Advertisement

Friday, January 1, 2016

২০১৬ সালের ২ জানুয়ারি। এই তারিখে সূর্যের নিকটতম স্থানে পৃথিবীর অবস্থান। এটা অবশ্য আন্তর্জাতিক সময়ের হিসাবে। গ্রিনিচ মান সময় অনুযায়ী ঘটনাটি ঘটবে ঐ দিনের রাত ১০টা ৪৯ মিনিটে যা আমাদের বাংলাদেশ সময় অনুসারে ৩ তারিখ ভোর ৪ টা।
সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর কক্ষপথ উপবৃত্তাকার হওয়ায় কিছু সময় আমরা সূর্যের খুবই কাছে থাকি, আবার অন্য সময় থাকি দূরে। উপরোক্ত তারিখে সূর্যের সাপেক্ষে পৃথিবীর অবস্থানকে অনুসূর (Perihelion) বলা হয়। প্রত্যেকে বছরই জানুয়ারি মাসে পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে। অন্য দিকে, জুলাই মাসে অবস্থান হয় সবচেয়ে দূরে। এই অবস্থানটিকে বলা হয় অপসূর (Aphelion)।

জুলাই ও জানুয়ারি মাসে সূর্য থেকে পৃথিবীর দূরত্বের পার্থক্য হয় ৫০ লক্ষ কিলোমিটার। তবু, এই দূরত্ব খুব বেশি নয়। কারণ, এই দূরত্বটুকুও পৃথিবী ঋতু পরিবর্তনের হাতিয়ার নয়। এ কারণেই, জানুয়ারি মাসে আমরা সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকি, তবু এ সময় উত্তর গোলার্ধে শীতকাল থাকে। অন্য দিকে জুলাই মাসে সূর্য দূরে সত্ত্বেও থাকে গরম। আসলে শীত বা গরমের নিয়ামক সূর্য-পৃথিবীর দূরত্ব নয়, বরং পৃথিবীর কক্ষীয় নতি। আমরা জানি পৃথিবী এর আবর্তন অক্ষের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে। এ জন্যেই উত্তর গোলার্ধে যখন শীত, দক্ষিণ গোলার্ধে তখন গরম। সূর্যের অবস্থানের জন্যে যদি শীত বা গরম হত, তবে একই সাথে পুরো পৃথিবীতে শীত বা গরম অনুভূত হত।
এ বছরের জানুয়ারির ২ তারিখে সূর্য পৃথিবী থেকে ১৪৭, ১০০, ১৭৬ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। অন্য দিকে অপসূর অবস্থানে এই দূরত্ব দাঁড়াবে ১৫২, ১০৩, ৭৭৬ কিলোমিটার। আমরা সাধারণত বলি, সূর্য পৃথিবী থেকে ১৫ কোটি কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সেটা আসলে এই দুই মানের গড় দূরত্ব।


সূত্রঃ
১। আর্থ স্কাই
২। অ্যাস্ট্রোফিক্সেল
Category: articles

Wednesday, December 9, 2015

বছরে দুই বার অয়ন ঘটে। নিরক্ষরেখার উত্তরে বা দক্ষিণে সূর্যের দূরতম অবস্থানকে অয়ন (Solstice) বলা হয়। বছরের অয়ন দুটি ঘটে জুন (সাধারণত ২১ তারিখ) ও ডিসেম্বর মাসে (সাধারণত ২২ তারিখ)। আমাদের উত্তর গোলার্ধে জুনের অয়নকে উত্তরায়ণ (Summer Solstice) এবং ডিসেম্বরের অয়নকে দক্ষিণায়ন (Winter Solstice) বলা হয়। উত্তর গোলার্ধে জুনের অয়নকে কেন্দ্র করে গ্রীষ্মকাল এবং ডিসেম্বরের অয়নকে কেন্দ্র করে শীতকাল আবর্তিত হয়। আসলে, এ কারণেই Summer Solstice কথাটিকে আমাদের বাংলায় উত্তরায়ণ বলা হচ্ছে। অন্য দিকে, দক্ষিণ গোলার্ধে এর উল্টো ঘটনা ঘটে। অর্থ্যাৎ, জুনের দিকে শীত এবং ডিসেম্বরের দিকে থাকে গরম আবহাওয়া।
দক্ষিণায়নের সময় সূর্য দক্ষিণ গোলার্ধের দিকে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকে থাকে। এই দিনটিই উত্তর গোলার্ধের ক্ষুদ্রতম দিন।

চলুন, দক্ষিণায়ন সম্পর্কে ১০টি কথা জেনে নিই।
১। একই সাথে শীত ও গ্রীষ্মের কেন্দ্রবিন্দুঃ
এই সময় আমাদের উত্তর গোলার্ধে শীতকাল থাকলেও দক্ষিণ গোলার্ধে থাকে উষ্ণ আবহাওয়া। ইংরেজরা উত্তর গোলার্ধের মানুষ হওয়ায় এবং ডিসেম্বরের অয়নের সময় এই অঞ্চলে শীত থাকায় তারা এই অয়নকে নাম দিয়েছে শীতের অয়ন (Winter Solstice)। অথচ, দক্ষিণ গোলার্ধের শীতের অয়ন কিন্তু জুন মাসে ঘটে। ফলে, ডিসেম্বরের অয়নকে দক্ষিণ গোলার্ধে ডাকা হয় গ্রীষ্মের অয়ন (Summer Solstice) নামে। এই দিক থেকে বাংলায় নামগুলো বেশ উৎকৃষ্ট। এগুলো পৃথিবীতে অবস্থানের ভিত্তিতে না করে সূর্যের অবস্থানের ভিত্তিতে করা হয়েছে। ফলে, একই শব্দ দক্ষিণায়ন দুই গোলার্ধেই প্রযোজ্য। শুধু জানতে হবে, বিপরীত গোলার্ধে একই অয়নের সময় বিপরীত ঋতু থাকে।
দক্ষিণ গোলার্ধে এই অয়নের সময় দীর্ঘতম এবং উত্তর গোলার্ধে ক্ষুদ্রতম দিন পাওয়া যায়।

২। সূর্যের অবস্থানঃ
দক্ষিণায়নের সময় সূর্য মকরক্রান্তি রেখার উপর খাড়াভাবে আলো ফেলে। অন্য দিকে, উত্তরায়নে সূর্য একই কাজ করে কর্কটক্রান্তি রেখার উপর। উল্লেখ্য, দক্ষিণায়নের সময় বর্তমানে সূর্য খ-গোলকের মকরমণ্ডলী অঞ্চলে অবস্থান করে না, করে ধনুমণ্ডলীতে।
আরো পড়ুনঃ সূর্য কখন কোথায় থাকে

৩। নির্দিষ্ট সময়ঃ
আমরা দক্ষিণায়নের জন্যে পুরো একটি ধার্য করলেও আসলে এটি ঘটে একটি নির্দিষ্ট সময়ে- যখন মকরক্রান্তির রেখায় সূর্য বরাবর মাথার উপরে থাকে। ২০১৫ সালে এটি ঘটবে ডিসেম্বরের ২২ তারিখে বাংলাদেশ সময় সকাল ১০ টা ৪৯ মিনিটে।

৪। অয়নের তারিখ পরিবর্তনশীলঃ
উত্তরায়ণের মতই দক্ষিণায়নও তারিখ বদলাতে পারে। এটি হতে পারে ডিসেম্বরের ২০, ২১, ২২ বা ২৩ তারিখে। অবশ্য ২০ এবং ২৩ তারিখে এটি কমই হয়ে থাকে। ডিসেম্বরের ২৩ তারিখে অয়ন হবার সর্বশেষ সালটি ১৯০৩ এবং পরবর্তী সাল ২৩০৩!

৫। অয়নের শাব্দিক অর্থঃ
বাংলায় অয়ন শব্দের অর্থ পথ, ভূমি বা গৃহ। এর বিশেষ একটি অর্থ সূর্যের গতি বা গতিপথ। তাহলে দক্ষিণায়ন অর্থ দাঁড়ায় দক্ষিণে সূর্যের অবস্থান বা গতি। বাস্তবে অবশ্য এটি বলতে বোঝায় সূর্যের সর্বদক্ষিণে অবস্থানের দিন বা ঘটনা। এর ইংরেজি পরিভাষা Solstice, যার উদ্ভব ঘটেছে ল্যাটিন শব্দ solstitium থেকে। এর অর্থ 'সূর্য স্থির হল' (The sun stands still)।  ঐ দিন পৃথিবী থেকে দেখতে সূর্যকে মকরক্রান্তি বা কর্কটক্রান্তি রেখার উপর স্থির মনে হয় বলে এই নামের আবির্ভাব ঘটে থাকতে পারে।

৬। জ্যোতির্বিদ্যার হিসাবে শীতের শুরুঃ
যদিও এই তারিখের আগেই শীত শুরু হয়, এই তারিখটিকে বিজ্ঞানীরা এবং বিশেষ করে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা শীতের আগমণের তারিখ হিসেবে ব্যবহার করেন। জ্যোতির্বিদ্যার হিসাবে শীত শেষ হয় মার্চ মাসের মহাবিষুবের (Equinox) সময়। অন্য দিকে, আবহাওয়াবিদদের মতে ৩ সপ্তাহ আগে, ডিসেম্বরের ১ তারিখেই শীত শুরু হয়।

৭। পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্বঃ
অনেকের মধ্যে ভুল ধারণা আছে, শীতকালে পৃথিবী সূর্য থেকে সবচেয়ে দূরে থাকে। বাস্তবতা এর উল্টো। পৃথিবী বরং শীতকালেই সূর্যের নিকটতম অবস্থানে থাকে। এই অবস্থানকে অনুসূর (Perihelion) বলে। ২০১৬ সালে পৃথিবী অনুসূরে থাকবে জানুয়ারির ৩ তারিখে, দক্ষিণায়নের ২ সপ্তাহের মধ্যেই!

শীতের আবির্ভাবের উপর তাই দূরত্বের প্রভাব খুবই সামান্য। তাহলে শীতকাল আসে কিভাবে? পৃথিবী এর কক্ষতলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে আছে। দক্ষিণায়নের সময় দক্ষিণ গোলার্ধ ঝুঁকে থাকে সূর্যের দিকে। ফলে, সেখানে গ্রীষ্ম আর আমাদের এখানে শীতকাল থাকে। উত্তরায়ণের সময় ঘটে উল্টো ঘটনা।

৮। দ্রুততম সূর্যাস্ত এই দিনে নয়ঃ
উত্তর গোলার্ধের অধিকাংশ স্থানেই এই অয়নের আগেই দ্রুততম সূর্যাস্ত হয়ে যায়। আর দীর্ঘায়িত সূর্যোদয় হয় অয়নের কিছু দিন পরে অর্থ্যাৎ, সূর্য কিন্তু অয়নের দিনে অন্য দিনের চেয়ে আগেভাগে অস্ত যায় না।

৯। উত্তর গোলার্ধের দিনের দৈর্ঘ্যের দ্রুত বৃদ্ধিঃ
উত্তর গোলার্ধে এই সময়ের পরে দ্রুত দিন বড় হতে থাকে। যে স্থান যত বেশি উত্তরে, সেটিতে এই বৃদ্ধির পরিমানও তত বেশি।

১০। উৎসবঃ
অনেক দেশেই উৎসব করে দিনটি পালন করা হয়। অনেক জায়গায় আবার এই দিনে ছুটিও থাকে।

সূত্রঃ
১। Time and Date
২। টাইম অ্যান্ড ডেইটঃ অপসূর, অনুসূর
Category: articles

Thursday, October 1, 2015

[এই নিবন্ধের লেখক তাসনীমুল হাসান]
দিক নির্ণয়ের এই কৌশলটি আমার মতে সবচেয়ে সহজ। কারণ, বাস্তবে করতে গিয়ে কোন ঝামেলা ছাড়াই সুফল পেয়েছি।
প্রয়োজনীয় পরিবেশঃ উন্মুক্ত সূর্যালোক
প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিঃ
১। একটি খুঁটি, লাঠি বা ছড়ি (১ ফুট লম্বা হলেই যথেষ্ট)
২। (আবশ্যিক নয়) ৩-৪টি ছোট ছড়ির টুকরো (৬ ইঞ্চি উচ্চতার)

কার্যপ্রণালীঃ
১। একটি মসৃণ  ও সমতল স্থানে যান। ঐ স্থানে সূর্যের আলোর উপস্থিতি থাকতে হবে। এমন জায়গা বাছাই করতে হবে যেন অন্তত ২০-৩০ মিনিটের মধ্যে জায়গাটি ছায়ার দখলে না যায়
২। ভূমির সাথে খাড়াভাবে বড় খুঁটিখানা পুতে দিন।
৩। খুঁটির ছায়ার একেবারে প্রান্তে একটি দাগ দিয়ে রাখুন। অথবা, ছোট একখানা খুঁটি বসিয়ে দিন।
৪। ৫-১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। দেখবেন, ছায়ার প্রান্তভাগ আগের জায়গা থেকে সরে গেছে।
৫। ৩ ও ৪ নং ধাপ অন্তত ৩-৪ বার করুন।

৬। এবারে খেয়াল করুন, সবগুলো খুঁটি বা দাগ একটি সরল রেখা তৈরি করেছে। এই রেখাটিই পূর্ব-পশ্চিম দিক নির্দেশ করছে। তাহলে, পশ্চিম দিক হচ্ছে যেদিকে প্রথম দাগ বা ছোট খুঁটিটি ছিল। আর, যেদিকে শেষ খুটি বসিয়েছেন সেদিকেই পূর্ব দিক।
এবার যদি আপনি পূর্ব দিকে মুখ কর দাঁড়ান, তার অর্থ হবে আপনার বাঁয়ে উত্তর দিক এবং ডানে দক্ষিণ।
এর আগে আমরা দেখেছিলাম, কিভাবে ধ্রুবতারা (North Star বা Polaris) দিয়ে উত্তর বের করা যায়। তবে, ঐ কৌশল কাজ করবে মেঘমুক্ত রাতের আকাশে। আর এখনকার কৌশল কাজ করবে দিনে। তাহলে রাত দিন ২৪ ঘণ্টাই আমরা খুব সহজেই দিক নির্ণয় করতে পারবো। শর্ত একটিই, মেঘমুক্ত আকাশ।
এটা কিভাবে কাজ করে?
আমরা জানি পৃথিবী পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে নিজ অক্ষের উপর আবর্তিত হচ্ছে। এ কারণেই সূর্যকে পূর্ব থেকে পশ্চিমে যাচ্ছে বলে মনে হয়। এই জন্যে সূর্য যতই পশ্চিম দিকে যেতে থাকে তার ছায়া ততোই পূর্ব দিকে সরতে থাকে। এখানে এ তথ্যটিই কাজ এলাগানো হচ্ছে। অবশ্য আমরা জানি, সূর্য সব সময় ঠিক পূর্ব দিক থেকে উদিত হয় না বা ঠিক পশ্চিম দিকে অস্তও যায় না। বছরজুড়ে নিরক্ষরেখা থেকে দক্ষিণে বা উত্তরে সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয়ের ঘটনা ঘটে।
 তবুও এ কৌশল কাজ করে, কারণ সূর্যের গতিপথ যেদিকেই থাকুক, ছায়া পূর্ব-পশ্চিম বরাবরই থাকে। 
Category: articles

Saturday, March 21, 2015

এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় গেলেই আমরা অনেক সময় দিক হারিয়ে ফেলি। যে দিককে পশ্চিম মনে হচ্ছিল, একটু পরই দেখা যায় তার উল্টো দিকে কোন মসজিদের মুখ। কিন্তু যদি আশেপাশে যদি মসজিদ না থাকে? নেই কম্পাসও! কম্পাস থাকলেও কম্পাসের উপর চোখ বুঁজে ভরসা করা যায় না। কম্পাস দ্বারা একেবারে নিখুঁত উত্তর জানতে হলে কম্পাসের কাঁটা দেখে আরো কিছু হিসাব নিকাশ করতে হয়।
তাহলে দিক নির্ণয় করবেন কীভাবে? আকাশে তারকা আছে না? প্রাচীন কালের মানুষ দূরের পথ কিংবা সাগর যাত্রায় অনায়াসে দিক নির্ণয় করতেন তারকা দেখে।
সন্ধ্যার পরপরই আকাশে দেখা যায় তারাদের আধিপত্য। এদের সবাই অবশ্য জ্যোতির্বিজ্ঞানের ভাষায় 'তারকা' তথা নক্ষত্র (Star) নয়। রাতের আকাশের প্রধান দুটি উজ্জ্বল তারা- যথাক্রমে শুক্র ও বৃহস্পতি তো আমাদের সৌরজগতেরই গ্রহ। যাই হোক, সন্ধ্যায় উদিত হবার পর, প্রায় সব তারাই পশ্চিম দিকে চলতে থাকে। এরা যদিও মূলত পৃথিবীকে কেন্দ্র করে প্রদক্ষিণ করে না, তবু পৃথিবীর আবর্তনের (rotation) কারণে এ রকম মনে হয়।
খেয়াল করুন, বলেছি 'প্রায় সব তারকাই পশ্চিমে যেতে থাকে'। কিন্তু একটি তারকা আছে যে সর্বদা উত্তর মেরুর উপর বসে থাকে, নড়ে চড়ে না। বরং দেখে মনে হয়, আকাশের সব তারকাই যেন ওকে ঘিরে আবর্তিত হচ্ছে। এই তারকার নাম ধ্রুবতারা। ইংরেজিতে বলে পোলারিস (Polaris) বা মেরু তারা (Pole Star)। উত্তরে থাকে বলে একে আবার নর্থ স্টার (North Star) ও বলে।

সময় বাঁচাতে চাইলে শর্টকাটে পড়ে নিনঃ
» তারার সন্ধানেঃ ধ্রুবতারা 

এই তারকা যেহেতু ঠিক উত্তর দিকে থাকে, তাই একে বের করে ফেলতে পারলেই কেল্লা ফতে! এর দিকে তাকিয়ে থাকা মানে আপনার ডানে পূর্ব, বাঁয়ে পশ্চিম আর পেছনে দক্ষিণ। যদি মনে হয়ে থাকে, ধ্রুবতারা চিনে নেওয়া অনেক ঝামেলার কাজ, তবে ভুল ধারণায় আছেন। চলুন, দেখে নেই।
ধাপ-১: সপ্তর্ষিমণ্ডলী খুঁজে বের করুন 
সপ্তর্ষীমণ্ডলী (Ursa Major) মূলত একটি তারামণ্ডলী (Constellation)। এর মধ্যে প্রধান সাতটি তারকা একটি চামচের মত আকৃতি তৈরি করেছে। এই সাতটি তারকাকে উত্তর আমেরিকায় বলে বিগ ডিপার (The Big Dipper) আর ইউরোপে বলে লাঙল (Plough)। এই সাতটি তারকা খুঁজে পাওয়া মোটামুটি বেশ সহজ। সাতটি তারকার ৩টি মিলে চামচের বাঁট আর বাকি চারটি তৈরি করেছে মাথা। ছবিতে দেখুন।। প্রথম ছবিতে খুঁজে নেবার চেষ্টা করে ২য় ছবি থেকে মিলিয়ে নিন।

আরো পড়ুনঃ
» সপ্তর্ষীমণ্ডলী খুজে পাবার উপায়



ধাপ-২: ধ্রুবতারার দিকে একটি রেখা টানুন
বিগ ডিপারের একেবারে সামনের দুটি তারকাকে মনে মনে যোগ করে বর্ধিত করুন। রেখাটিকে টেনে লম্বা করে নাক বরাবর সোজা প্রথম যে উজ্জ্বল তারকা পাবেন- সেটিই হলো আমাদের কাঙ্ক্ষিত ধ্রুবতারা। বিগ ডিপারের সামনের দুই  তারকা মিলে যে দৈর্ঘ্য হয় (লাল দাগ টেনে দেখানো হল), ধ্রুব তারার দূরত্ব তার ছয় গুণ।


আরো দেখুনঃ দিক নির্ণয়ে হাত ঘড়ি

ধাপ-৩: মিলিয়ে নিন
সন্দেহ লাগছে? আকাশে এত তারার মাঝে সন্দেহ দানা বাঁধতেই পারে- আসলেই এটা ধ্রুবতারা কিনা। আসলে ধ্রুবতারাকে আমরা বড় চামচ বিগ ডিপার দিয়ে চিনলেও এটা কিন্তু বিগ ডিপারের অংশ নয়। চামচ আছে আরেকটি। তার নাম ছোটি চামচ বা আসল নাম লিটল ডিপার (Little Dipper)। এটি অবস্থিত অন্য আরেকটি তারামণ্ডলী লঘুসপ্তর্ষী তে। বড় চামচের মত ছোত চামচও সাতটি তারায় গঠিত। অবস্থান বড় ভাইয়ের মাথার উপরে। এর বাঁটের একেবারে প্রান্তভাগের তারকাটিই হচ্ছে ধ্রুবতারা।

সূত্রঃ
[১] জ্যোতির্বিজ্ঞান পরিভাষা- উইকিপিডিয়া
[২] How to find 'Polaris' - the North Star
[৩] ভিডিও 
 [৪] ভিডিও
Category: articles

Monday, February 2, 2015


মাউন্ট এভারেস্টের উচ্চতা কত? ৮ হাজার ৮ শো ৪৮ মিটার বা ২৯ হাজার ২৯ ফুট। একে কি কেউ টেক্কা দিতে পারে?
হ্যাঁ, পারে। তবে, উঁকি দিতে হবে পৃথিবী থেকে প্রতিবেশী গ্রহ মঙ্গলের দিকে। তাহলেই পাওয়া যাবে একটি বিশাল আগ্নেয়গিরির খোঁজ। নাম অলিম্পাস মনস (Olympus Mons)। এর উচ্চতা প্রায় ২২ কিলোমিটার বা ১৪ মাইল। হ্যাঁ, অদ্ভুত লাগলেও শুনছেন ঠিকই। এটাই সৌরজগতের বৃহত্তম আগ্নেয়গিরি।
অর্থ্যাৎ সমুদ্র সীমা থেকে মাউন্ট এভারেস্টের উচ্চতা যত, এই দানবীয় পর্বত তার প্রায় তিন গুণ বড়।
অবশ্য, এটি মঙ্গল গ্রহের নবীনতম আগ্নেয়গিরি। এর উদ্ভব ঘটেছে মঙ্গলের আমাজনিয়ান যুগে। ঊনবিংশ শতক থেকেই জ্যোতির্বিদদের সাথে এর পরিচয় ছিল। শুরুর দিকে একে ডাকা হতো Nix Olympica নামে, ল্যাটিন ভাষায় যার অর্থ অলিম্পিক তুষার। আর, ল্যাটিন ভাষায় মনস অর্থ হলো 'পর্বত'।
আগ্নেয়গিরিটি মঙ্গলের পশ্চিম গোলার্ধে অবস্থিত।এর ব্যাস ৬২৪ কিলোমিটার বা ৩৭৪ মাইল যা আমেরিকার অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যের প্রায় সমান। অন্য দিকে, আগে পৃথিবীর বৃহত্তম অগ্নিগিরি (Volcano) ছিল মাউনা লোয়া। অবশ্য, ২০১৩ সালে সাগরতলে আবিষ্কৃত আরেকটি বিশাল আগ্নেয়গিরি টামু ম্যাসিফ। এই আগ্নেয়গিরিটির আয়তন প্রায় ৩ লাখ ১০ হাজার বর্গকিলোমিটার বা ১ লাখ ১৯ হাজার বর্গমাইল।  টামু ম্যাসিফ সাগর সমতল থেকে ২ কিলোমিটার পানির নিচে অবস্থিত। জাপান থেকে ১ হাজার ৬০০ কিলোমিটার পূর্বে পানির নিচে অবস্থিত শাটস্কি রাইজ নামে পরিচিত একটি ভৌগোলিক প্লেট বা মালভূমিতে অবস্থিত।

টামু ম্যাসিফের আকার অলিম্পাস মন্সের সাথে তুলনীয় হলেও মঙ্গোলের অগ্নিগিরিটি আয়তনে মাউনা লোয়ার চেয়ে  ১০০ গুণ বড়। শুধু অলিম্পাস মন্সই নয়, মঙ্গল গ্রহে মাউন্ট এভারেস্টের চেয়ে উঁচু আরো অনেকগুলো পাহাড় রয়েছে যেমন Ascraeus Mons, ইলিসিয়াম মনস, আরসিয়াম মনস ইত্যাদি । এগুলোর প্রতিটিই উচ্চতায় ১২ কিলোমিটারের উপরে। সত্যি বলতে, মঙ্গোলে এমন প্রায় ডজনখানেক আগ্নেয়গিরি আছে যারা পৃথিবীর আগ্নেয়গিরিগুলোর দশ থেকে ১০০ গুণ বড়।

কিন্তু মঙ্গোলের পাহাড় ও অগ্নিগিরিগুলো এত উঁচু বা বিশাল কেন?
এর অন্যতম কারণ হচ্ছে গ্রহটিতে সক্রিয় প্লেট টেকটোনিকস নেই। ফলে, এর ক্রাস্ট তথা উপরিভাগ অবস্থান পরিবর্তন করে না যেমনটা হয় পৃথিবীতে। এর ফলে, আগেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতে নিক্ষিপ্ত ম্যাগমা একই স্থানে স্তূপীকৃত হয়ে গড়ে ওঠে বিশাল আগ্নেয়গিরি। বিজ্ঞানীদের মতে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হলো মঙ্গোলের অপেক্ষাকৃত দুর্বল অভিকর্ষ। অভিকর্ষ তথা কোন বস্তুকে কেন্দ্রের দিকে আকর্ষণের ক্ষমতা কম বলেই উচ্চতা বেশি পেরেছে।
বর্তমানে মঙ্গোলের অন্তর্ভাগ বা কোর শীতল হয়ে যাবার কারণে অলিম্পাস মনসসহ অন্যান্য আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত হচ্ছে না।

তথ্যসূত্রঃ
[১] নাসা 
[২] যুগান্তর
[৩] উইকিপিডিয়া 
[৪] বিবিসি 
[৫] স্পেইস ডট কম
টামু ম্যাসিফ সাগর সমতল থেকে ২ কিলোমিটার পানির নিচে অবস্থিত। জাপান থেকে ১ হাজার ৬০০ কিলোমিটার পূর্বে পানির নিচে অবস্থিত শাটস্কি রাইজ নামে পরিচিত একটি ভৌগোলিক প্লেট বা মালভূমিতে অবস্থিত। - See more at: http://www.jugantor.com/ten-horizon/2013/09/18/28999#sthash.scyXrldG.dpuf
Category: articles

Tuesday, November 4, 2014

এই ঘটনার সাথে আমরা কম বেশি সবাই পরিচিত যে আমরা চলন্ত কোন বস্তুর উপর বসে থাকলে সেটা যদি কোন দিকে মোড় নেয়, আমরা তার উলটো দিকে পড়ে যেতে থাকি, যদি না জিনিসটাকে শক্ত করে ধরে রাখি। কখনও বাসের ছাদে বসেছেন? বসলে টের পেতেন। বাস যখন কোন দিকে মোড় নেয়, আপনাকে শক্ত করে বাসকে ধরে রাখতে হবে, নইলে উলটো দিকে পড়ে আপনার যাত্রা সাঙ্গ হবে। [আমি একবার চড়েছিলাম, কেমন লাগে বোঝার জন্য প্লাস গাড়ি না পেয়ে]
নিচের অ্যানিমেশনে পৃথিবীর আবর্তন দেখুনঃ
পৃথিবী প্রতিনিয়ত পশ্চিম থেকে ঘুরছে। এ জন্যেই ক্রমান্বয়ে রাত- দিন হচ্ছে
আমরা জানি, পশ্চিম থেকে পূবে পৃথিবীর আবর্তন বেগ ঘণ্টায় ১৬৭০ কি.মি (বিষুব অঞ্চলে)।  ঢাকায় এই বেগ ঘণ্টায় ১৫২৯ কি.মি। যাই হোক, এই বিপুল বেগের কারণে আমরা ধরাপৃষ্ঠ থেকে ছিটকে পড়ে যাবার কথা। পৃথিবী আমাদেরকে ফেলে দিয়ে সূর্যকে চক্কর দেবার জন্য প্রতি ঘণ্টায় ১ লাখ আট হাজার কি.মি বেগে ছুটে চলে যেত। এই বেগটা হল সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর প্রদক্ষিণ বেগ।
কিন্তু, পৃথিবী খুব ভাল! আমাদেরকে ফেলে চলে যায় না। কিন্তু কেন?
কোন বস্তু কোন ঘুর্ণায়মান বস্তুর উপর টিকে থাকবে, নাকি পড়ে যাবে তা নির্ধারণ করে দুটি বিপরীতধর্মী বলের যুদ্ধ। এরা হল বস্তুটির অভিকর্ষ ও কেন্দ্রবিমুখী বল। অনেকে হয়ত মনে করে থাকতে পারেন বলদ্বয় হবে আসলে যথাক্রমে কেন্দ্রমুখী (Centripetal) বল (Force) ও কেন্দ্রবিমুখী বল (Centrifugal Force)। এই বলদ্বয় কিন্তু আসলে একে অপরের সমান ও বিপরীতমুখী, নিউটনের ৩য় সূত্রানুসারে। আর, আমাদের আলোচ্য বলের (Force) যুদ্ধ হবে কিন্তু বড় বস্তুর ক্ষেত্রে যার মহাকর্ষ উল্লেখযোগ্য যেমন, গ্রহ, উপগ্রহ, নক্ষত্র ইত্যাদি।
এখন তাহলে দেখা যাক পৃথিবীতে কোন বলের আধিপত্য কেমন?
পৃথিবীপৃষ্ঠে অবস্থিত কোন বস্তুকে পৃথিবী F বা W = mg বলে টানে। এখানে F হল আকর্ষণ বল, W হল এই আকর্ষণ তথা অভিকর্ষজনিত বল, টান বা ওজন। m বস্তুর ভর, g হল অভিকর্ষজ ত্বরণ , যার কারণে প্রতি সেকেন্ডে যে বেগ বৃদ্ধি পায়। g এর মান হল প্রতি বর্গ সেকেন্ডে মোটামুটি ৯.৮ মিটার।
যাই হোক, এই সূত্র আপাতত আমাদের খুব বেশি দরকার নেই। আমাদের এতটুকু জানলেই চলবে যে পৃথিবীর অভিকর্ষজ ত্বরণ (g) প্রতি বর্গ সেকেন্ডে মোটামুটি ৯.৮ মিটার। ।
এখন, আমাদের জানা দরকার আবর্তনের জন্য আমাদের বেগ কী পরিমান হ্রাস পায়।
আমরা জানি,  ঘূর্ণায়মান বা আবর্তনশীল কোন বস্তুর ত্বরণ (Acceleration) বের করার  সূত্র হল,
ঘূর্ণনশীল বস্তুর ত্বরণ বের করার সূত্র

পৃথিবীর ঘূর্ণন বা আবর্তন বেগ হল,  v =  ৪৬৪ মি/সেকেন্ড, ব্যাসার্ধ,  r = ৬৩৭১ কিমি.
বা ৬, ৩৭১, ০০০ মিটার।
হিসেব করে পাই, ত্বরণ a = প্রায় ০.০৩৮৮ মিটার (প্রতি বর্গ সেকেন্ডে)।
অর্থ্যাৎ পৃথিবীর আবর্তনের কারণে আমরা প্রতি বর্গ সেকেন্ডে মাত্র ০.০৩৩৮ মিটার হারে পড়ে যেতে থাকি, যেখানে অভিকর্ষ আমাদেরকে তার প্রায় ২৯০ গুণ ত্বরণে (৯.৮১ মিটার/বর্গ সেকেন্ড) টেনে ধরে রাখে।
তাহলে কিভাবে আমরা কোন দিকে পড়ে যাব?
অর্থ্যাৎ পৃথিবীর ঘূর্ণনের কারণে আমরা যে বলে পড়ে যাবার উপক্রম হই, তার চেয়ে অনেক বেশি বলে পৃথিবী আমাদেরকে টেনে ধরে রাখে। এ জন্যেই আমরা পড়ে যাই না।
উপরন্তু, উপরের এই হিসাব শুধু বিষুব অঞ্চলের জন্য। আমাদের বাংলাদেশে কেন্দ্রবিমুখী বলের প্রভাব হবে আরও কম। এটি নির্ভর করবে কোনো অঞ্চল বিষুব রেখা থেকে কত দূরে আছে তার উপর। আবর্তন বেগ জেনে নিয়ে আপনিও বের করতে পারেন কোনো নির্দিষ্ট অঞ্চলের জন্যে এই প্রভাব কতটুকু। 
Category: articles
এক কথায় বললে বলতে হয়, পৃথিবীর আবর্তন বেগ ঘণ্টায় ১৬৭০ কিলোমিটার বা সেকেন্ডে প্রায় ৪৬৪ মিটার। তবে এই মান সব ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। বিস্তারিত জেনে নিই, চলুন।
পৃথিবী পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে নিজ অক্ষের সাপেক্ষে ঘুরছে
পৃথিবী প্রতিনিয়ত পশ্চিম থেকে পূবে আবর্তন করে চলছে। এই আবর্তনের কারণেই ক্রমান্বয়ে রাত দিন হয়, সুর্যোদয় ও সূর্যাস্ত ঘটে। পশ্চিম থেকে পূবে এই আবর্তনের জন্যেই উত্তর ও দক্ষিণ প্রান্তে দুটি মেরুর উদ্ভব ঘটেছে।
আরও পড়ুনঃ  পৃথিবীর উত্তর ও দক্ষিণে মেরু থাকলেও পূবে পশ্চিমে মেরু নেই কেন

পৃথিবীর আবর্তন বেগ কিন্তু সর্বত্র সমান নয়। বিষুব অঞ্চল তথা দুই মেরুর ঠিক মাঝখানে এই বেগ সর্বোচ্চ। অন্য দিকে,  বিষুব অঞ্চল থেকে মেরুর দিকে নিকটবর্তী হতে থাকলে বেগ কমতে থাকে। ঠিক মেরুবিন্দুতে বেগ শুন্য। এটা বোঝার জন্যে উপর্যুক্ত লিঙ্কে একটি উদাহরণ দিয়েছিলাম। এখন ভিন্ন একটি দিচ্ছি।
মনে করুন, আপনি একটি সুতার প্রান্তবিন্দুতে একটি বল বেঁধে সুতাসহ বলটিকে চারপাশে ঘোরাচ্ছেন। তাহলে দেখবেন, সুতার একেবারে প্রান্তবিন্দুতে বেগ সর্বোচ্চ। সুতার কোন বিন্দু আপনার হাতের যত নিকটে হবে তত বেগ হবে কম। ঐ ঘূর্ণন পথের কেন্দ্রবিন্দুতে বেগ হবে জিরো। কারণ সেটি ঘুরছেই না।
কল্পনায় পৃথিবীকে একবার পশ্চিম থেকে পূবে চক্কর দেওয়ান। অথবা একটি টেনিস বল বা কমলা হাতে নিয়ে একইভাবে ঘোরান। দেখবেন প্রান্তবিন্দুর দিকে ক্রমান্বয়ে বেগ কম এবং একেবারে মেরুতে জিরো।
অবশ্য, এখানে আমরা রৈখিক বেগের কথা বলেছি। ঘূর্ণায়মান বস্তুর জন্যে আরেকটি বেগ হল কৌণিক বেগ। সেটি কিন্তু প্রতিটি বিন্দুতে একই হবে। কারণ, প্রতিটি বিন্দুই সমান সময়ে সমান পথ তথা ৩৬০ ডিগ্রি অতিক্রম করবে।

এখন, আসুন নিজেরাই বের করে ফেলি পৃথিবীর আবর্তন বেগ কত।
আমরা জানি সমবেগের জন্য সূত্র হল S = vt।
এখানে, S = অতিক্রান্ত দূরত্ব,
           v= বেগ এবং
           t= সময়
তাহলে পাই, বেগের সূত্র হবে,
বেগ বের করতে হলে আমাদের অতিক্রান্ত দূরত্ব (S) ও এই দূরত্ব পাড়ি দিতে অতিবাহিত সময় (t) জানতে হবে।
আমরা জানি, পৃথিবী প্রায় ২৪ ঘন্টায় একবার আবর্তন সম্পন্ন করে। আর বিষুব রেখা বরাবর এর পরিধি হল ৪০, ০৭৫ কিমি.। এই পথই আমরা (আসলে আমরা না, যারা বিষুব অঞ্চলে বাস করে) পৃথিবীর বুকে বসে পাড়ি দেই ২৪ ঘণ্টায়।
তাহলে, বিষুব অঞ্চলে আবর্তন বেগ = (৪০০৭৫ ÷২৪) কিমি./ঘণ্টা। 
অর্থ্যাৎ ঘন্টায় প্রায় ১৬৭০ কি.মি। মাইলের হিসাবে এই বেগ হল ঘণ্টায় ১০৭০। এসআই এককে হিসেব করলে হবে সেকেন্ডে প্রায় ৪৬৪ মিটার। 

এই বেগ কিন্তু বিষুব অঞ্চলের জন্য প্রযোজ্য। বিষুব অঞ্চল থেকে মেরু অঞ্চলের দিকে যেতে থাকলে পৃথিবীর আবর্তন অক্ষের দূরত্ব কাছে চলে আসবে। ফলে, ঐ বিন্দুর সাপেক্ষে পরিধি তথা ২৪ ঘণ্টায় অতিক্রান্ত পথ আরো কম হবে। [উপরের চিত্রটি দেখুন]
বিষুব অঞ্চল ছাড়া অন্য অঞ্চলে বেগ বের করার জন্য আমাদেরকে মূল বেগের সাথে ঐ স্থানের অক্ষাংশের cos এর মান গুণ করতে হবে। 
তাহলে, ৪৫ ডিগ্রি অক্ষাংশে পৃথিবীর আবর্তন বেগ হবে 
v = 1670 × cos 45 km/h 
= 1670 × 0.707 
= 1180 km/h। 
অর্থ্যাৎ ঘণ্টায় ১১৮০ কিলোমিটার বা সেকেন্ডে প্রায় ৩২৮ মিটার। 

আমাদের ঢাকায় পৃথিবীর আবর্তব বেগ কত হবে?
ঢাকার অক্ষাংশ হল 23.7 ডিগ্রি উত্তর। 
তাহলে, বেগ, v = 1670 ×  (cos 23.7) = 1529 km/h  
অর্থ্যাৎ, ঘণ্টায় ১৫২৯ কিমি. বা প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ৪২৪ মিটার। 
এত বিশাল বেগে ঘুরছি আমরা! তাহলে পৃথিবী থেকে পড়ে যাচ্ছি না কেন
জানতে হলে এই নিবন্ধটি পড়ুন। 

সূত্রঃ
১. উইকিপিডিয়াঃ Earth
২. নাসা

Category: articles

Monday, July 14, 2014

দুই মেরুতে সূর্য ৬ মাস দিগন্তের উপরে ও ছয় মাস দিগন্তের নিচে থাকে। মেরুবৃত্ত থেকে দূরের অক্ষাংশে আমরা যেমন রাত দিন অনুভব করি সেখানের রাত দিন ঠিক তেমন নয়, অনেকটা গোধূলির মত।
এর মূল কারণ হল সূর্যের সাথে পৃথিবীর ২৩.৫ ডিগ্রি নতি।
কোন মেরুতে কখনঃ
২১ মার্চ থেকে ২৩ সেপ্টেম্বর ছয় মাস উত্তর মেরুতে অবিরত দিন ও দক্ষিণ মেরুতে অবিরত রাত থাকে। ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ২১ মার্চ ঘটে উল্টোটি মানে ৬ মাস একটানা দক্ষিণ মেরুতে দিন ও উত্তর মেরুতে রাত। তার মানে ২১ মার্চ ও ২৩ সেপ্টেম্বর হচ্ছে মেরুদ্বয়ে রাত দিন পাল্টানোর দুই প্রান্তিক তারিখ। এই দুই দিন উভয় মেরু সূর্য থেকে সমান দূরে থাকে।
উত্তর মেরুতে দিনঃ
২১ মার্চের পর উত্তর মেরু সূর্যের দিকে ঝুঁকতে থাকে। ঝুঁকতে ঝুঁকতে ২১ জুন গিয়ে ঝোঁকার পরিমান হয় সর্বোচ্চ। ২১ জুনের পর  উত্তর মেরু এবার সূর্য থেকে দূরে সরতে থাকে। সরতে সরতে ২৩ সেপ্টেম্বরে সূর্য থেকে দক্ষিণ মেরুর সমান দূরত্বে থাকে।
এই ছয় মাস উত্তর মেরুতে (প্রকৃত অর্থে মেরুবৃত্তে) সূর্য দিগন্তের উপরে অবস্থান করে। তাই তখন এখানে দিন। অপর দিকে এই সময় দক্ষিণ মেরুবৃত্ত দিগন্তের নিচে অবস্থান করায় সেখানে রাত।
দক্ষিণ মেরুতে দিনঃ
উত্তর মেরু সূর্য থেকে সরতে সরতে ২৩ সেপ্টেম্বরে এসে দক্ষিণ মেরুর সমান দূরত্বে পৌঁছেছিল। এবার সে আরো সরতে থাকে। এভাবে ২২ ডিসেম্বর উত্তর মেরু সূর্যের সবচেয়ে দূরে ও দক্ষিণ মেরু সবচেয়ে কাছে থাকে। এবার দক্ষিণ মেরুর আবার সরার পালা। দক্ষিণ মেরু সরতে থাকে আর উত্তর মেরু পুনরায় দূরত্ব কমাতে থাকে। এভাবে ২১ মার্চ আবার দুই মেরু সূর্য থেকে সমান দূরে থাকে। ফলে, এই ছয় মাস দক্ষিণ মেরুতে দিন আর উত্তর মেরুতে রাত হয়।
Category: articles
পরিক্রমণকালে পৃথিবীর মেরুরেখা ধ্রুবতারামুখি হয়ে কক্ষতলের সাথে সব সময় ৬৬.৫ ডিগ্রি কোণ করে হেলে থাকে। আবার নিরক্ষরেখা বা বিষুবরেখার সমতল কক্ষতলের সাথে ২৩.৫ ডিগ্রি হেলে থাকে।
সাধারণত ২১ মার্চ ও ২৩ সেপ্টেম্বর পৃথিবীর সব জায়গায় দিন রাত্রি সমান হয়। চিত্রে খেয়াল করুন, এই দুই দিন সূর্য থেকে উত্তর ও দক্ষিণ মেরু সমান দূরত্বে থাকে। আর তাই উত্তর বা দক্ষিণ কোন গোলার্ধই একে অপরের চেয়ে সূর্যের আলো বেশি বা কম পায় না। (চিত্রে মনোনিবেশ করুন)
এই দিন তাই ২৪ ঘন্টার অর্ধেক সময় যে কোথাও দিন  ও বাকিটা রাত থাকে।
এই দিন গুলোয় সূর্যরশ্মি নিরক্ষরেখায় ৯০ ডিগ্রি কোণে, সুমেরু ও কুমেরুবৃত্তে ৬৬.৫ ডিগ্রি ও মেরুদ্বয়ে ০ ডিগ্রি কোণে পতিত হয়।

২৩ সেপ্টেম্বরের আগে ২১ জুন পৃথিবীর উত্তর মেরু সূর্যের দিকে সবচেয়ে ঝুঁকে থাকে ও দক্ষিণ মেরু সবচেয়ে দূরে থাকে। পরের দিন থেকে উত্তর মেরু সরতে থাকে আর দক্ষিণ মেরু কাছে আসতে থাকে। এভাবে ২৩ সেপ্টেম্বরে এসে দুই মেরু সমান দুরত্বে আসে। একে বলে শারদ বিষুব ( autumnal equinox)।
আবার ২১ মার্চের আগে ২২ ডিসেম্বরে সূর্য দক্ষিণ মেরুর দিকে সবচেয়ে হেলে থাকে আর উত্তর মেরু থেকে সবচেয়ে দূরে থাকে। এর পর থেকে আবার দক্ষিণ মেরু থেকে সরতে সরতে এবং উত্তর মেরুর দিকে আসতে ২১ মার্চে এসে দুই মেরু থেকে সমান দূরত্বে আসে। একে বলে বাসন্ত বিষুব ( Vernal equinox)।
Category: articles

Saturday, June 28, 2014

পৃথিবী প্রতি ঘন্টায় ১৬৭০ কি.মি. বেগে ( সেকেন্ডে ৪৬৫ মি. বা ১০৭০ মাইল /ঘণ্টা) নিজের অক্ষের চারদিকে ঘুরছে। এই ঘুর্নণের দিক হচ্ছে পশ্চিম থেকে পূবে।  আর এই ঘূর্নণের দিকই নির্ধারণ করেছে কোন দিক মেরু হবে। এই যে ঘুর্ণন বেগ -এটি কার্যকর শুধুমাত্র বিষুব অঞ্চলের জন্য, যা দুই মেরুর ঠিক মাঝে অবস্থিত। বিষুব অঞ্চল থেকে যতই মেরুর দিকে যাওয়া হবে ততই এই বেগ হ্রাস পেতে থাকবে।

আরও পড়ুন
☛ মেরু ও বিষুব অঞ্চলের পরিচয়

বিষুব রেখা থেকে মেরুর দিকে গেলে ঘূর্নণের হ্রাসপ্রাপ্ত মান বের করতে হলে স্বাভাবিক মানের সাথে অক্ষাংশের cos এর মান গুণ করতে হবে।

পৃথিবীর দুই মেরুর ঠিক মাঝে অবস্থিত বিষুব অঞ্চল 

যেমন, ৪৫ ডিগ্রি অক্ষাংশে এই বেগ হবে 1670 *Cos 45 Km/h= 1670*.707 = 1180 Km/h।
এই মান কমতে কমতে মেরুতে গিয়ে হয় জিরো। কারণ মেরুতে অক্ষাংশ হল ৯০ ডিগ্রি।  Cos 90 = 0 বলে গুনফল হয় জিরো।

এটাতো গাণিতিক মত। তবে গণিত কখোনই অসত্য কথা বলে না। মেরুতে বেগ কেন জিরো এটা একটি উদাহরণের সাহায্যে বোঝার চেষ্টা করি। হ্যাঁ, আমরা টপিকের মধ্যেই আছি। একটু পর বোঝা যাবে।

গ্রামে আগেকার দিকে মাঠের মাঝখানে একটি খুঁটি গেঁড়ে খুঁটির সাথে গরুকে বেঁধে খুঁটির চারপাশে চক্রাকারে ঘোরানো হত। এতে করে ধান গাছে অল্প যে কিছু ধান থেকে যেত তা গরুর পায়ের চাপে ঝরে পড়ে নিচে জমা হত। আমরা যদি একটু চিন্তা করি,  রশির একেবার প্রান্ত বিন্দুতে ঘূর্নণ বেগ সর্বোচ্চ। খুঁটির দিকে কাছাকাছি হলে ক্রমেই বেগ কমতে থাকবে। কারণ, যে সময়ে বাইরের প্রান্ত বিন্দু এক চক্কর দেবে সেই সময়েই ভেতরের যে কোন বিন্দুও এক চক্কর দিয়ে দেবে। কিন্তু ভেতরের যে কোন বিন্দু চক্কর দিতে অনেক কম পথ যেতে হবে। সময় একই লাগায় ভেতরের বিন্দুর বেগ কম হতে হবে।

কল্পনায় এবার পৃথিবীকে একবার পশ্চিম থেকে পূবে চক্কর দেওয়ান। অথবা একটি আপেল/ কমলা হাতে নিয়ে একইভাবে ঘোরান। দেখবেন প্রান্তবিন্দুর দিকে ক্রমান্বয়ে বেগ কম এবং একেবারে মেরুতে জিরো।

এবার মূল আলচনায় ফিরে আসি। আসলে এই ঘূর্ণনের সাথেই মেরুর ব্যাপার জড়িত।
পৃথিবী পশ্চিম থেকে পূবে আবর্তন করায় এর দুই আবর্তন অক্ষ উত্তরে ও দক্ষিণে অবস্থিত। আসলে এই অক্ষটি হচ্ছে কেন্দ্র দিয়ে দুই মেরুর সংযোজক সরলরেখা। দুই মেরু বিন্দু পৃথিবীর আবর্তন অক্ষের দুই প্রান্ত বিন্দু। ফলে এই বিন্দু দুইটি আসলে বিশেষ দুটি বিন্দু, যেমন বিশেষ বিন্দু আর কোথাও নেই।

পৃথিবী যদি উত্তর থেকে দক্ষিণে বা দক্ষিণ থেকে উত্তরে আবর্তন করত তবে পূবে ও পশ্চিমে এই রকম বিশেষ দুটি সৃষ্টি হত।

আবার, উত্তর ও দক্ষিণ মেরু যথাক্রমে পৃথিবীর সর্ব উত্তর ও সর্ব দক্ষিণের বিন্দু। বিন্দুগুলো প্রকৃত/আক্ষরিক অর্থেই প্রান্তিক। কিন্তু একটু চিন্তা করুন পূর্ব বা পশ্চিমে কি এমন কোন প্রান্তিক অবস্থান আছে যাকে আমরা সবচেয়ে পূর্ব/ পশ্চিম বলবো?


ম্যাপে আমরা যেটাকে পূর্ব / পশ্চিম বলি সেটা শুধুই আপেক্ষিক। বেশিরভাগ ম্যাপেই আমেরিকাকে পশ্চিমে ও ওশোনিয়াকে পূর্বে দেখানো হয়। তাই বলে বলা যাবে না যে আমেরিকাই সবচেয়ে পূর্বের জায়গা।

পৃথিবীর ম্যাপকে একটু ভিন্নভাবে দেখানো হল। তাহলে আমেরিকা আসলে আমাদের থেকে পূর্ব দিকে নাকি পশ্চিম দিকে? 
ইলাস্ট্রেটেড অক্সফোর্ড ডিকশনারির পেছনে একটি ওয়ার্ল্ড ম্যাপ আছে। তাতে আমেরিকাকে দেখানো হয়েছে রাশিয়ার ডানে - মানে পূবে- একেবারে পৃষ্টার ডান পাশে। দেখানো যেতেই পারে।  তার মানে এই নয় যে আমেরিকাই এখন পূবে চলে গেছে। ঐ ম্যাপে আফ্রিকা ও ইউরোপ একেবারে বাঁয়ে- মানে পশ্চিমে। কিন্তু কোনটাই পরম পশ্চিম বা পরম পূর্ব নয়।

ধরুন, আপনি পূর্ব-পশ্চিমের কোন অবস্থান থেকে (মানে কোন একটি দ্রাঘিমাংশ বিন্দু থেকে) (ধরুন) পূবে যাচ্ছেন। যতই পূবে যান না কেন পশ্চিম সব সময় আপনার পেছনেই থাকবে।

যেমন আপনি বাংলাদেশ থেকে পূবে যেতে থাকলে ক্রমে মায়ানমার, চীন, তাইওয়ান, জাপান, প্রশান্ত মহাসাগর পেরিয়ে আমেরিকায় পৌঁছে যাবেন। আরো যেতে থাকলে মেক্সিকো, কিউবা, মরক্কো,  আলজেরিয়া, মধ্য প্রাচ্য, পাকিস্তান, ভারত হয়ে ঘরের ছেলে ঘরে ফিরে আসবেন। নাক বরাবর যদি হাঁটতে থাকেন, সব সময়ই কিন্তু আপনার পেছনে পশ্চিম থাকবে।

কিন্তু এবার আপনি যদি বলেন, না, পূর্ব-পশ্চিমে পরিধি পাড়ি না দিয়ে আমি উত্তর-দক্ষিণ বরাবর পাড়ি দেব। এই অভিযানে স্বাগতম। এবারে আপনি উত্তর দিকে যাত্রা করলেন। তাহলে ভারত, ভুটান, চীন, মঙ্গোলিয়া ও রাশিয়া পাড়ি দিয়ে আপনি চলে যাবেন সুমেরুতে, মানে উত্তর মেরুতে।
ধরুন ঠিক এই মুহূর্তে আপনি সুমেরু (উত্তর মেরু) থেকে আরেক পা বাড়ালেন (এত পথ আপনাকে হাঁটিয়েই নিচ্ছি)। একটু আগে আপনার পেছনে ছিলো দক্ষিণ। এবার? পেছনে উত্তর আর সামনে দক্ষিণ।

হায়! হায়! আপনিতো ঘোরেননি, কিন্তু দিক যে পাল্টে গেলো!
যাক, কিছু মনে না করে আপনি যখন আরো এগিয়ে আমেরিকা মহাদেশের উপর দিয়ে চলে বাংলাদেশের প্রতিপাদ স্থান চিলি পার হয়ে দক্ষিণ মেরু ক্রস করলেন, আরেকটি ধাক্কা! সামনে এতক্ষণ দক্ষিণ ছিল, তা আবার ঘুরে উত্তর হয়ে গেলো।

এটাই হলো উত্তর ও দক্ষিণ বিন্দুর বিশেষত্ব। কিন্তু পূর্ব বা পশ্চিমের কোন বিন্দুর এমন কোন বিশেষত্ব নেই, কোন প্রান্তিক বিন্দু নেই, তাই মেরুও নেই।

সূত্রঃ
১। image.gsfc.nasa.gov/poetry/ask/a10840.html
Category: articles