্যের চেয়ে এক হাজার গুণ বা আরও বড় প্রায় ১০০ তারা আবিষ্কৃত হয়েছে। এর মধ্যে ভিওয়াই ক্যানিস মেজোরিস তো ১৪২৯ গুণ বড়। ইউওয়াই স্কুটি ১৭০৮ গুণ। এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত সবচেয়ে বড় আকারের তারার নাম স্টিফেনসন ২-১৮। অন্য নাম স্টিফেনসন ২ ডিএফকে ১। সূর্যের তুলনায় ২১৫০ গুণ বড়। পৃথিবী থেকে দূরত্ব ১৯ হাজার আলোকবর্ষ। 


বড় বড় নক্ষত্রের গল্প


সূর্যের চেয়ে বড় বড় তারকারা

তবে আবার সূর্যের চেয়ে ছোট তারাও আছে। এমন তারাও আছে, যাদের ভর সূর্যের দশ ভাগের এক ভাগ। তবে সূর্যের চেয়ে বেশি ভারী তারা আবার জীবনের শেষ ভাগে অনেক ছোট হয়ে যায়। এই যেমন ব্ল্যাকহোল ও নিউট্রন তারা। জীবনের শেষভাগে ব্ল্যাকহোল তো বিন্দু বা রেখার মতো হয়ে যায়। আর নিউট্রন তারা হয় পৃথিবীর চেয়ে ছোট। জ্বালানি ফুরিয়ে গুটিয়ে যাবার সময় তৈরি নিউট্রন আরও ছোট হতে বাধা দেয়। ফলে তারাটা ব্ল্যাকহোল হতে পারে না। চওড়ায় হয় মাত্র ১২ মাইলের মতো। ঘন এ তারা থেকে একটি চিনির দানার সমান পদার্থ নিলে তার ভরই হবে একশো কোটি টন। 


ব্ল্যাকহোলের জন্ম হয় কীভাবে?


এখন সূর্যের আকার প্রায় ধ্রুব থাকলে আরও প্রায় ৫০০ কোটি সূর্য বড় হয়ে যাবে৷ ততদিনে হাইড্রোজেন জ্বালানি শেষ হওয়ায় বন্ধ হবে হিলিয়াম তৈরির প্রক্রিয়া৷ ফলে ভেতরের অংশ গুটিয়ে একটা সময় লোহিত দানব ও পরে শ্বেত বামন তারায় পরিণত হবে৷ ওদিকে বাইরের অংশে তখনও চলমান ফিউশনের বহির্মুখী চাপে প্রসারিত হয়ে অনেকদূর বিস্তৃত হবে৷ বর্তমান আকার থেকে ২০০ গুণ বড়৷ বুধ ও শুক্রের কক্ষপথ চলে যাবে সূর্যের পেটের ভেতর। এবং সম্ভবত পৃথিবীও। 


সূর্য কীভাবে জ্বলে?


লোহিত দানব তারার গল্প


সূত্র: স্পেস ডট কম, স্লুহ ডট কম, নাসা, আর্থস্কাই, আইএফএল সায়েন্স, ওউক্ল্যাশন

Category: articles

বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

টকটকে লাল লোহিত দানব তারা৷ তবে জন্ম নিয়েই সাথে সাথে লোহিত দানব হয়ে যায় না৷ জন্মের সময় বিশাল ভরের তারা নিজের ভরে চুপসে যেতে চায়৷ শক্তিশালী মহাকর্ষ তারার হাইড্রোজেন ও হিলিয়ামের গ্যাসীয় মেঘকে গুটিয়ে ফেলতে থাকে৷ এ থেকেই জোড়া লাগতে শুরু করে হাইড্রোজেন নিউক্লিয়াস। শুরু হয় ফিউশনের মাধ্যমে হিলিয়াম তৈরির প্রক্রিয়া৷ এভাবেই তৈরি হয় আলো ও তাপ৷ এ বিক্রিয়া তৈরি করে বহির্মুখী চাপ৷ আর তাতেই মহাকর্ষ ও ফিউশন ভাপের টানাটানিতে একটি তারা ভারসাম্যে থাকে৷ তারার এ দশাকে বলে প্রধান ক্রম। 


রেড জায়ান্ট বা লোহিত দানব তারা

সূর্য কীভাবে জ্বলে?


নক্ষত্রের জন্ম


তবে এটা তো আর চিরদিন চলা সম্ভব নয়। প্রায় ৭৫ ভাগ হাইড্রোজেন নিয়ে তারার জন্ম। একটা সময় কোর বা কেন্দ্রভাগের হাইড্রোজেন শেষ হয়ে যায়৷ তারা যত ভারী, তত দ্রুত ফুরোয় তার জ্বালানি৷ কারণ মহাকর্ষ শক্তিশালী হওয়ায় ফিউশন চলে দ্রুত গতিতে। ফলে ভর বেশি হলেও ভারী তারার জ্বালানি আগে শেষ হয়। সবচেয়ে ভারী তারারা তো সুপারনোভা হওয়ার আগে মাত্র কয়েক মিলিয়ন বছর জ্বলে। যেখানে সূর্যের মতো গড়পড়তা তারাদের ফিউশন চলে প্রায় এক হাজার কোটি বছর ধরে। জ্বালানি শেষ হলেই তারার ভারসাম্যও শেষ৷ কোর বা কেন্দ্রভাগ আবার গুটোতে থাকে৷ তবে কোরের চারপাশের খোলসে থাকা প্লাজমা পদার্থ উত্তপ্ত হয়ে হয়ে নিজেই ফিউশন শুরু করে৷ 


খোলসের এ ফিউশনের ফলে তৈরি বাড়তি তাপ তারার বাইরের অংশকে নাটকীয়ভাবে প্রসারিত করে দেয়৷ তারার পৃষ্ঠ আগের চেয়ে কয়েকশো গুণ বড় হয়ে যায়৷ সূর্যও এসময় প্রায় ২০০ গুণ বড় হয়ে যাবে৷ তারার শক্তি এ সময় বড় অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত হয়ে পড়ে৷ ফলে তাপমাত্রা কমে আসে৷ তাতে তার রং বদলে সাদা বা হলুদ থেকে লাল হয়৷ তৈরি হয় রেড জায়ান্ট বা লোহিত দানব৷ তাপমাত্রা নেমে আসে ৫ হাজার কেলভিনে৷ আগে যেখানে ছিল ৬ থেকে ৩০ হাজার কেলভিন৷ তবে সত্যি বলতে, রেড জায়ান্টরা আসলে দেখতে কমলা। লাল হতে হলে তাপমাত্রা হতে হবে আরও কম। চার হাজার কেলভিনের নিচে। 


নক্ষত্রের বিবর্তন

ব্যাপারটা রাতারাতি ঘটে যায় না। এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে সময় লাগে কোটি কোটি বছর৷ প্রধান ক্রম দশা শেষে সব তারা কিন্তু লোহিত দানব হবে না৷ জন্মের সময় ভর সূর্যের ৮০ ভাগ থেকে ৮ গুণ পর্যন্ত হলেই কেবল তারা লোহিত দানব হতে পারে৷ আরও বড় হলে তারা জ্বালানি ফুরিয়ে হয় রেড সুপারজায়ান্ট বা অতিদানব৷ পরে ঘটায় সুপারনোভা বিস্ফোরণ৷ রেড জায়ান্টরা সাধারণত বিস্ফোরণ ঘটায় না। তবে পাশে কোনো শ্বেত বামন তারা থাকলে সেটা লোহিত দানবের জ্বালানি চুরি করে বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে৷ এর নাম নোভা বিস্ফোরণ৷ 


নোভার গল্প 


তারা রেড জায়ান্ট দশায় থাকে প্রায় একশ বছর৷ সূর্যের কাছাকাছি ভরের তারাদের কোর হবে শ্বেত বামন৷ আর কেন্দ্রের তাপ ও চাপে বাইরের অংশ নিক্ষিপ্ত হয় মহাশূন্যে। এই নিক্ষিপ্ত অংশের নাম গ্রহ নীহারিকা (planetary nebula)। যদিও গ্রহের সাথে এর কোনো সম্পর্ক নেই৷ হাইড্রোজেন পরবর্তী হিলিয়াম ও আরও ভারী পদার্থের ফিউশনে তৈরি কার্বন ও অন্যান্য পদার্থ থাকে এ নীহারিকায়৷ এ নীহারিকা আশেপাশের পদার্থের সাথে একীভূত হতে পারে৷ হতে পারে নতুন নক্ষত্র ও গ্রহ তৈরির উপাদান। তবে বেশিদিন এরা টিকে থাকে না। কয়েক হাজার বছর থেকে শুরু করে এক লাখ বছরের কাছাকাছি পর্যন্ত চলতে পারে জীবন। তারপর মিলিয়ে যায় আন্তঃনাক্ষত্রিক জগতে। 


আরও প্রায় পাঁচশো কোটি বছর সূর্য লোহিত দানব হবে। বর্তমান রাতের আকাশের পরিচিত অনেক তারাই বর্তমানে এ দশায় আছে৷ স্বাতী, ক্যাপেলা, অ্যালডেবারান, জ্যেষ্ঠা (antares) এদের মধ্যে অন্যতম।  স্বাতী তো উত্তর গোলার্ধের রাতের আকাশে সবচেয়ে উজ্জ্বল তারা৷ সমগ্র রাতের আকাশে চতুর্থ উজ্জ্বল৷ ক্যাপেলা উজ্জ্বলতায় ষষ্ঠ৷ আর অ্যালডেবারান চতুর্দশ৷ আর অ্যান্টারিজ পনেরতম। এরা লোহিত দানব হয়েও রেড সুপাজায়ান্ট লোহিত অতিদানবদের চেয়েও পৃথিবীর আকাশে বেশি উজ্জ্বল। কারণ একটাই–দূরত্ব। 


যেমন উজ্জ্বলতায় স্বাতী চতুর্থ আর বিটলজুস নবম। স্বাতী পৃথিবী থেকে মাত্র ৩৬ আলোকবর্ষ দূরে৷ অভ্যন্তরীণ উজ্জ্বলতা বা দীপ্তি সূর্যের ১৭০ গুণ৷ ওদিকে লোহিত অতিদানব তারা বিটলজুসের দীপ্তি সূর্যের প্রায় এক লক্ষ গুণ (বিভিন্ন হিসাবে কম-বেশি আছে)। তবুও পৃথিবীর আকাশে বিটলজুস কম উজ্জ্বল। এর দূরত্ব যে ৫৪৮ আলোকবর্ষ!


সূত্র: এসা ওয়ার্ডব্যাংক: রেড জায়ান্ট, প্ল্যানেটারি নেবুলা, সক্রেটিক ডট অর্গ, আর্থস্কাই, ইউটা ইউনিভার্সিটি, হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি

Category: articles

সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

সূর্যগ্রহণের ছবি

সূর্য একটা নক্ষত্র। যার চারপাশে ঘুরছে পৃথিবী নামক গ্রহটা। চাঁদ ঘুরছে পৃথিবীর চারপাশে৷ চলতে চলতে একটা সময় চাঁদ চলে আসে সূর্য ও পৃথিবীর ঠিক মাঝখানে৷ আড়াল করে সূর্যের আলো। আর তখনই হয় সূর্যগ্রহণ৷ চাঁদ ও সূর্যের আকারে বিশাল ব্যবধান থাকলেও দূরত্বের ব্যবধান ঘুচিয়ে দেয় আকারের তারতম্য। তাই তো চাঁদ আকারে ছোট হয়েও পৃথিবীর আকাশে সূর্যের সমান৷ 

সূর্যের চারদিকে পৃথিবী ও চাঁদের কক্ষপথ


আগেই বলেছি, সূর্যগ্রহণের সময় চাঁদ থাকে পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে৷ ফলে চাঁদের আলোকিত অংশও থাকে পৃথিবী থেকে উল্টো দিকে৷ এ জন্যই সূর্যগ্রহণ আসলে হয় অমাবশ্যার সময়। তবে সব অমাবশ্যায় কিন্তু সূর্যগ্রহণ হয় না। কারণ চাঁদ পৃথিবী ও সূর্যের একই সমতলে থাকে না৷ একই রেখা বরাবর চলে এলেই কেবল গ্রহণ হতে পারে৷ আর সেটা আবার পুরো পৃথিবী থেকে দেখা যায় না। চাঁদের কারণে পৃথিবীর যে অঞ্চলে সূর্যের আলো পৌঁছতে পারে না শুধু সে অঞ্চল থেকেই তা দেখা যাবে৷ কোনো কোনো অঞ্চলে তো ঐ বিশেষ সময়ে রাত থাকবে। ফলে এমনিতেই সূর্য দেখা যাবে না। 

সূর্যগ্রহণ ও চন্দ্রগ্রহণ। চন্দ্রগ্রহণে পৃথিবী থাকে সূর্য ও চাঁদের মাঝখানে। আর সূর্যগ্রহণে চাঁদ থাকে পৃথিবী ও সূর্যের মাঝে। 


সূর্যগ্রহণ তিন রকম আছে। পূর্ণগ্রাস, বলয় ও আংশিক৷ চাঁদ সূর্যের আলোকে পুরোপুরি ঢেকে দিলে হয় পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ৷ এ সময় চাঁদের ছায়ার কেন্দ্রে (প্রচ্ছায়া) থাকা পৃথিবীর মানুষেরা পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখেন। আকাশ হয়ে যায় অন্ধকার। গোধূলির সময়ের মতো৷ আবহাওয়া ভাল হলে এ সময় পূর্ণগ্রাস অঞ্চলের মানুষের সূর্যের করোনা বা সৌরমুকুট দেখতে পাবেন। এটা হলো সূর্যের বহিস্থ বায়ুমণ্ডল৷ এমনিতে সূর্যের উজ্জ্বল অংশের জন্য এটা দৃষ্টির আড়ালে থাকে৷ 

চাঁদ কক্ষপথের অপভূ অবস্থান বা এর কাছাকাছি জায়গায় থাকা অবস্থায় সূর্যগ্রহণ হলে সেটা হয় বলয়গ্রাস৷ চাঁদ এ সময় পৃথিবী থেকে দূরে থাকায় আকার অপেক্ষাকৃত ছোট থাকে৷  ফলে পৃথিবীর আকাশে চাঁদের আপেক্ষিক আকার সূর্যের চেয়ে কম হয়। ফলে চাঁদের ছায়ায় সূর্য পুরোপুরি ঢাকা পড়ে না। চাঁদের চারপাশ ঘিরে দেখা যায় বলয়৷ 

তিন রকম সূর্যগ্রহণ

অন্যদিকে আংশিক গ্রহণ হয় যখন সূর্য, চাঁদ আর পৃথিবী সরলরেখায় থাকে না৷ চাঁদ সূর্যের একটা অংশকেই শুধু ঢেকে দেয়৷ সূর্যকে তখন ক্রিসেন্ট বা অর্ধচন্দ্রের মতো লাগে৷ আংশিক গ্রহণ কিন্তু বলয় বা পূর্ণগ্রাস থেকেও হতে পারে৷ এই দুই গ্রহণের সময় প্রচ্ছায়া অঞ্চলের বাইরের মানুষ দেখবে আংশিক গ্রহণ৷ 

সাবধান!
সূর্যগ্রহণ ভুলেও খালি চোখে দেখবেন না। দেখতে হলে লাগবে বিশেষ চশমা অথবা নির্দিষ্ট কৌশল। তবে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণের সময় সামান্য সময়ের জন্য খালি চোখেও নিরাপদে গ্রহণ দেখা যাবে৷

 
সূর্যগ্রহণ জ্যোতির্বিজ্ঞান গবেষণারও দূর্লভ এক সুযোগ৷ ১৯১৯ সালে এমন এক সূর্যগ্রহণের সময়ই প্রমাণ হয় আইনস্টাইনের সার্বিক আপেক্ষিকতা৷ সূর্য চাঁদের আড়ালে ঢেকে যাওয়ার সূর্যের পেছনে থাকা হায়াডিজ নক্ষত্রপুঞ্জ থেকে বেঁকে আসা আলো ধরা পড়ে অনুসন্ধানী দলের টেলিস্কোপের চোখে। মিলে যায় আইনস্টাইনের পূর্বানুমান৷ 

Category: articles
বামন গ্রহদের পরিচয়। বড় করে দেখতে ক্লিক করুন। 


টেক্সট 

বামন গ্রহরা সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে। ভরের কারণে আকৃতি গ্রহদের মতোই প্রায় গোলাকার। তবে আকারে গ্রহদের চেয়ে ছোট। সূর্য ছাড়া অন্য কোনো বস্তুর চারপাশে ঘোরে  না। তবে নিজের কক্ষপথে অন্য বস্তু চলে আসতে পারে। সৌরজগতে শত শত বামন গ্রহ থাকার সম্ভাবনা আছে। বর্তমানে অবশ্য পাঁচটি বহুল পরিচিত। 


সেরেস

আকার: ৫৮৪ মাইল চওড়া 

অবস্থান: গ্রহাণুবেষ্টনী 

আবিষ্কার: ১৮০১ সাল 

বিশেষ তথ্য: গ্রহাণুবেষ্টনীর সবচেয়ে বড় গ্রহাণু 


প্লুটো

আকার: ১৪৭৩ মাইল চওড়া 

অবস্থান: কাইপার বেল্টের কাছে 

আবিষ্কার: ১৯৩০ 

চাঁদ/উপগ্রহ: শ্যারন, নিক্স, হাইড্রা, স্টিক্স, কারবারোস 

বিশেষ তথ্য: একদিন সমান পৃথিবীর ৬.৪ দিন


মাকিমাকি

আকার: ৮৯০ মাইল চওড়া 

অবস্থান: কাইপার বেল্ট 

আবিষ্কার: ২০০৫ 

চাঁদ: এমকে২ 

বিশেষ তথ্য: কাইপার বেল্টের দ্বিতীয় উজ্জ্বল বস্তু 


হাউমেয়া 

আকার: ১১৯৫ x ৬১৫ মাইল (ডিম্বাকার) 

অবস্থান: কাইপার বেল্ট

আবিষ্কার: ২০০৪ 

চাঁদ: হিয়াকা, হামাকা 

বিশেষ তথ্য: নেপচুনের বাইরের বস্তুর মধ্যে এখন পর্যন্ত এরই কেবল বলয় আছে বলে জানা গেছে।  


এরিস

আকার: ১৪৪৫ মাইল চওড়া 

অবস্থান: কাইপার বেল্টের বাইরের অংশ

আবিষ্কার: ২০০৩ 

বিশেষ তথ্য: আবিষ্কারের মাধ্যমে প্লুটোর গ্রহত্ব নিয়ে বিতর্কের শুরু হয় 


সূত্র: স্পেস ডট কম
Category: articles

জ্যোতির্বিজ্ঞান পরিভাষা: জেনে নিন কোন শব্দের কী মানে

এখানে সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যাসহ জ্যোতির্বিদ্যায় প্রয়োজনীয় পরিভাষাগুলোর তালিকা দেওয়া হলো। সাজানো হয়েছে অক্ষরের ক্রমানুসারে। এই তালিকা নিয়মিত আপডেট...