Advertisement

Sunday, May 15, 2016

রাতের আকাশের তারাসহ বিভিন্ন বস্তুর অবস্থান নির্ণয়ের জন্যে বিষুব লম্বের সাথে পরিচয় থাকা দরকার। আপনারা নিশ্চয়ই পৃথিবীর অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমা সম্পর্কে জানেন। পৃথিবীর দুই মেরুর ঠিক মাঝ বরাবর পূর্ব পশ্চিমে কল্পিত রেখার নাম নিরক্ষ রেখা বা বিষুব রেখা (Equator)। বিষুব রেখার সমান্তরালে উত্তরে বা দক্ষিণে যে রেখাগুলো কল্পনা করা হয় সেগুলোই হল অক্ষাংশ রেখা। এই রেখার উপরের কোনো বিন্দুর নাম অক্ষাংশ (Latitude)। দ্রাঘিমা বলা হয় উত্তর থেকে দক্ষিণে চলে যাওয়া রেখাগুলোর উপরের অবস্থানকে। বিষুব লম্ব বুঝতে হলে অন্তত অক্ষাংশ বোঝা প্রয়োজন।
পৃথিবীর অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমা

বাংলাদেশের অক্ষাংশঃ
বাংলাদেশ বা এর পাশ্ববর্তী অঞ্চল থেকে তারা চিনতে বিষুব লম্ব সঠিকভাবে কাজে লাগাতে হলে বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশের অবস্থান জানা প্রয়োজন। বাংলাদেশ বিষুব রেখা থেকে ২৩ ডিগ্রি উত্তরে অবস্থিত। ফলে এর অক্ষাংশ হল ২৩ ডিগ্রি উত্তর। ঠিক এই জায়গা দিয়েই দুটি ক্রান্তীয় রেখার একটি কর্কটক্রান্তি (Tropic of cancer) রেখা চলে গেছে পূর্ব- পশ্চিমে।
পৃথিবীতে বাংলাদেশের অবস্থান ২৩ ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশে

এবার মূল আলোচনায় আসি।
আমাদের আকাশকে মাথার উপরে একটি গম্বুজের মত কল্পনা করুন। যদিও আসলে তারাগুলো পৃথিবী থেকে ভিন্ন ভিন্ন দূরত্বে অবস্থিত তবু রাতের আকাশে এদেরকে এরকম কোন কল্পিত গম্বুজে ছাঁটানো লাইটের মতই মনে হয়। এটা ধরে নিলে তারাদেরকে অবস্থান নির্ধারণ করাও সহজ হয়ে যায়। তাহলে আকাশকে গম্বুজ কল্পনা করলেন। আমরা বোঝার জন্যে যাকে গম্বুজ কল্পনা করলাম তার সঠিক নাম খ-গোলক (Celestial Spehere)। এবার বিষুব রেখার ঠিক বরাবর উপরে খ-গোলকের মধ্যে একটি রেখা কল্পনা করুন। একে বলা হয় খ-বিষুব।
আকাশের নামকরণ 

খ-বিষুব থেকে উত্তরে বা দক্ষিণে অবস্থিত তারাদের অবস্থান পৃথিবীর অক্ষাংশের মতোই বের করা হয়। তবে পৃথিবীর ক্ষেত্রে আমরা উত্তর ও দক্ষিণের জন্যে মানের আগে যথাক্রমে উত্তর ও দক্ষিণ কথাটা যোগ করি। যেমন বাংলাদেশে অবস্থান ২৩ ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশে। কিন্তু খ-গোলকের ক্ষেত্রে উত্তরে হলে এর আগে + চিহ্ন এবং দক্ষিণে মাইনাস চিহ্ন (-) বসানো হয়। এই অবস্থানগুলোর নামই হল বিষুব লম্ব (Declination)।
কোনো তারার বিষুব লম্ব (+২৩) ডিগ্রি হলে এটি বাংলাদেশে আমাদের ঠিক মাথার উপর দিয়ে পূর্ব থেকে পশ্চিমে যাবে। যেমন, রাতের আকাশের চতুর্থ উজ্জ্বল নক্ষত্র স্বাতীর বিষুব লম্ব (+১৯) ডিগ্রি। তাই এটি পূর্ব দিকে উঠার পরে এক সময় আমাদের মাথার উপরে চলে আসে। পরে আবার চলে যায় পশ্চিম দিকে।
আবার রাতের আকাশের সবচেয়ে উজ্জ্বল নক্ষত্র লুব্ধকের বিষুব লম্ব হল (-১৬) ডিগ্রি। ফলে কখনো আমাদের মাথার উপর আসে না, দক্ষিণ দিক দিয়ে পূর্ব থেকে পশ্চিম দিকে চলে যায়। আবার ধ্রুবতারা বিষুব লম্ব প্রায় (+৯০) ডিগ্রি। তাই উত্তর মেরুতে গেলে এটি ঠিক মাথার উপর থাকবে।

আরো পড়ুনঃ
উজ্জ্বল তারাদের গল্প
তারামণ্ডলীর পরিচয়
☛ তারা পরিচিতিঃ এ সপ্তাহের তারা 
Category: articles

Wednesday, May 4, 2016

স্বাতী (Arcturs) আকাশের চতুর্থ উজ্জ্বল নক্ষত্র। বর্তমান মে মাসটি একে খুঁজে পাবার অন্যতম সেরা সময়। সন্ধ্যার একটু পরেই পূর্ব আকাশে এটি হাজির হচ্ছে এখন। বাংলাদশের অবস্থান থেকে দেখতে রাতের আকাশে এটি উদিত হয় প্রায় সোজা পূর্ব দিকে। তার অর্থ, উদিত হবার প্রায় ৬ ঘণ্টা পর এটি উঠে আসে প্রায় ঠিক মাথার উপর।
সপ্তর্ষীমণ্ডলীর তারাভুজ সপ্তর্ষীর হাতল স্বাতীকে চিনিয়ে দেয়
স্বাতী চেনার উপায়ঃ
আকাশের অন্যতম সহজলব্ধ একটি তারামণ্ডলী হল সপ্তর্ষীমণ্ডলী। এর সাতটি তারায় গঠিত তারাভুজ সপ্তর্ষী দেখতে চামচের মত। চামচের হাতলের দিকের তারাগুলোকে বৃত্তচাপের মত করে বাইরের দিকে প্রসারিত করে দিলেই পাওয়া যায় উজ্জ্বল নক্ষত্র স্বাতী। চাপকে আরেকটু প্রসারিত করলে পাওয়া যাবে আরেকটি উজ্জ্বল নক্ষত্র চিত্রা।
বিশাল এই নক্ষত্রটি পৃথিবী থেকে ৩৬.৭ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। এর আপাত উজ্জ্বলতা মাইনাস ০.০৫। 
Category: articles

Monday, May 2, 2016

গ্রহ দেখার আরেকটি দারুণ মাস ২০১৬ সালের মে। এ মাসে সবচেয়ে দারুণ দেখাবে বৃহস্পতি, মঙ্গল ও শনিকে। দেখা যাক, কে কখন, কোথায় থাকবে।
বৃহস্পতিঃ
সন্ধ্যার পরপরই এটি পূর্ব আকাশ থেকে হাজির মাথার উপর। মাসের যে সময়টুকু চাঁদ থাকবে না তাতে বৃহস্পতিই রাতের আকাশের সেরা উজ্জ্বল বস্তু। আগামী মাসগুলোতেও এটি এর পারফরম্যান্স ধরে রাখবে। গত মাসের মতই লুব্ধকের সাথে এর উজ্জ্বলতার প্রতিযোগিতা হবে। অনেকে ভুল করে একে লুব্ধকও মনে করতে পারেন। তবে লুব্ধক এর চেয়েও বেশি পশ্চিমে (এবং মূলত কিছুটা দক্ষিণ-পশ্চিমে) থাকায় বিভ্রান্তি কাটানো সহজ। লুব্ধক আকাশের সেরা উজ্জ্বল নক্ষত্র হলেও সময় সময় গ্রহদের কাছে একে হার মানতে হয়।
মাস গড়াতে গড়াতে আরেকটি গ্রহ মঙ্গলও বৃহস্পতির সাথে টক্কর লাগাবে। তবে এর লাল রঙ এর কারণে একে চিনতে অসুবিধা হবে না।

মঙ্গলঃ
এ মাসের ২য় সেরা উজ্জ্বল গ্রহ এটি। মাসের শুরুতে উজ্জ্বলতার দৌড়ে বৃহস্পতির চেয়ে পিছিয়ে থাকলেও দিন গড়াবার সাথে সাথে এর উজ্জ্বলতা বেড়ে বৃহস্পতির খুব কাছাকাছি হয়ে যাবে। গত ২ বছরের মধ্যে এটি আমাদের জন্যে মঙ্গল গ্রহ দেখার সেরা সময়। মাসের শেষের দিকে এটি এপ্রিল মাসের তুলনায় ৪ গুণ উজ্জ্বল হবে। বুধ ছাড়া অন্য যে কোন গ্রহের চেয়ে মঙ্গল সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বলতার পরিবর্তন ঘটায়। এটি এর উজ্জ্বলতম অবস্থায় অনুজ্জ্বল অবস্থা থেকে ৮০ গুণ পর্যন্ত উজ্জ্বল হয়ে ওঠে!
রাতের আকাশে মঙ্গল গ্রহ 


ইদানিং মঙ্গল উজ্জ্বল হচ্ছে কেন?
মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথ পৃথিবীর ঠিক বাইরে। সূর্যের চারদিকে পৃথিবী তাই মঙ্গলের চেয়ে দ্রুত ঘোরে। গত দুই বছর ধরে আমরা মঙ্গলের আগে আগে সূর্যের চারদিকে ছুটছি। এ মাসের শেষ দিকে আমরা চলে যাচ্ছি মঙ্গল ও সূর্যের মাঝে। এই ঘটনাকে বলা হয় প্রতিযোগ (Opposition)। এ সময় সূর্য পশ্চিমে অস্ত যাবার পরেই পূব আকাশে দেখা মিলবে মঙ্গলের। মাসের শুরুতে অবশ্য মঙ্গল উদিত হবে রাত ৯টার দিকে।

রাতের আকাশে গ্রহদের এলোমেলো ছোটাছুটি এদেরকে নক্ষত্রদের থেকে আলাদা করে চিনতে ভূমিকা রেখেছে। নক্ষত্রদের সাপেক্ষে এরা কখনো পূর্ব দিকে, আবার কখনো পশ্চিমে ছোটে। 


 ভিডিওঃ ২০১৬ সালের বিভিন্ন মাসে মঙ্গলের ছোটাছুটি 

লাল গ্রহটি নিজে একাই রাতের আকাশকে উজ্জ্বল করছে না। এর পাশেই আছে আরেকটি সুন্দর গ্রহ শনি। আপাতত দুজনের দূরত্ব অবশ্য বাড়ছে, কিন্তু আছে বৃশ্চিক মণ্ডলীতেই।

শনিঃ
মঙ্গল ও শনি দুই গ্রহই আরেকটি উজ্জ্বল বস্তুর কাছে আছে। এটি হচ্ছে আকাশের আকাশের ১৬শ উজ্জ্বল নক্ষত্র জ্যেষ্ঠা (Antares)। এত উজ্জ্বল হয়েও বেচারা দুই গ্রহের কাছে ফেল! আপাতত রাত ৯ থেকে ১০টার মধ্যে এটি শনি উদিত হলেও মঙ্গলের মতই আস্তে আস্তে এই সময় কাছে আসছে। জুনের ৩ তারিখে এটিও প্রতিযোগ অবস্থানে আসবে। এই সময় এও সূর্যাস্তের পরে পূর্ব আকাশে হাজিরা দেবে। আগস্টের ২৪ তারিখে মঙ্গল ও শনি খুবই কাছাকাছি থাকবে।

বুধঃ
মে মাসের ৯ তারিখে বুধ সন্ধ্যার আকাশ থেকে ভোরের আকাশে চলে যাচ্ছে। ফলে, এই সময় এটি সূর্যের খুব নিকটে থাকে বলে একে দেখা প্রায় অসম্ভব। বুধ অন্তঃগ্রহ এবং সূর্যের নিকটতম গ্রহ হওয়ায় খুব দ্রুত ভোরের আকাশ ও সন্ধ্যার আকাশে আসতে যেতে থাকে।

শুক্রঃ
রাতের আকাশের উজ্জ্বলতম গ্রহটি এ মাসেও নিস্তেজ। ফলে রাতের আকাশের রাজত্ব বৃহস্পতির হাতে। এটি এ মাসে (পৃথিবীর আকাশে) সূর্যের নিকটতর হতে হতে সূর্যের আভায় হারিয়ে যাবে। জুনের ৬ তারিখে এটি সূর্যের ঠিক পেছনে চলে যাবে। কারণ, এ সময় কক্ষপথে এটি অবস্থান নেবে পৃথিবীর উল্টো পাশে। এ সময় এটি ধীরে ধীরে ভোরের পূবাকাশ থেকে সন্ধ্যার পশ্চিমাকাশের দিকে আসবে।
শুক্র গ্রহের সূর্যকে অতিক্রমের মুহূর্ত 

Category: articles

Saturday, April 2, 2016

এই এপ্রিলের আকাশের সবেচেয়ে দর্শনীয় বস্তু গ্রহ রাজ বৃহস্পতি। ইদানিং এটি সন্ধ্যার পরপর এটি আকাশে হাজির হয়। অন্য গ্রহদের অবস্থাও এ মাসে বেশ ভালো। কিন্তু উজ্জ্বলতম গ্রহ শুক্রই এ মাসে দেখা যাবে না। তবু সামগ্রিক বিচারে গ্রহ দেখার জন্য এ মাসটি বছরের অন্যতম সেরা মাস। 
বৃহস্পতিঃ
এ মাসে উজ্জ্বলতায় সবার শীর্ষে বৃহস্পতি। সন্ধ্যার পরেই এটি আকাশের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র লুব্ধকের সাথে উজ্জ্বলতার টক্কর লাগায়। টক্করে বিজয়ী বৃহস্পতিই। পরাজয় মেনে নিয়ে লুব্ধক অবশ্য কয়েক ঘণ্টা পরেই হারিয়ে যায় পশ্চিম দিগন্তে। কিন্তু বৃহস্পতি প্রায় সারা রাত রাতের আকাশে রাজত্ব করে পশ্চিম দিগন্তে ডুব দেবে ভোরের দিকে। আগামী মাসগুলোতেও এটি নিজের পারফরম্যান্স অব্যাহত রাখবে।
লুব্ধক ও বৃহস্পতিকে কি করে চেনা যাবে? 
লুব্ধক বছরের এ সময় থাকে দক্ষিণ-পশ্চিম আকাশে। অন্য দিকে বৃহস্পতি সন্ধ্যার পরে পূর্ব দিকে ভেসে ওঠে। আদম সুরতের মাধ্যমে লুব্ধককে চিনে নেওয়া যেতে পারে।
আদম সুরতের মাঝের তিনটি তারা যোগ করে বাম দিকে বাড়িয়ে দিলেও পাওয়া যায় লুব্ধক
বর্তমানে বৃহস্পতির অবস্থান রাশিচক্রের সিংহ মণ্ডলীর কাছে
মঙ্গল গ্রহঃ
এ মাসে মঙ্গল বৃহস্পতির মত এতটা উজ্জ্বল নয়। তবে, আগামী দিনগুলোতে মঙ্গল ক্রমশ উজ্জ্বল হতে থাকবে, আর বৃহস্পতি ধীরে ধীরে অনুজ্জ্বল হবে। এমনকি এ মাসেই মঙ্গল স্বাভাবিকের চেয়ে দ্বিগুণ উজ্জ্বল হবে। কেন? কারণ কোন গ্রহ যখন সূর্যাস্তের কাছাকাছি সময় পূর্ব দিকে উদিত হয়, তখন এটি এর সেরা ঔজ্জ্বল্য প্রদর্শন করে। এ কারণেই বৃহস্পতি এখন উজ্জ্বল এবং সেই কারণেই মঙ্গল দ্রুত উজ্জ্বলতা বাড়াচ্ছে। 
মে মাসের শেষের দিকে এটি উজ্জ্বলতায় চারগুণ হয়ে যাবে। ঐ সময় সূর্য পশ্চিমে হারিয়ে গেলে এটি পূর্ব দিগন্তে দেখা দেবে। এ মাসে অবশ্য এটি দক্ষিণ-পূর্ব আকাশে হাজির হয় ১১টার দিকে। মাসের শেষের দিকে উঠবে ৯ টার দিকে। এর পাশেই আছে আরেকটি গ্রহ শনি। 
দক্ষিণ-পূর্ব আকাশে মঙ্গল ও শনি গ্রহ
শনি গ্রহঃ
এ মাসের আরেকটি উজ্জ্বল বস্তু। অবশ্য বৃহস্পতি ও মঙ্গলের চেয়ে এটি মৃদু। মঙ্গলের মতই বৃশ্চিক মণ্ডলীর কাছাকাছিতে এর অবস্থান। মাসের শুরুতে রাত ১টা এবং মাসের শেষে ১০ টার দিকে পূর্ব দিগন্তে হাজির হবে। 

বুধ গ্রহঃ
বুধ সব সময় সূর্যের আশেপাশে থাকে। এ মাসে সব তারিখেই এটি সূর্যের পরে অস্ত যাবে। অবশ্য দিগন্তের কাছাকাছি থাকায় বিশেষত শহর অনগচল থেকে একে চিনে নেওয়া একটু কষ্টকর। তবে মাসের ৮ তারিখে চাঁদ একে চিনতে সাহায্য করবে। 

শুক্র (শুকতারা):
আমাদের অনেকেরই আকাশের সবচেয়ে প্রিয় বস্তু শুকতারা। কিন্তু দূর্ভাগ্যের কথা এটিও বুধের মত সূর্যের খুব কাছাকাছি থাকে। ফলে একে সন্ধ্যায় বা ভোরেই শুধু দেখা যায়। এই মাসে এটি সূর্যের এত কাছে যে একে দেখা দুঃসাধ্য ব্যাপার হয়ে দাঁড়াবে। আফসোস! 
ভোরের আকাশ থেকে সন্ধ্যার আকাশে পাড়ি দেবার প্রাক্কালে জুনের ৬ তারিখে এটি একেবারে সূর্যের পেছনে থাকবে। 

সূত্রঃ Earth Sky
Category: articles

Monday, March 28, 2016

কিছু দিন সূর্যের আড়ালে থেকে আবার আবির্ভূত হতে শুরু করেছে সামার ট্রায়াঙ্গেল। একে এখন ভোরের পূবাকাশে দেখা যায়। 


ছবিতে সামার ট্র্যায়াঙ্গেল বা গ্রীষ্মের ত্রিভুজ দেখা যাচ্ছে। এখানে আছে আকাশে অন্যতম উজ্জ্বল তিনটি নক্ষত্র। এরা হল যথাক্রমে বীণামণ্ডলীর নক্ষত্র অভিজিৎ (Vega), ঈগলমণ্ডলীর শ্রবণা (Altair) এবং বকমণ্ডলীর নক্ষত্র পুচ্ছ (Deneb)।
সামার ত্রিভুজ আকাশের তারাদের একটি নকশা হলেও এটি তারামণ্ডলী নয়, বরং তারাভুজ।
গরমের দিনগুলোতে (মে-জুন মাসের দিকে) এটি মধ্য রাতে মোটামুটি মাথার উপর থাকে। বসন্ত কালে (যেমন এখন) এটি থাকে ভোরের আকাশে। আস্তে আস্তে পশ্চিমে হেলতে হেলতে নভেম্বর মাসের দিকে এটি থাকে সন্ধ্যার পশ্চিমাকাশে।

Category: articles

Thursday, February 18, 2016

এ মাসের আকাশের সেরা দৃশ্য দেখতে হলে আজকে আকাশ মিস করা উচিত হবে না।
কারণ, আজকে চাঁদ মামা বসে আছে উইন্টার সার্কেলের ভেতরে। আকাশের অন্যতম ৬টি উজ্জ্বল তারকা মিলে তৈরি এই অ্যাসটারিজমটিকে উইন্টার হেক্সাগন বা শীতের ষড়ভুজও বলে। সামার ট্রায়াঙ্গেল যেমন শীতের শুরুতেও দেখা যায়, তেমনি উইন্টার সার্কেলও শীতের পরেও আকাশে সৌন্দর্য্য বিকিরণ করা চালিয়ে যেতে থাকে।
চাঁদ ও উইন্টার সার্কেল/হেক্সাগন

উইন্টার সার্কেলের অন্যতম নক্ষত্র রিগেল আবার আদম সুরতের অংশ। আপনি আদম সুরত বা কালপুরুষ চিনে ফেললে উইন্টার সার্কেল সহজেই চিনতে পারবেন। 
রাতের আকাশের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র লুব্ধকও আছে এখানেই। 
Category: articles

Monday, February 8, 2016

লুব্ধক (Sirius) রাতের আকাশের সবচেয়ে উজ্জ্বল নক্ষত্র। কিন্তু লুব্ধককে কীভাবে খুঁজে পাব? লুব্ধক আকাশের কোন দিকে থাকে? কোন মাসে বা ঋতুতে একে ভালো দেখা যায়?
লুব্ধককে খুঁজে পেতে হলে তার আগে খুঁজে নিতে হবে আদম সুরত বা কালপুরুষ তারামণ্ডলীটিকে। খুশির খবর হচ্ছে, আদম সুরত হচ্ছে সেই সব তারামণ্ডলীর মধ্যে অন্যতম যাদেরকে সহজেই খুঁজে পাওয়া যায়।
আরো পড়ুনঃ 
☛ তারামণ্ডলীর পরিচয়

বছরের বিভিন্ন মাসের মধ্যে মে, জুন, জুলাই- এই তিন মাস আদম সুরত ও লুব্ধক সূর্যের কাছাকাছি সময়ে অস্ত যায় বলে এ মাসগুলোতে এদেরকে দেখা যায় না। আগস্টের দিকে ভোরের পূর্ব আকাশে এরা পুনরায় দেখা দিতে শুরু করে। প্রতি দিন প্রায় চার মিনিট আগে আগে এরা উদিত হয়। ফলে জানুয়ারি থেকে এপ্রিল মাসে এদেরকে সন্ধ্যার আকাশেই খুব সহজে চোখে পড়ে। এপ্রিল মাসে সন্ধ্যায় এরা থাকে পশ্চিম আকাশে। তার একটু পরেই ডুবে যায়।
লুব্ধক খুঁজে পাবার উপায় 

তবে লুব্ধক খুঁজে পাবার সেরা সময় হিসেবে আপনি ফেব্রুয়ারি মাসকে বাছাই করতে পারেন। এ সময় রাত নয়টার দিকে এটি সোজা দক্ষিণ আকাশে থাকবে, মাথার খাড়া উপর থেকে কিছুটা নিচে।
কতটা নিচে?
এটা বুঝতে হলে আপনাকে বিষুব লম্ব বুঝতে হবে। এটা না বুঝেও বের করা সম্ভব। তাই বেশি গভীরে যেতে না চাইলে বাকি অংশ না পড়লেও চলবে। লুব্ধকের বিষুব লম্ব হচ্ছে প্রায় (-১৭) ডিগ্রি। অর্থ্যাৎ, বাংলাদেশ থেকে দেখতে হলে মাথার খাড়া উপর থেকে (২৩+১৭) = ৪০ ডিগ্রি দক্ষিণে যেতে হবে।
আরো পড়ুনঃ 
বিষুব লম্ব কাকে বলে? 
খালি হাতে আকাশের ডিগ্রি মাপার কৌশল 
উজ্জ্বল তারাদের গল্প

এছাড়াও বিভিন্ন গ্রহ ও নক্ষত্রদের খুঁজে পাবার ব্যাপারে নিয়মিত আপডেট পেতে এই দুটি লিঙ্ক ফলো করুনঃ
রাতের আকাশ 
আজকের আকাশ 
Category: articles

Sunday, February 7, 2016

আদম সুরত ও লুব্ধক
শীতের আকাশে উজ্জ্বল তারাদের আধিপত্য একটু বেশিই থাকে। রাতের আকাশের অন্যতম সহজে খুঁজে পাওয়া তারামণ্ডলী আদম সুরত। এর ইংরেজি নাম Orion এবং আরেকটি বাংলা নাম কালপুরুষ। এতেই আছে দুটি টপ টেনের মধ্যে থাকা উজ্জ্বল নক্ষত্র। একটি হচ্ছে উজ্জ্বলতার দৌড়ে সপ্তম রিগেল এবং অপরটি নবম স্থানে থাকা বেটেলজিউস (Betelgeuse) বা বাংলায় আর্দ্রা।
মজার ব্যাপার হচ্ছে, এই আদম সুরতই আপনাকে অন্য উজ্জ্বল তারকাগুলো চিনিয়ে দেবে।
আদমের কোমরের তিনটি তারাকে যোগ করে দক্ষিণে যেতে থাকলে পেয়ে যাবেন রাতের আকাশের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র লুব্ধক (Sirius)।
অন্য দিকে তিনটি তারা যোগ করে উল্টো দিকে মানে উত্তরে গেলে পাবেন বৃষরাশির উজ্জ্বলতম নক্ষত্র আলডেবারান।

Category: articles

Tuesday, February 2, 2016

এক সাথে পাঁচটি গ্রহ- বুধ, শুক্র, মঙ্গল, বৃহস্পতি ও শনি দেখার সবচেয়ে ভালো সুযোগ এ মাসের প্রথম সপ্তাহটি। গত মাসের ২০ তারিখে শুরু হওয়া এই সুযোগটি চলবে এ মাসেও (২০ তারিখ নাগাদ)। প্রথম সপ্তাহে এদের আশেপাশে চাঁদের অবস্থান রাতের আকাশের সৌন্দর্য্য আরো বাড়িয়েই তুলবে। চাঁদের সাথে মঙ্গলের দেখা ২ তারিখে, শনির ৪ তারিখে, শুক্রের ৬ তারিখে এবং বুধের সাথে দেখা ৭ তারিখে। চলুন বিস্তারিত দেখি!
ফেব্রুয়ারি মাসের ২ তারিখে গ্রহদের আপাত অবস্থান

বুধঃ
জানুয়ারির শেষের সপ্তাহে বুধ গ্রহ সূর্যোদয় থেকে দূরে সরে এসে অন্য দৃশ্যমান গ্রহদের মিছিলে যোগ দেয়। এ মাসের ৬, ৭ তারিখে এটি থাকবে চাঁদের খুব কাছে। মাসের ৭ তারিখের আশেপাশের দিনগুলো বুধ গ্রহ দেখার সেরা সময়। সূর্যের প্রায় ৮০ মিনিট আগেই এ সময়গুলোতে বুধ ভোরের পূবাকাশে তার অস্তিত্ব জানান দেবে। মাসের ১১ তারিখ থেকে ১৫ তারিখ এটি শুক্রের খুব কাছে থাকবে।
মার্চ মাসের ২৩ তারিখে এটি আবার চলে যাবে সন্ধ্যার আকাশে। উল্লেখ্য, এই গ্রহটিই সবচেয়ে বেশি ভোর ও সন্ধ্যার আকাশে আসা-যাওয়া করে।
বুধ ও শুকতারা


শুক্রঃ
এ মাসে শুক্রের অবস্থান অপর দুই গ্রহ বুধ ও শনির মাঝখানে। গত মাসেই শনি এর উপরে চলে এসেছিল। রাতের আকাশের জনপ্রিয় বস্তু শুকতারা এ মাসে দ্রুত সূর্যের কাছাকাছি হচ্ছে। মাসের শুরুতে এটি সূর্যের ২ ঘণ্টা আগে উদিত হলেও মাসের শেষের দিকে পূবাকাশে দেখা দিতে দিতে সূর্যোদয়ের এক ঘণ্টা বাকি থাকবে। মাসের ৬ তারিখে এটি থাকবে চাঁদের কাছে। মাসের ১১ থেকে ১৫ তারিখে এটি বুধের এত কাছে থাকবে যে দুজনকে এক সাথে বাইনোকুলারে দেখা যাবে।
চাঁদ, বুধ ও শুক্র

বৃহস্পতিঃ
ইদানিং রাতের আকাশে সবার আগে উপস্থিত হয় বৃহস্পতি। মধ্য রাতের আগেই শুভকাজটি সেরে ফেলে গ্রহরাজ। অন্য দিকে মাসের শেষের দিকে এটি সূর্যাস্তের একটু পরেই (প্রায় দেড় ঘণ্টা) পূর্ব আকাশে দেখা দেবে। এ মাসে মঙ্গল ও বৃহস্পতি দুজনেই বেশ উর্ধ্বাকাশে (দিগন্ত থেকে অনেক উপরে) থাকবে। ২৩ ও ২৪ ফেব্রুয়ারি তারিখে বৃহস্পতি থাকবে চাঁদের খুব কাছাকাছি।
 

মঙ্গলঃ
বৃহস্পতি বা শুক্রের মত এতটা উজ্জ্বল না হলেও এ মাসে মঙ্গলকে খুব সহজে দেখা যাবে। এ মাসে এর অবস্থান শনি ও বৃহস্পতির মাঝখানে। কন্যামণ্ডলীর উজ্জ্বলতম নক্ষত্র চিত্রা (Spica) এ মাসে এর কাছাকাছি থাকলেও মঙ্গলের লাল রঙ একে চিনতে সুবিধা করে দেবে। খালি চোখে অসুবিধা হলে বাইনোকুলার ঠিকই দুইয়ে দুইয়ে চার মিলিয়ে দেবে। এ বছরে আগস্টের সন্ধ্যার আকাশে মঙ্গল ও শনি খুব কাছাকাছি থাকবে। আগামী কয়েক মাস মঙ্গল ক্রমেই উজ্জ্বল হতে থাকবে এবং মে মাসে এটি উজ্জ্বলতার শীর্ষে পৌঁছে বৃহস্পতির সাথেও টেক্কা দেবে যেখানে শুক্রের পরে ২য় উজ্জ্বল গ্রহের তিলক বৃহস্পতির কপালে। 
চাঁদ ও মঙ্গল গ্রহ

শনিঃ
পুরো মাস জুড়ে শনি থাকবে ভোরের গ্রহ। মাসের শুরুতে এটি সূর্যোদয়ের ৪ ঘণ্টা ও মাসের শেষের দিকে ৫ ঘণ্টা আগে উদিত হবে। মাসের ৪ তারিখে চাঁদের সাথে অবস্থান একে খুঁজে পেতে ভূমিকা পালন করবে। এটিই সৌরজগতের সবচেয়ে দূরের বস্তু যা আমরা খালি চোখে দেখতে পাই। 
তো! দেখতে থাকুন! 
Category: articles

Monday, February 1, 2016

শুক্র গ্রহের একটি অন্যতম ডাক নাম শুকতারা। অন্য দিকে একে সন্ধ্যাতারাও বলা হয়। অথচ বেচারা মোটেই তারা বা নক্ষত্র নয়, সৌরজগতের একটি গ্রহ মাত্র। ইংরেজিতেও একে ভুল করে star বলা হয়- যথাক্রমে Morning star ও Evening star। কিন্তু নক্ষত্র বা তারা না হওয়া সত্ত্বেও একে কেন তারা বলা হয়? এর তো নিজস্ব আলো নেই। এটিও চাঁদের মতই সূর্যের আলোই প্রতিফলিত করে।
ভোরের আকাশে শুকতারার ছবি 

শুক্র গ্রহ পৃথিবীর চেয়ে সূর্যের নিকটে থাকায় এর কক্ষপথ পৃথিবীর চেয়েও ভেতরের দিকে। এ কারণে, বুধের মতই এটিও সব সময় সূর্যের কাছাকাছি অবস্থান করে। পৃথিবীর আকাশে এটি যখন সূর্যের পেছনে থাকে (সূর্যের পরে উদয়-অস্ত ঘটার কারণে), তখন সূর্যাস্তের পরেই পশ্চিমাকাশে এটি উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বল থাকার সময়গুলোতে এটি সূর্য ডোবার কয়েক মিনিট পরেই দৃশ্যমান হয়ে ওঠে। এ সময় একে আমরা সন্ধ্যাতারা বলি (Evening star)।
অন্য দিকে, এটি পৃথিবীর আকাশে সূর্যের চেয়ে এগিয়ে থাকলে এটি সূর্যের আগেই অস্ত যায়। এ সময় একে সন্ধ্যার আকাশে দেখা যায় না। কিন্তু সূর্যের আগে অস্ত গিয়েছে এ কারণেই যে এটি আসলে ভোরে উদিতও হয়েছিল সূর্যের আগে। ফলে, এই সময়গুলোতে একে ভোরের আগে পূবাকশে দেখা যায়। সূর্য উদিত হয়ে এর আলোতে মিলিয়ে যায় এর আলো। এ অবস্থায় একে আমরা বলি সন্ধ্যাতারা।

প্রাচীন গ্রিকরা শুকতারা ও সন্ধ্যাতারাকে দুটি আলাদা বস্তু মনে করত। তারা এদেরকে যথাক্রমে ফসফোরস (Phosphoros) ও হেসপেরোস (Hesperos) নাম দিয়েছিল। প্রথমটির অর্থ আলো আনয়নকারী ও সন্ধ্যার তারা। কয়েকশো বছর পরে তারা বুঝতে পারে যে, এরা দুজন আসলে একই বস্তু।
সূত্রঃ
১। ইউনিভার্স টুডে
Category: articles

Thursday, January 28, 2016

সৌরজগতের গ্রহগুলোর মধ্যে রাতের আকাশে খালি চোখে দেখা যায় ৫টি- বুধ, শুক্র (শুকতারা), মঙ্গল, বৃহস্পতি ও শনি। এই বছর এক মাস যাবত (জানুয়ারির ২০ থেকে ফেব্রুয়ারির ২০) এদের সবাইকে একত্রে ভোরের আকাশে দেখা যাচ্ছে। এটা দারুণ একটি দৃশ্য। এর আগে সর্বশেষ এই সুন্দর দৃশ্যের অবতারণা হয়েছিল ২০০৪ সালের ডিসেম্বরে। সে এক যুগ আগের কথা।
দৃশ্যমান এই গ্রহদের মধ্যে সবার আগে রাতের আকাশে হাজির হচ্ছে বৃহস্পতি। মধ্য রাতের কাছাকাছি সময়। দিন গড়াবার সাথে সাথে আগের দিনের চেয়ে আগে। মধ্য রাতের পরে হাজির হবে মঙ্গল। এর পর একে একে হাজির হবে শনি, শুক্র ও বুধ। বুধ অবশ্যই সবার শেষে। কারণ, বেচারা সব সময় সূর্যের কাছাকাছি থাকে।
কখন আবার সব গ্রহকে এক সাথে দেখা যাবে?
খুশির খবর হচ্ছে এ বছরই! সাথে দুঃখের খবর হচ্ছে, অফারটা খুবই সংক্ষিপ্ত! আগস্টের ১৩ থেকে ১৯- তাও উত্তর গোলার্ধের আকাশ সেই দৃশ্য দেখার জন্য খুব একটা সুবিধার জায়গা নয়।



Category: articles

Tuesday, January 26, 2016

আজ রাতে চাঁদ ও বৃহস্পতি দারুণ একটি দৃশ্য উপহার দিচ্ছে। ছবিতে এই দৃশ্যের সৌন্দর্য্য তুলে ধরা কঠিন। বিশ্বাস না হলে একবার জানালা দিয়ে উঁকে মেরে দেখুন। না দেখা গেলে সম্ভব হলে ছাদে চলে যান। 
Category: articles

Thursday, January 21, 2016

এ মাসে গ্রহরা দারুণ একটি প্রদর্শনী উপহার দিচ্ছে। জানুয়ারির ২০ তারিখ থেকে এক মাসের জন্যে সবাই একত্রে ভোরের পূবাকাশে থাকবে। কে কখন কোথায় থাকবে, চলুন জেনে নিই।
শুক্র, শনি ও মঙ্গলের অবস্থান (২১ জানুয়ারি, ভোর ৫ঃ৫০, পূর্ব আকাশ) 

বুধ (Mercury): মাসের শুরুর দিকে পশ্চিমাকাশে থাকবে। এ সময় একে আমাদের উত্তর গোলার্ধ থেকে দেখা যাবে। মাসের ১৪ তারিখে বুধ (Mercury) সুর্য ও পৃথিবীর সাথে একই রেখা বরাবর অবস্থান করবে। এই অবস্থানকে অন্তঃসংযোগ (Inferior Conjunction) বলে। অন্তঃসংযোগ শুধু পৃথিবী ও সূর্যের মাঝে অবস্থিত দুইটি গ্রহ- বুধ এবং শুক্রের পক্ষেই সম্ভব। অন্য গ্রহরা পৃথিবী ও সূর্যের সাথে একই রেখায় আসলে বহিঃসংযোগ (Superior Conjuction) ঘটে।
উক্ত তারিখের পর গ্রহটি পূবাকাশে পাড়ি জমাবে। এ সময় অবশ্য এটি দক্ষিণ গোলার্ধ থেকে দেখা সহজতর হবে।
শুক্র (Venus): এ মাসেরও পুরোটা সময় এটি ভোরের পূবাকাশে  থাকবে। মাসের শুরুর দিকে শনি এর খুব কাছাকাছি থাকবে। মাসের ১০ তারিখে শনি শুক্রের উপরে উঠে আসবে। মাসের শুরুর দিকে এটি সূর্যের ৩ ঘন্টা আগে ও শেষের দিকে ২ ঘণ্টা আগে ভোরের পূবাকাশে দেখা দেবে।
বৃহস্পতিঃ
ইদানিং এই গ্রহটি সবার আগে রাতের আকাশে হাজির হয়। মাসের শুরুর দিকে মধ্য রাতের আগেই উদিত হবে। দিন গড়াবার সাথে সাথে উদয়কাল নেমে আসবে ৯টার দিকে।
মঙ্গলঃ
এর অবস্থান থাকবে বৃহস্পতি ও শুক্রের মাঝে। কাছাকাছি অবস্থানে চিত্রা (Spica) নক্ষত্রও থাকবে। কিন্তু গ্রহটির লাল আলো একে আলাদাভাবে চিহ্নিত করতে সুবিধা করে দেবে। আগামী মে মাসে এটি সবচেয়ে উজ্জ্বল হবে। অবিশ্বাস্য হলেও এটি তখন বর্তমান অবস্থায় বৃহস্পতির উজ্জ্বলতার সমান হবে।
শনিঃ
মাসের শুরুতে এটি দেখা যাবে সূর্যের ২ ঘণ্টা আগে। মাস শেষ হতে হতে এই সময় হয়ে যাবে ৪ ঘণ্টা।


সূত্রঃ
১। স্পেইস ডট কম
২। Earth Sky
Category: articles

Sunday, December 27, 2015

আজ বা আসন্ন কয়েক দিনের মধ্যে যে কোন মেঘ বা কুয়াশামুক্ত সন্ধ্যায় সূর্যাস্তের ঠিক পরপরই আপনি পশ্চিমাকাশে তিনটি উজ্জ্বল তারকা দেখতে পাবেন। এদেরকেই একত্রে বলা হয় সামার ট্রায়াঙ্গেল (Summer triangle) বা গ্রীষ্মের ত্রিভুজ। ত্রিভুজটি কোন তারামণ্ডলী নয়, একটি তারাচিত্র (Asterism) মাত্র।

শীতকালে গ্রীষ্মের ত্রিভুজ! কেমন অদ্ভুত বিষয়, তাই না? আসলে একে সামার ট্রায়াঙ্গেল বলার কারণ হচ্ছে, আমাদের উত্তর গোলার্ধে গ্রীষ্মকালে এই তারাচিত্রটি মাথার উপরে থাকে। তিনটি আলাদা তারামণ্ডলীর উজ্জলতম নক্ষত্র ত্রিভুজের তিন শীর্ষে বসে আছে। বীণামণ্ডলীর (Lyra) অভিজিৎ (Vega), বকমণ্ডলীর পুচ্ছ (Deneb) এবং ঈগলমণ্ডলীর শ্রবণা (Altair) হচ্ছে এই তিনটি তারকা।
শীঘ্রই এরা সূর্যের আভায় আবৃত হয়ে যাবে। বেশ কিছু দিন দেখা যাবে না। ২/৩ মাস পরে আবার হাজির হবে ভোরের আকাশে।

সূত্রঃ
১। আর্থ স্কাই
২। বাংলা উইকিপিডিয়াঃ নক্ষত্রমণ্ডল
Category: articles

Wednesday, December 2, 2015


আপনি যদি গ্রহদের ভক্ত হন, তবে এ মাসেও আপনাকে ভোরের আগে আগে বিছানা ছাড়তে হবে। পুরো ডিসেম্বর জুড়ে সবচেয়ে চমৎকার গ্রহ শুক্র এবং বৃহস্পতি। এরা যথাক্রমে রাতের আকাশের প্রথম ও দ্বিতীয় উজ্জ্বল বস্তু। মেঘহীন ভোরের পূবাকাশে এদেরকে খুঁজে না পাওয়া অসম্ভব। অন্য দিকে একটু অনুজ্জ্বল মঙ্গল থাকবে এদের মাঝখানে। মাসের মাঝামাঝিতে শনি এসে ভোরের মিছিলে যোগ দেবে। আরেকটি দৃশ্যমান গ্রহ বুধ। এটি এ মাসে সন্ধ্যার আকাশে থাকলেও সূর্যের খুবই কাছাকাছি থাকায় মাসের প্রথম দুই তৃতীয়াংশ সময়ই দেখা যাবে না।
উল্লেখযোগ্য দৃশ্যঃ
মাসের ৪ তারিখে চাঁদ থাকবে বৃহস্পতির নিচে
মাসের ৭ তারিখে চাঁদ ও শুক্রের ঘনিষ্ঠ দৃশ্য।
মাসের মাঝামাঝিতে শনি হাজির হবে শুক্রের নিচের দিকে।

সূত্রঃ
১। Earth Sky
Category: articles

Saturday, November 21, 2015


খালি চোখে একটি এবং টেলিস্কোপে রঙিন ডাবল স্টার মনে হলেও এখন জানা গেছে আলম্যাক আসলে ৪টি তারকার মিলিত আলো  
এটা ঠিক যে অ্যান্ড্রোমিডা তারামণ্ডলীতে অবস্থিত একই নামের গ্যালাক্সিটিই আমাদের কাছে বেশি পরিচিত। তবে, এই অ্যান্ড্রোমিডা তারামণ্ডলীতেই রয়েছে সমগ্র আকাশের অন্যতম দারুণ একটি ডাবল স্টার আলম্যাক। এর আনুষ্ঠানিক নাম গামা এ্যান্ড্রোমিডি (Gamma Andromedae)। এর দুটি অংশের একটিকে টেলিস্কোপে সোনালী এবং অপর অংশকে নীল আসমানী দেখায় (উপরের ছবি দেখুন)। গবেষণার আরেকটু গভীরে গিয়ে শেষমেশ জানা গেল এই তারার আলোর উৎসের মূলে রয়েছে আসলে চারটি তারা! একের ভেতর চার!



খুঁজে পাবার উপায়ঃ


অ্যান্ড্রোমিডা তারামণ্ডলী রূপকথায় একটি মেয়ের নাম। আর মেয়েটির বাম পায়ের তারাটিই হচ্ছে আলম্যাক। পেগাসাস বর্গের আলফেরাজ তারকা থেকে দুটি লাইন চলে গেছে পেগাসাস নামক উড়ুক্কু ঘোড়ার পেছনের দিকে। এই লাইনদ্বয় অ্যান্ড্রোমিডা তারামণ্ডলীর সম্পত্তির সম্পত্তি।
আলফেরাজ তারকা থেকে শুরু করে নিচের লাইন বরাবর চতুর্থ তারকাটি হচ্ছে আমাদের আজকের আলোচ্য তারা। দ্বিতীয় ক্রমের উজ্জ্বল তারকাটি সপ্তর্ষীমণ্ডলীর প্রদান সাতটি তারকার কাছাকাছি উজ্জ্বল।



এই তারাটি, আসলে বলা উচিত তারাব্যবস্থাটি (Star system) ৩৫০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত।

একের ভেতর চারঃ
একে খালি চোখে একটি তারাই মনে হবে। কিন্তু টেলিস্কোপে দেখে বোঝা যাবে আসলে এখানে দুটি তারা আছে। বড়টি দেখতে সোনালী, আর ছোটখানা নীল। এই রঙিন জোড়ের সৌন্দর্য্য প্রত্যক্ষ করতে ৭৫ এক্স বিবর্ধনের টেলিস্কোপ প্রয়োজন। কোন কোন বিশেষজ্ঞের মত হচ্ছে, আলম্যাকের রঙের বৈচিত্র্য বকমণ্ডলীর তারকা আলবিয়েরোকেও (বকমুখ) হার মানায়। সাধারণত মনে করা হয়, আলবিয়েরো হল আকাশের সবচেয়ে সুন্দর ডাবল স্টার। শরত ও শীতের শুরুতে দুটো তারাই আকাশে থাকে। আপনি নিজেই বিচার করুন, কোনটা বেশি সুন্দর!

ইতিহাসঃ
১৭৭৮ সালে জোহান টবিয়েস মায়ের প্রাথমিক যুগের একখানা টেলিস্কোপ দিয়ে প্রথম আবিষ্কার করেন যে এটি আসলে ডাবল স্টার। এখন আমরা জানি, ছোট নীল তারাটি আসলে একটি ট্রিপল স্টার সিস্টেম। ফলে, সব মিলিয়ে আলম্যাক আসলে চার তারার মিলিত আলো।

পারসিয়াস তারামণ্ডলীর বিষম তারা এ্যালগলের কাছেই আলম্যাকের অবস্থান। এ্যালগল সর্বোচ্চ দীপ্তি প্রদর্শনের সময় আলম্যাকের সাথে সেয়ানে সেয়ানে আলো বিকিরণ করে।


সংক্ষিপ্ত প্রোফাইল
নামঃ গামা অ্যান্ড্রোমিডি (Gamma (γ) Andromedae)
তারামণ্ডলীঃ  অ্যান্ড্রোমিডা
অবস্থানঃ ২ ঘণ্টা ২২ মিনিট ৫৩ সেকেন্ড, +৪২° ১৯′
নামের উৎসঃ العناق الأرض
নামের অর্থঃ মরু বিড়াল (desert lynx)
দূরত্বঃ ৩৫০ আলোকবর্ষ
আপাত উজ্জ্বলতাঃ ২.২৬
তুলনামূলক উজ্জ্বলতাঃ অ্যান্ড্রোমিডা তারামণ্ডলীতে তৃতীয়


তথ্যসূত্রঃ
১। আর্থ স্কাই
২। ইউটিউবঃ ইংরেজি Almach এর উচ্চারণ আলম্যাক।
৩। উইকিপিডিয়াঃ Almach 
Category: articles

Thursday, November 12, 2015

ধরুন, বিদেশে গিয়ে আপনার সাথে এক বিদেশীর সাক্ষাৎ হলো। তিনি আপনাকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আপনার বাড়ি কোথায়?’
আপনার উত্তর, 'বাংলাদেশে'। এবার যদি তিনি জিজ্ঞেস করেন, ‘বাংলাদেশ কোথায় অবস্থিত?’, আপনি নিশ্চয়ই বিরক্ত হবেন। ধৈর্য্য ধরে রাখতে পারলে, বলবেন, ম্যাপে খুঁজে দেখুন। যাদের ওয়ার্ল্ড ম্যাপ সম্বন্ধে ধারণা আছে, তারা নিশ্চয় কোন দেশ বা অঞ্চলের নাম শুনেই বুঝে ফেলেন, ও আচ্ছা! আপনি ঐদিকে থাকেন, ঠিক আছে।
রাতের আকাশের দিকে তাকালে আমাদের মনে হয় যেন একটি গম্বুজের মাঝে অনেকগুলো আলোর বিন্দু সেঁটে দেওয়া আছে। বাস্তবে গম্বুজ না হলেও এই আকাশকে বলা হয় খ-গোলক (Celestial spehere)। এই খ-গোলকে তারকা, গ্যালাক্সি, উল্কা, ধূমকেতু  ইত্যাদির অবস্থান সহজে বোঝার জন্যে পুরো আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিজ্ঞান সমিতি (IAU) আকাশকে ৮৮টি অঞ্চলে ভাগ করেছে। এই ৮৮টি অঞ্চলের প্রত্যেকটিকে বলা হয় এক একটি হয় তারামণ্ডলী ( Constelation)। এই সবগুলোর মিলিত ক্ষেত্রফল পুরো আকাশের ৩৬০ ডিগ্রি অঞ্চল জুড়ে রয়েছে। তাই, আকাশের যে কোন বস্তু কোন না কোন মণ্ডলীতে অবস্থিত থাকবেই। সবচেয়ে সহজে চোখে পড়ে এমন কিছু তারামণ্ডলী হচ্ছে আদমসুরত বা কালপুরুষ, বৃশ্চিক (Scorpius), বকমণ্ডলী (Cygnus), সপ্তর্ষিমণ্ডলী (Ursa Major) ইত্যাদি।
অবশ্য তারামণ্ডলীর এই সীমানা নির্ধারণ দৈবভাবে করা হয়নি। প্রাচীন কাল থেকেই মানুষ রাতের আকাশের বিভিন্ন তারাদের তুলনামূলক অবস্থানের ভিত্তিতে আকাশে রূপকথারসহ নানারকম প্রাণী, বিভিন্ন ভঙ্গীমার মানুষসহ নানাবিধ আকৃতি কল্পনা করেছে। তবে এদের সবাই তারামণ্ডলী হিসেবে স্বীকৃতি পায়নি। কেননা, অনেক ক্ষেত্রেই একই তারা একাধিক নকশায় স্থান পেত। উপরন্তু, বিভিন্ন নকশার তারাগুলোকে আবার অন্যভাবে চিন্তা করলে আলাদা আকৃতি তৈরি হত। বর্তমানে তাই এমনভাবে সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছে যাতে একই তারা একধিক মণ্ডলীতে না থাকে। ভিন্ন তারামণ্ডলীর কিছু তারা বা একই তারামণ্ডলীর কয়েকটি তারা মিলিত হয়ে যে আকৃতির সৃষ্টি হয় এখন তাকে নাম দেওয়া হয়েছে asterism। বাংলা এখনো জ্যোতির্বিজ্ঞানে এর কোন নাম নেই। তবে একে আমরা তারাচিত্র বলতে পারি। এমন কিছু উদাহরণ হলো সামার ট্রায়াঙ্গেল, উইন্টার হেক্সাগন, সাউদার্ন ক্রস, কাস্তে, গ্রেট স্কয়ার অব পেগাসাস ইত্যাদি।
উল্লেখ্য, আকাশে তারারা আমাদের চোখে বিভিন্ন আকৃতি হিসেবে ধরা পড়লেও বাস্তবে একই তারামণ্ডলীর তারারা কিন্তু কোন চ্যাপ্টা তল বা গম্বুজে সাঁটানো নয়, বরং এক একটি তারকা পৃথিবী থেকে আলাদা দূরত্বে অবস্থিত। দূরত্ব অনেক বেশি বলেই সবাইকে একই তলে অবস্থিত মনে হয়। যেমন বলা যায় আদম সুরতের কথা। এর উজ্জ্বল তারাগুলোর দূরত্ব ২৫ আলোকবর্ষ থেকে শুরু করে ২২৫ আলোকবর্ষ পর্যন্ত বিস্তৃত।

বছরের আলাদা সময়ে আকাশে আলাদা তারামণ্ডলী চোখে পড়ে। এর কারণ দুটো- পৃথিবীর আবর্তন ও সূর্যের চারদিকে প্রদক্ষিণ। সন্ধ্যার আকাশে যে তারাদের সমাবেশ ঘটে, রাতে গড়াতে গড়াতে তারা পৃথিবীর নিজ অক্ষের চারদিকে আবর্তনের জন্যে পশ্চিমে হেলতে থাকে। যদি পৃথিবীর শুধু আবর্তনই থাকত, প্রদক্ষিণ তথা সূর্যের চারদিকে বেগ না থাকত, তবে প্রতি রাতের একই সময়ে নির্দিষ্ট কোন স্থানে একই তারা দেখা যেত। কিন্তু পৃথিবীর প্রদক্ষিণের কারণে কোন তারকা প্রতি দিন প্রায় ৪ মিনিট আগে একই জায়গায় আসে। কারণ পুরো আকাশের মোট কৌণিক ক্ষেত্রফল ৩৬০ ডিগ্রি। এই পুরো অঞ্চল পৃথিবী ৩৬৫ দিনে ঘুরে, অর্থ্যাৎ প্রতি দিন প্রায় ১ ডিগ্রি করে ঘুরতে হয়। আবার পৃথিবীর আবর্তনের জন্যে প্রতি ডিগ্রির জন্যে সময় লাগে প্রায় ৪ মিনিট।
এ জন্যেই শীত, গ্রীষ্মসহ আলাদা ঋতুতে আলাদা তারামণ্ডলী চোখে পড়ে। যেমন (উত্তর গোলার্ধের) শীতকালে আদম সুরতের দেখা মেলে, কিন্তু এ সময় বৃশ্চিকমণ্ডলী (Scorpius) হারিয়ে যায় দিনের আলোতে। আসলে কোন তারামণ্ডলী রাতে চোখে না পড়ার কারণ, এর সূর্যের সাথে সাথে বা আগেই অস্ত যাওয়া।

প্রাচীন জ্যোতির্বিদ টলেমি এইরকম ৪৮টি তারামণ্ডলী তালিকাভূক্ত করেন। তিনি অনেকগুলোই করতে পারেননি কারণ, তাঁর বাসস্থান থেকে পুরো আকাশ চোখে পড়ত না। পরবর্তীতে মুসলিম বিজ্ঞানীরা অধিকাংশ তারকা নিয়ে বিস্তারিত গবেষণা ও এদের নামকরণ করেন। তাই দেখা যায়, অধিকাংশ তারাদের বর্তমান নাম আরবি ভাষা থেকে উদ্ভূত।
এই ৮৮টি তারামণ্ডলীর মধ্যে ১৩টি তারামণ্ডলীতে সূর্য সারা বছর পর্যায়ক্রমে অবস্থান করে। এরাই মূলত রাশিচক্র। রাশিচক্র বলার কারণ সূর্য ঘুরেফিরে এদের মাঝেই থাকে। তবে সূর্য কখন কোথায় অবস্থান করে সেটার ভিত্তিতে ভবিষ্যৎ বের করার বিদ্যা তথা জ্যোতিষবিদ্যার কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। প্রকৃতপক্ষে তাদের রাশিচক্রে এখনও ১২টি তারামণ্ডলী হিসেব করা হয় এখন যা সেকেলে হয়ে গেছে।

সূত্রঃ
১। http://starchild.gsfc.nasa.gov/docs/StarChild/questions/question9.html
Category: articles

Sunday, November 1, 2015

এ মাসে সংক্ষেপে জানাচ্ছি। আমরা জানি, রাতের আকাশে ৫টি গ্রহ খালি চোখে দেখা যায়- শুক্র, বৃহস্পতি, শনি, মঙ্গল ও বুধ। চলুন দেখি, এ মাসে কাদেরকে কোথায় দেখা যাবে।
নভেম্বরের ১২ তারিখের দৃশ্য
এ মাসের সন্ধ্যার একমাত্র গ্রহ শনি।
দীর্ঘ প্রায় এক বছর ধরে রাতের আকাশ উজ্জ্বল করে শনি গ্রহ এই মাসে হারিয়ে যেতে বসেছে রাতের আকাশ থেকে। বিদায় শনি! এর কারণ এ মাসের মাঝামাঝিতে এটি পৃথিবী ও সূর্যের সাথে একই রেখা বরাবর অবস্থানে চলে আসবে। ফলে এটি অস্ত যাবে সূর্যের সাথে সাথেই, এবং ক্রমান্বয়ে আগেই। এরপরে ডিসেম্বরের শেষের দিকে হাজির হবে পূবাকাশে, ভোরে সূর্যের আগেই উদিত হয়ে। এখানে একটি সহজ বিষয় মাথায় রাখা দরকার- সন্ধ্যার পশ্চিমাকাশ থেকে কোন গ্রহ হারিয়ে যাবার কিছু দিন পরেই এটি ভোরের পূবাকাশে হাজির হয়। কারণ, সন্ধ্যার আকাশ থেকে হারায় তখনি যখন ভোরে এটি সূর্যের সাথে বা আগেই উদিত হয় এবং পরিণামে যুগপৎ বা আগেই অস্ত যায়।
তবে শনির উল্টো ঘটনা ঘটবে বুধের ক্ষেত্রে- এটি ১৭ তারিখে ভোরের আকাশ থেকে সন্ধ্যার আকাশে ফিরে আসবে। অবশ্য এটি খুবই অনুজ্জ্বল। অন্য দিকে শুক্র, বৃহস্পতি ও মঙ্গল থাকবে ভোরের আকাশেই।
মাসের শুরুর দিকে ভোরের ২/৩ ঘণ্টা আগে বৃহস্পতির উদয় ঘটলেও দিন গড়াতে গড়াতে মাসের শেষের দিকে এর উদয় ঘটবে মধ্য রাতের পরেই। আর এক্ষেত্রে অন্য সবার চেয়ে এই গ্রহটি এগিয়ে থাকবে।
সূত্রঃ
১। আর্থ স্কাই
Category: articles

Sunday, October 11, 2015

আপনি যদি নতুন তারা দেখা শুরু করেন অথবা তারা দেখতে দেখতে বুড়োও হয়ে যান (অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে!)- দুই ক্ষেত্রেই আপনার সেরা বন্ধু হবে একখান দুরবিন বা বাইনোকুলার। আসুন, জেনে নিই দুরবিন সম্পর্কে কিছু প্রয়োজনীয় বিষয় এবং রাতের আকাশে আপনি এটা দিয়ে কী কী দেখতে পাবেন।

১. তারা দেখা শুরু করতে টেলিস্কোপের চেয়ে বেশি ভালো কাজে আসে এই দুরবিন
প্রকৃতপক্ষে টেলিস্কোপ কিনতে আগ্রহী অধিকাংশ তারাপ্রেমীরই উচিত টেলিস্কোপ কেনার আগে প্রায় ১ বছর ধরে দুরবিন দিয়ে কাজ চালানো। কারণ, প্রথম বার টেলিস্কোপ ব্যবহার করতে গিয়ে পড়তে হয় বিপত্তিতে। কারণ, একই সাথে জটিল একটি যন্ত্রের পরিচালনা এবং রাতের আকাশের সাথে প্রাথমিক পরিচয়-কাজ দুটো একসাথে করতে মানিয়ে নেওয়া সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।
বাজারে প্রাপ্ত একটি মোটামুটি মানের দুরবিনই রাতের আকাশের প্রত্যাশিত দৃশ্য তুলে ধরতে সক্ষম হবে। যন্ত্রের বিবর্ধন (Magnification) ও আলোক সমাবেশ ক্ষমতার (Light-gathering power) সমন্বয়ে আকাশ হয়ে ওঠে কয়েকগুণ বেশি জ্বলমলে। একটি ৭ × ৫০ বাইনোকুলারও খালি চোখের চেয়ে ৭ গুণ বেশি বস্তু চোখের সামনে সামনে হাজির করতে পারবে। মাসের বা বছরের কোন সময় কী দেখবেন তার খোঁজখবর রাখতে নিয়মিত পড়ুন আমাদের রাতের আকাশ সেকশন। এ কাজে প্লেনিস্ফিয়ারও ভালো কাজে আসতে পারে।
২. ছোট এবং সহজে ব্যবহারযোগ্য দুরবিন দিয়ে শুরু করুন
শুরুতেই বিশাল সাইজের দুরবিন কিনলে বিপত্তিতে পড়তে হবে যদি না আপনি ট্রাইপডও কেনার ইচ্ছা করেন। অন্যথায় দুরবিনখানি আপনার হাতে থেকে আপনার কথা শোনার চেয়ে অভিকর্ষের কথা শোনার দিকে বেশি মনযোগ দেবে যার পরিণাম, কাঁপাকাঁপি আর অস্থির আকাশ। নতুনদের জন্য ৭ × ৫০ আকারের দুরবিনই যথেষ্ট যা দেখাবেও অনেক কিছু, হাতেও বসে থাকবে ভদ্রভাবে। চাইলে পাখি দেখাসহ অন্য কাজেও সহজেই ব্যবহার করতে পারবেন আলোকযন্ত্রটি।
৩. দুরবিন দিয়ে চাঁদ দেখুন
দুরবিন কেনার শুরুর দিনগুলোতে আপনি চাঁদের বিভিন্ন দশা (Phase) যেমন পূর্ণচাঁদ তথা পূর্ণিমা, ক্রিসেন্ট বা অর্ধচন্দ্র (Crescent) ইত্যাদি দেখা শুরু করে দিতে পারেন। অবশ্য আপনি আমাদের মিল্কিওয়ে গ্যলাক্সি বা তারও বাইরে অন্য কোন গ্যালাক্সির দূর আকাশের বস্তুগুলো (deep-sky objects) দেখতে চাইলে স্বভাবতই চাঁদকে এড়িয়ে যেতে চাইবেন। কিন্তু চাঁদ নিজেই একটি দর্শনীয় বস্তু। মনে রাখতে হবে, দুরবিন দিয়ে চাঁদ দেখার সেরা সময় হচ্ছে গোধূলীর (Twilight)। এই সময় এর আলোর তীব্রতা থাকবে কম এবং দেখা যাবে অনেকটা বিস্তারিত। দেখতে পারেন চন্দ্রসাগর (Maria) নামে পরিচিত অগ্ন্যুৎপাতের ফলে চাঁদে সৃষ্ট কালো সমতল অঞ্চলও।
৪. চলুন, এবার গ্রহ দেখি
আমাদের রাতের আকাশ সেকশনে আপনি নিয়মিত গ্রহদেরও খোঁজখবর পাবেন। আমরা জানি, সৌরজগতের আটটি গ্রহের মধ্যে খালি চোখে দেখা যায় শুধু ৫টি- বুধ, শুক্র, মঙ্গল, বৃহস্পতি ও শনি। ইউরেনাস ও নেপচুন খালি চোখে ধরা দেয় না। অবশ্য ভুল বলা হলো, আরেকটিও খালি চোখে দেখা যায়- আমাদের প্রিয় নীল গ্রহটি যাতে আমরা বাস করি!
চলুন দেখে নিই উপরোক্ত ৫টি গ্রহ দুরবিনে কেমন দেখাবে।
বুধ ও শুক্রঃ
এরা দুজনেই অভ্যন্তরীণ তথা ভেতরের দিকের (Inner) গ্রহ। এদের ক্ষেত্রে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করার কক্ষপথ পৃথিবীর চেয়ে ক্ষুদ্র। এ কারণেই অনেক সময় গ্রহ দুটি চাঁদের মত বিভিন্ন দশা প্রদর্শন করে থাকে। ঘটনাটি ঘটে পৃথিবী ও সূর্যের মাঝপথ পাড়ি দেবার সময়। দুরবিন আপনাকে এদের দশা ফাঁস করে দিতে সহায়তা করবে।
মঙ্গলঃ
লাল এই গ্রহটি আসলেই দেখতে লাল। আর দুরবিন এর তীব্রতা আরো বাড়িয়ে তুলবে। আকাশের তারাদের তুলনায় (যারা সত্যিই তারা, গ্রহ নয়) মঙ্গলের গতি অনেকটা বেশি। এ সময় আপনি দুরবিনের সাথে আপনার বন্ধুত্বকে রাঙিয়ে নিতে পারেন।
বৃহস্পতিঃ
এবার শুরু আসল খেলা! নতুনদের জন্যেও বৃহস্পতি একটি দারুণ শিকার। দুরবিন স্থিরভাবে ধরে রাখতে পারলে বৃহস্পতি আপনার সামনে তার চারটি উপগ্রহও প্রকাশ করে দেবে। এগুলো সর্বপ্রথম গ্যালিলিও তাঁর স্ব-আবিষ্কৃত প্রতিসারক টেলিস্কোপ দিয়ে পর্যবেক্ষণ করেন। এ জন্যে এদেরকে বলা হয় গ্যালিলীয় উপগ্রহ। দুরবিন দিয়ে দেখলে বোঝা যাবে যে বিভিন্ন রাতে গ্রহটির উপগ্রহগুলোর অবস্থান থাকে ভিন্ন ভিন্ন জায়গায়।
শনিঃ
যদিও শনির বলয় (Ring) দেখতে হলে টেলিস্কোপ ছাড়া উপায় নেই, কিন্তু দুরবিন আপনাকে এর সোনালী রঙ অন্তত দেখাবে। অভিজ্ঞ দর্শকরা অবশ্য শনির বৃহত্তম উপগ্রহ টাইটানও (Titan) দেখতে পান। একটু শক্তিশালী দুরবিন ব্যবহার করলে আপনি দেখবেন যে শনি আসলে পুরোপুরি গোলাকার (Round) নয়, কিছুটা উপবৃত্তাকার (Elliptical)।
ইউরেনাস ও নেপচুনঃ
খালি চোখে ধরা না পড়লেও দুরবিনের চোখে ধরা পড়ে যায় সৌরজগতের সর্ববহিস্থ গ্রহ দুটি। ইউরেনাসের বায়ুমণ্ডলে মিথেন গ্যাস থাকায় একে দেখাবে সবুজাভ। বছরে একবার ইউরেনাস খালি চোখে ধরা পড়ার মত উজ্জ্বল হয়। আরেকটু দূরবর্তী নেপচুনকে অবশ্য দেখা যাবে তারকার মতো যদিও এরও বায়ুমণ্ডল ইউরেনাসের মতই।
অনান্যঃ
গ্রহদের বাইরেও সৌরজগতের আরো কিছু বস্তু দেখতে আপনাকে সহায়তা করবে দুরবিন। খোঁজ রাখতে পারেন অনিয়মিত ধূমকেতুদের (Comet)। দুরবিনে ১২ টি পর্যন্ত গ্রহাণুও (Asteroid) দেখা যায়। আমরা যথাসম্ভব এদের আপডেট খবর ওয়েবসাইটে জানানোর চেষ্টা করবো।
৫. আমাদের হোম গ্যলাক্সি মিল্কিওয়ে দেখতে দুরবিন
পৃথিবীর নিকটবর্তী স্টার ক্লাস্টার (Star Cluster) তারাস্তবক দেখতে দুরবিন বেশ কাজে আসবে। এখানে মনে রাখার বিষয়, রাতের আকাশে আমরা যত তারা দেখি তার সবই মিল্কিওয়ের গ্যালাক্সির সম্পত্তি। তাই কিছু তারা নিয়ে গঠিত তারাস্তবক সমর্কেও একই কথা বলা চলে। বেশি দূরের ক্লাস্টার দেখতেও অবশ্য চাই টেলিস্কোপ। শীতকালের আকাশে আপনি দেখতে পাবেন কৃত্তিকা মণ্ডল (Pleiades) নামক ৭টি তারার জালি। খালি চোখে অনেকেই এখানে মাত্র ৬টি তারকা দেখলেও বাইনোকুলার আপনাকে আরো অনেকগুলো দেখিয়ে দেবে। এর দূরত্ব পৃথিবী থেকে ৪০০ আলোকবর্ষ
আরেকটি দারুণ জিনিস আপনি দেখতে পাবেন আদম সুরত তথা কালপুরুষ (Orion) তারামণ্ডলীতে। এটিও ভালো দেখা যাবে শীতকালে। এর নাম ওরিওন নেবুলা। অন্য দিকে গ্রীষ্মকালে দেখতে পাবেন ধনুমণ্ডলীতে (Sagittarius) অবস্থিত লেগুন নেবুলা। মিল্কিওয়ে নিজেই একটি দর্শনীয় বস্তু। চোখে পড়বে অনেক বেশি তারকা এবং আরো আরো নানান কিছু।
৬. মিল্কিওয়ে ছাড়িয়ে
পৃথিবীর কাছাকাছি গ্রহদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য গ্যালাক্সি এ্যান্ড্রোমিডা। খালি চোখে এটি দেখা গেলেও বাইনোকুলার এর সৌন্দর্য্য তুলে ধরবে আরো বেশি করে। পাশাপাশি দেখার মতো আরো আছে বড় ও ছোট ম্যাজেলানিক ক্লাউড।
মোটকথা আপনি নতুন তারা দেখা শুরু করলে দুরবিনই আপনার জন্যে টেলিস্কোপের চেয়ে বেশি কার্যকর ভূমিকা পালন করবে। 
Category: articles

Monday, August 31, 2015

আমরা আগেই জেনেছি, সৌরজগতের খালি চোখে দৃশ্যমান ৫টি গ্রহের মধ্যে শনিই সবচেয়ে অস্পষ্ট। কিন্তু কিছু দিন ধরেই রাতের আকাশে চলছে এই নিয়মের ব্যতিক্রম। এই ব্যত্যয় চলবে এ মাসেও। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে, এই মাসেও উত্তর গো্লার্ধের আকাশে বুধ (Mercury) সন্ধ্যার গোধূলীর আভায় লুকিয়ে থাকবে। অন্য তিনটি দৃশ্যমান গ্রহও তথা শুক্র (Venus), বৃহস্পতি (Jupiter) ও মঙ্গল (Mars) সূর্যাস্তের আগে দেখা দেবে পূর্ব দিগন্তে। বিস্তারিত জানা যাক একে একে।
বুধঃ
আমরা জানি, বুধ সৌরজগতের সবচেয়ে ভেতরের (Innermost) গ্রহ এবং তাই এর অবস্থান থাকে সব সময় সূর্যের কাছাকছি। ২০১৫ সালের জুলাই মাসে গ্রহটি ভোরের আকাশ থেকে সন্ধ্যার আকাশে পাড়ি দিয়েছিল। সেপ্টেম্বরের শেষ পর্যন্ত এটি সন্ধ্যার আকাশেই থাকবে। তবে, গত কয়েক মাসের মতোই উত্তর গোলার্ধের আকাশপ্রেমীদের এই গ্রহটি দেখার ব্যাপারে কিছুটা হতাশ হতে হবে। উল্টো দিকে দক্ষিণ গোলার্ধে কিন্তু বছরের সবেচেয়ে ভালো সাজে দেখা যাবে গ্রহটিকে।
দক্ষিণ ও ক্রান্তীয় উত্তর অঞ্চলে (কর্কটক্রান্তি রেখা) গ্রহটি সূর্যের ২ ঘণ্টা পর পর্যন্ত দিগন্তের উপরে থাকবে। মধ্য-উত্তর গোলার্ধে সূর্যাস্তের  ১ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যেই বুধও অস্ত যাবে। আরো উত্তরে দুরবিন দিয়েও একে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর হবে। মাস শেষে গ্রহটি সন্ধ্যার আকাশ থেকে লাফ দিয়ে চলে যাবে ভোরের আকাশে। অক্টোবরে অবশ্য উত্তর গোলার্ধে একে ভালোই চোখে পড়বে।

শনিঃ
পুরো সেপ্টেম্বর মাসেই মেঘমুক্ত আকাশে সন্ধ্যা নামার সাথে সাথেই শনি গ্রহ দৃষ্টির সামনে চলে আসবে। উত্তর অক্ষাংশ অঞ্চলে সন্ধ্যার কয়েক ঘণ্টা পর পর্যন্ত শনি দিগন্তের উপরে হাজির থাকবে। তবে, দক্ষিণ গোলার্ধের আকাশে গ্রহটি আরো বেশি সময় এমনকি মধ্য রাত পর্যন্ত জ্বলজ্বল করবে।
কিভাবে চেনে যাবে গ্রহটিকে? অনেক দিন ধরেই এটি দক্ষিণ-পশ্চিম আকাশের কাঁকড়াবিছার মতো আকৃতির তারামণ্ডলী বৃশ্চিকের সামনে অবস্থান করছে। দেখতে সোনালী রঙ এর গ্রহটি স্থির আলো প্রতিফলিত করে। অর্থ্যাৎ, এটি নক্ষত্রের মত মিটমিট করে জ্বলে না। এ মাসে একে চাঁদের পাশে দেখা যাবে। তারিখটি হচ্ছে ১৮ সেপ্টেম্বর। দুরবিন ছাড়া কখোনই এর উপগ্রহগুলো চোখে পড়ে না।

শুক্রঃ
সেপ্টেম্বরের ২১ তারিখকে কেন্দ্র করে এক সপ্তাহ জুড়ে শুকতারা শুক্র এই মাসে নিজের সবচেয়ে উজ্জ্বল আলো প্রতিফলিত করবে। দৃশ্যমান অবস্থায় একে চিনতে কখোনোই ভুল হয় না। কারণ, এটি পৃথিবীর আকাশের ৩য় উজ্জ্বলতম বস্তু যেখানে ১ম ও ২য় বস্তুদ্বয় এর সাথে তুলনীয়ই নয়। কারণ, এরা হলো যথাক্রমে সূর্য ও চন্দ্র।
তবে গ্রহটিকে দেখে মুগ্ধ হবার জন্যে ২১ তারিখ পর্যন্ত অপেক্ষা করার কোন মানে নেই। কারণ, পুরো মাসেই পূবাকাশে ভোরের আলো ফুটে ওঠার আগেই গ্রহটি উজ্জ্বলভাবে চোখে ধরা দেবে। পাশাপাশি অনুজ্জ্বল গ্রহ মঙ্গলকে খুঁজে পেতেও কাজে আসবে গ্রহটি। সেপ্টেম্বরের ৯, ১০ ও ১১ তারিখে অপসৃয়মান ক্রিসেন্ট মুনের (অর্ধ-চন্দ্র) সাহায্যে  শুক্র (Venus), বৃহস্পতি (Jupiter), ও মঙ্গলকে খুঁজে পাওয়া যাবে।


মঙ্গলঃ 
জুনের মাঝামাঝিতে মঙ্গল ভোরের আকাশে পাড়ি দিয়েছিল। সূর্যের চারদিকে পৃথিবী ও মঙ্গলের কক্ষীয় গতি প্রায় সমান। পৃথিবীর ক্ষেত্রে বেগটি যেখানে সেকেন্ডে ১৮ মাইল, মঙ্গলের ক্ষেত্রে তা ১৫। ফলে সূর্যোদয়ের আভা থেকে গ্রহটি রেহাই পেতে সময় লেগে যায়। তবে একবার রেহাই পেলে তা কিছু দিন বলবৎ থাকে। এটিই ঘটছে দক্ষিণ গোলার্ধের আকাশে গত কয়েক মাস ধরে।
এই মাসে শুক্রের ভোরের আকাশে উপস্থিতি মঙ্গলকে খুঁজে পেতে সুবিধা করে দিয়েছে। তারিখ যতোই এগোতে থাকবে, গ্রহটি সূর্যোদয়ের ততোই আগে দেখা যেতে থাকবে এবং দেখাও যাবে ক্রমান্বয়ে দিগন্ত থেকে বেশি উপরের দিকে। পুরো মাস জুড়ে মঙ্গলের কাছাকাছি অবস্থান করে শুক্র গ্রহটিকে খুঁজে পাবার ক্ষেত্রে লাইটহাউসের ভূমিকা পালন করবে।

বৃহস্পতিঃ
পৃথিবীর আকাশে অন্য যে কোন নক্ষত্রের চেয়েও সৌরজগতের বৃহত্তম গ্রহটি বেশি উজ্জ্বল দেখায়। শুক্রের পরেই উজ্জ্বলতায় এর অবস্থান। এ বছরের আগস্টে শুক্রের সাথে সাথে এটিও চলে আসে ভোরের আকাশে। তবে, এ মাসে মঙ্গল বা শুক্রের চেয়ে এর অবস্থান সূর্যের আভার বেশি কাছে। তবে তারিখ গড়াবার সাথে সাথে গ্রহখানা উল্লেখিত গ্রহ দুটির দিকে এগোতে থাকবে। অক্টোবরের ১৭ তারিখে এটি মঙ্গলকে ধরে ফেলবে এবং ২০১৮ সাল পর্যন্ত নিকটতম অবস্থানের রেকর্ড ধরে রাখবে।

অক্টোবরের ২৬ তারিখে এটি ধরে ফেলবে শুক্রকে এবং বছরের তৃতীয় ও শেষ মিলন ঘটাবে। একই তারিখে মঙ্গলকে সাথে নিয়ে এই তিন গ্রহ একটি চমৎকার প্রদর্শনী দেখাবে যার আবার দেখতে অপেক্ষা করতে হবে ২০২১ সাল পর্যন্ত।


তথ্যসূত্রঃ Earthsky
Category: articles