Advertisement

Wednesday, November 8, 2017

আজ ৮ নভেম্বর। 
১৬৫৬ সালের এই দিনে জন্মগ্রহণ করেন ইংরেজ জ্যোতির্বিদ এডমান্ড হ্যালি। 

হ্যালির ধূমকেতুর কক্ষপথ হিসাব করার জন্যে তিনি সবচেয়ে বিখ্যাত। বলাই বাহুল্য ধূমকেতুটির নামকরণ তাঁর নামেই হয়েছে। একই সাথে তিনি ছিলেন গণিত, ভূ-পদার্থ, আবহাওয়া ও পদার্থবিদ। 

এডমান্ড হ্যালি

জন্ম ৩৬১ বছর আগে। ইংল্যান্ডের লন্ডনের কাছের একটি গ্রামে। বাবা সাবানের ব্যবসা করে ধনী হয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু হ্যালির ঝোঁক ছিল গণিতের দিকে। শুরুতে অধ্যয়ন করেন সেন্ট পলস স্কুলে। ১৬৭৩ সালে চলে আসেন অক্সফোর্ডের কুইনস কলেজে। ছাত্র থাকা অবস্থাতেই তিনি সৌরজগত ও সৌরদাগ (sunspot) নিয়ে পেপার প্রকাশ করেন। 

সপ্তদশ শতকটি উদীয়মান বিজ্ঞানীদের জন্যে ইংল্যান্ড ছিল খুব অনুকূল জায়গা। লন্ডনের রয়েল সোসাইটি এ শতকেই (১৬৬০) প্রতিষ্ঠিত হয়। হ্যালি তখন ছোট্ট এক শিশু। বাঘা বাঘা বিজ্ঞানীরা এখানে মিলিত হতেন প্রতি হপ্তায়। জন ফ্ল্যামস্টিড ছিলেন প্রথম অ্যাস্ট্রোনোমার রয়েল। 

১৬৭৩ সালে কুইনস কলেজে এসে ফ্ল্যামস্টিডের সাথে সাক্ষাৎ হয় হ্যালির। বিভিন্ন সময়ে ফ্ল্যামস্টিডের সাথে দেখা করে তিনি জ্যোতির্বিদ্যার প্রতি অনুরক্ত হয়ে পড়েন। 

এ সময় ফ্ল্যামস্টিড একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প নিয়ে কাজ করছিলেন। উত্তর আকাশের তারাগুলোর একটি তালিকা চাই। তবে খালি চোখে নয়। এত দিনে টেলিস্কোপ চলে এসেছে। হ্যালি ভাবলেন, আমিও একই কাজ করব। তবে উত্তরের বদলে দক্ষিণের আকাশ নিয়ে। 

১৬৭৬ সালের নভেম্বরে তিনি দক্ষিণে যাত্রা করলেন। চুকিয়ে আসলেন না বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠটিও। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির একটি জাহাজে চেপে চলে এলেন সেন্ট হেলেনা দ্বীপে। দ্বীপটি মূল ভূখণ্ড থেকে অনেক দূরে। সবচেয়ে কাছের ভূখণ্ড রিও ডি জেনিরো থেকে আড়াই হাজার মাইল পুবে। বাবার অঢেল টাকা থাকায় ভাড়া নিয়ে চিন্তা করতে হল না। 

খারাপ আবহাওয়ার কারোণে কাজ করতে অসুবিধে হচ্ছিল। কিন্তু তবুও তিনি কিন্তু খালি হাতে ঘরে ফেরেননি। ১৬৭৮ সালে ফিরে আসার সময় তাঁর কাছে ছিল ৩৪১ টি তারার তথ্য। পর্যবেক্ষণ করেন বুধ গ্রহের দুর্লভ একটি অতিক্রমণও (transit)। 

তাঁর প্রকাশিত নক্ষত্রের এই ক্যটালগ ছিল একটি বড় সাফল্য। এই ধরনের কাজ এটাই প্রথম। দক্ষিণের নক্ষত্রগুলোকে এর আগে কেউ টেলিস্কোপ দিয়ে খুঁটিয়ে দেখার চেষ্টা করেনি। জানতে চেষ্টা করেনি তাদের অবস্থান। জ্যোতির্বিদ হিসেবে এটাই হ্যালির প্রথম সাফল্য। একই বছর তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। নির্বাচিত হন রয়েল সোসাইটির ফেলো। 

১৬৮৪ সালে আসেন কেমব্রিজে। দেখা হয় নিউটনের সাথে। নিউটন ও রবার্ট হুকসহ রয়েল সোসাইটির কয়েকজন বিজ্ঞানী তখন গ্রহদের গতির ব্যাখ্যা খুঁজছিলেন। হ্যালিও যোগ দিলেন এই দলে। মজার ব্যাপার হল, অন্য সবার চেয়ে তাঁর বয়স কম। জানার চেষ্টা চলছে কীভাবে ও কেন গ্রহরা সূর্যের চারদিকে ঘোরে। সবাই চাচ্ছিলেন অন্যদের আগে কীভাবে সমাধান বের করে ফেলা যায়। দরকার এমন একটি মডেল যার মাধ্যমে ব্যাখ্যা করা যাবে যে কেন গ্রহরা সূর্য থেকে দূরে ছিটকে যায় না, বা সোজা সূর্যের দিকে চলে যায় না। 

হ্যালি ও হুক এর একটি সমাধান পেলেন। তাঁরা একটি বলের প্রস্তাব করলেন, যেটি একটি গ্রহকে সূর্যের চারপাশের কক্ষপথে ধরে রাখবে। এই বল দূরত্বের বর্গের ব্যস্তানুপাতে কমবে। এই নিয়মকেই এখন আমরা বিপরীত বর্গীয় সূত্র (inverse-square law) হিসেবে জানি। 

হ্যালি ও হুক ঠিক পথেই ছিলেন। কিন্তু তাঁরা এর একটি তত্ত্বীয় রূপ তত্ত্ব দাঁড় করাতে ব্যর্থ হলেন, যা দিয়ে পর্যবেক্ষণকে ব্যাখ্যা করা যাবে। হ্যালি গেলেন নিউটনের কাছে। তাঁর মতামত তুলে ধরলেন। এও বললেন, যে তিনি বিষয়টি প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েছেন। নিউটন হ্যালির কাছ থেকে অনুপ্রেরণ নিলেন। এর জের ধরেই প্রকাশিত হল তাঁর ম্যাথমেটিক্যাল প্রিন্সিপাল অব ন্যাচারাল ফিলোসফি, সংক্ষেপে যার নাম প্রিন্সিপিয়া। 

রয়েল সোসাইটি এই প্রবন্ধের সম্পাদনার ভার দিলেন হ্যালিকেই। এর কৃতিত্ব নিয়ে নিউটন ও হুকের দ্বন্দ হ্যালি খুব কৌশলে সমাধান করেন। তিনি এর প্রুফ দেখেন ও লাতিন ভাষায় এর ভূমিকা লিখে দেন। 

হ্যালি আবহাওয়া বিদ্যায়ও অবদান রাখনে। ১৬৮৬ সালে তিনি একটি বিশ্ব মানচিত্র তৈরি করেন। এতে ছিল বিপুল পরিমাণ তথ্য। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বায়ুগুলো সম্পর্কে এই মানচিত্রে তথ্য ছিল। মনে করা হয়, এটাই আবহাওয়াবিদ্যার প্রথম প্রকাশিত মানচিত্র। 

দুই একটি বিষয়ে অবদান রেখে হ্যালির যেন মন ভরছিল না।  তিনি কাজ করতে লাগলেন বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে। মৃত্যুর হারের সাথে বয়সের সম্পর্ক নিয়েও তিনি কাজ করেন। তাঁর এই অবদান পরে জীবন বিমার জন্যে কাজে লাগে। 

১৭০৪ সালে অক্সফোর্ডে জ্যামিতির অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন। পরের বছর প্রকাশ করেন ধূমকেতু নিয়ে গ্রন্থ- আ সিনোপসিস ইন অ্যাস্ট্রোনমি অফ কমেটস। এতে তিনি ২৪ টি ধূমকেতুর কক্ষপথের বিবুরণ লেখেন। ১৩৩৭ থেকে ১৬৯৮ সালের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে দেখা গিয়েছিল এই ধূমকেতুগুলো। 

এদের মধ্যে তিনটি ধূমকেতু তাঁর খুব নজর কাড়ে। এগুলো দেখা গিয়েছিল যথাক্রমে ১৫৩১, ১৬০৭ ও ১৬৮২ সালে। তিনি বললেন, এগুলোর মধ্যে এত বেশি মিল দেখা যাচ্ছে যে এরা আসলে একই ধূমকেতু না হয়েই যায় না। আর ফিরে আসে ৭৬ বছর পর পর। এটা ছিল যুগান্তকারী একটি সিদ্ধান্ত। তিনি পূর্বাভাস দিলেন, ধূমকেতুটি আবার ফিরে আসবে। সালটি হল ১৭৫৮। তিনি বললেন, 
১৪৫৬ সালে... পৃথিবী ও সূর্যের মাঝে একটি ধূমকেতুকে দেখা গিয়েছিল। অতএব, আমার সিদ্ধান্ত হল, ১৭৫৮ সালে এটি আবারও ফিরে আসবে। 
হ্যালির ধূমকেতু 
১৭২০ সালে হ্যালি ফ্ল্যামস্টিডের স্থলাভিষিক্ত হন। নিয়োগ পান দ্বিতীয় অ্যাস্ট্রোনোমার রয়েল হিসেবে।

তিনি ৮৫ বছর বেঁচে ছিলেন। মারা যান ১৭৪২ সালে। তাঁর পূর্বাভাসকৃত ধূমকেতু ঠিকই পরে দেখা যায়। তবে ১৭৫৮'র বদলে ১৭৫৯। কারণ, ওটা ঠিক ৭৬ বছর ফেরে না। একটু এদিক-ওদিক হয়। সর্বশেষ দেখা গিয়েছিল ১৯৮৬ সালে, আবার ২০৬১ সালে দেখা যাবার কথা রয়েছে। তত দিনে বেঁচে থাকলেও আপনি বুড়ো হয়ে যাবেন। 

হ্যালির ধূমকেতু একবার দেখার পর ভাগ্যক্রমে আবারও দেখতে দেখতে বুড়ো হয়ে যাবেন। 


আরো পড়ুনঃ

সূত্রঃ
১। http://earthsky.org/space/today-in-science-edmond-halley-nov-8-1656
২। https://en.wikipedia.org/wiki/Edmond_Halley
৩। https://en.wikipedia.org/wiki/Royal_Society
৪। 
Category: articles

Thursday, May 5, 2016

৭৬ বছর পরপর হ্যালির ধূমকেতু পৃথিবীর আকাশে দেখা দেয়। এ সময় একে খালি চোখেই দেখা যায়। এটা খুব সম্ভব একমাত্র ধূমকেতু যাকে কেউ কেউ জীবনে একবারের বেশি দেখতে পারেন। এটি সর্বশেষ পৃথিবীর আকাশে দেখা যায় ১৯৮৬ সালে। আবার দেখা যাবে ২০৬১ সালে।
সৌরজগতের অন্য গ্রহদের তুলনায় হ্যালির ধূমকেতুর অবস্থান, মে ২০১৬ 
একে সর্বশেষ দেখার পর ৩০ বছর পেরিয়েছে। সময়টি এর পুনরাবির্ভাবের অর্ধেকের চেয়ে একটু কম। ফলে, এটি এখনও দূরে সরছে কিন্তু সর্বাধিক দূরত্বের কাছাকাছি অবস্থানে পৌঁছেছে।
প্রতি বছর দুই বার পৃথিবীতে উল্কাপাতের পেছনে হ্যালির ধূমকেতু ভূমিকা রাখে। এর জন্যে একে পৃথিবীর কাছে আসতে হয় না। এর জন্যে দুজনের কক্ষপথ ছেদ করাই যথেষ্ট। ছবিতে দেখুন পৃথিবী সূর্যের চারদিকে একবার  ঘুরে আসতে এর কক্ষপথকে দুবার ছেদ করে।
ধূমকেতুটির কক্ষপথের নতি গ্রহদের তুলনায় অনেকটা বেশি 

ধূমকেতুটির অপসূর অবস্থান অনুসূরের চেয়ে ৬০ গুণ দূরে। বর্তমানে (মে, ২০১৬) এটি নেপচুনের কক্ষপথের বাইরে আছে। এর অপসূরের দূরত্ব ৩৫.৩ এইউ। অর্থ্যাৎ, এটি পৃথিবী থেকে সূর্যের গড় দূরত্বের ৩৫.৩ গুণ দূর পর্যন্ত সফর করে।
১৯১০ সালের মে মাসে তোলা হ্যালির ধূমকেতুর ছবি 
Category: articles

Saturday, January 17, 2015

প্রশ্নঃ গ্রহ, উপগ্রহের তো লেজ থাকে না। তাহলে,  ধূমকেতু লেজ পায় কোথায়?
উত্তরঃ  ধূমকেতুর লেজের উৎপত্তি এর গাঠনিক কারণে। ধূমকেতু হচ্ছে হিমায়িত বরফ, গ্যাস ও ধূলিকণা নিয়ে গঠিত। একটি ধূমকেতু যখন সূর্যের কাছাকাছি আসে, তখন এটি উত্তপ্ত হতে থাকে। এতে অবস্থিত বরফ তখন বাষ্পে পরিণত হয়ে যায়। ফলে, আগে বরফের ফাঁকে ফাঁকে যে ধূলিকণা আটকে ছিল, সেগুলোও মুক্তহয়ে যায়।
বাষ্পীভূত এই পদার্থসমূহকে সূর্যালোক ও সৌর ঝড়ের চার্জিত কণিকার ধারা ধূমকেতুর পেছন দিকে ঠেলে দেয়। এতেই তৈরি হয় এর লেজ। ধূমকেতু কী কী পদার্থে গঠিত তার উপর নির্ভর করে তার লেজের আকৃতি।
ধূমকেতুর লেজ হয় দুই ধরণের- ধূলিকণা ও গ্যাস আয়ন। ধূলিকণার লেজে থাকে সিগারেটের ধোঁয়ায় প্রাপ্ত আকারের সমান ছোট্ট ও কঠিন কণিকা।
ধূমকেতুর লেজ

অন্য দিকে, গ্যাস পরমাণু থেকে সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি ইলেক্ট্রনকে আলাদা করে দিয়ে আয়নিত করে ফেললে গ্যাস আয়ন লেজ গঠিত হয়। সৌর বায়ুর কারণেই এই লেজের অবস্থান হয় সূর্যের উলটো দিকে। দুই ধরণের লেজই দৈর্ঘ্যে লক্ষাধিক কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে।
ধূমকেতু (Comet) সূর্য থেকে দূরে চলে গেলে এর লেজ ও কোমা (বায়ুমন্ডল) বিলুপ্ত হয়। তখন, এর কেন্দ্রে অবস্থিত পদার্থসমূহ ঘনীভূত হয়ে শক্ত পাথুরে পদার্থে পরিণত হয়।
সূত্রঃ হাবলসাইট
Category: articles

Thursday, October 23, 2014

কিছুটা ভিন্নমত থাকলেও হ্যালির ধূমকেতুকেই (comet) সবচেয়ে বিখ্যাত ধূমকেতু মনে করা হয়। ৭৫ বছর পর পর এটি পৃথিবীর খুবই কাছে চলে আসে। সর্বশেষ ১৯৮৬ সালে এটি পৃথিবী ঘুরে গেছে। আবার পৃথিবীর আকাশে আসবে ২০৬১ সালে। অর্থ্যাৎ, এটি একটি পর্যাবৃত্ত (Periodic) ধূমকেতু, যা নির্দিষ্ট সময় পর পর ফিরে আসে।

হ্যালির ধূমকেতু 
ইংরেজ জ্যোতির্বিদ এডমান্ড হ্যালির (Edmond Halley) নামানুসারে ধূমকেতুটির এমন নামকরণ। তিনি ১৫৩১, ১৬০৭ ও ১৬৮১ সালে  পৃথিবীর নিকট এলাকায় বিভিন্ন ধূমকেতু আসার প্রতিবেদন পরীক্ষা-নিরিক্ষা করেন।  এরপর ১৭০৫ সালে তিনি সিদ্ধান্ত টানেন যে ঐ তিন ধূমকেতু আসলে একই ধূমকেতু। তিনি বলে যান যে ১৭৫৮ সালে একে আবার দেখা যাবে। তাঁর ধারণা সঠিক প্রমাণ করে ধূমকেতুটি আবারও পৃথিবীর আকাশে হাজিরা দেয়। কিন্তু তত দিনে তিনি পরপারে পাড়ি দিয়েছেন। তাঁর আয়ুষ্কাল ছিল ১৬৫৬-১৭৪২ সাল পর্যন্ত। কিন্তু নিজ চোখে দেখে না গেলেও তাঁর অনুমান সত্য হওয়ায় বস্তুটার নাম দেওয়া হয়ে গেল তাঁর নামে। 

এটাই একমাত্র ধূমকেতু, যার ফিরে আসার ব্যাপারে পূর্বাভাস হয়েছিল।  এর পর্যাবৃত্ত (Preiodic) প্রত্যাবর্তন থেকে জানা গেল এটি সূর্যকে প্রদক্ষিণও করছে। আরও জানা গেল সৌর পরিবারে বেশ কিছু ধূমকেতুও আছে।

সর্বশেষ দর্শনঃ

মহাকাশ বিজ্ঞানের অগ্রগতির যুগে প্রথম বস্তুটাকে দেখা যায় ১৯৮৬ সালে- মানে শেষবার। কয়েকটি মহাকাশযান এর কাছাকাছি গিয়ে নমুনা সংগ্রহের চেষ্টা চালায়। পৃথিবীকে অতিক্রম করে যাবার সময় উচ্চ-ক্ষমতা সম্পন্ন টেলিস্কোপ দ্বারা একে পর্যবেক্ষণ করা যায়।

ইতিহাসে হ্যালির ধূমকেতুঃ
ইউরোপিয়ান স্পেইস এজেন্সির (ESA) মতে সর্বপ্রথম একে দেখা যায় খৃষ্টপূর্ব ২৩৯ সালে।  চীনের মহাকাশ গবেষকরা একে নথিভুক্ত করে। পরে এটি যথাক্রমে ১৬৪ ও ৮৭ খৃষ্টপূর্ব অব্দে আবার ফিরে আসে। ঐ সময় ব্যাবিলনীয়রা এর নথি রাখে।

হ্যালির ধুমকেতুর কক্ষপথ
উইলিয়াম দি কনকারার ১০৬৬ সালে ইংল্যান্ড আক্রমণ করার ঠিক কিছুক্ষণ আগে একে আবার দেখা যায়। এটাই এর সবচেয়ে বিখ্যাত হাজিরা। বলা হয়ে থাকে, উইলিয়াম মনে করেছিলেন ধূমকেতুটি তার বিজয়বার্তা নিয়ে এসেছে। আগে মনে করা হত ধূমকেতুটি কোনো সু বা দুঃসংবাদ নিয়ে এলো বুঝি! কিন্তু এখন আর কেউ তা মনে করে না।

এডমান্ড হ্যালি ধূমকেতুটিকে চিহ্নিত করার ১০৫ বছর আগে শেক্সপিয়ার তাঁর জুলিয়াস সিজার নাটকে লেখেন,
ভিক্ষুকদের মৃত্যুতে ধূমকেতু আসে না, আকাশ ঝলকে উঠে রাজপুত্রের মৃত্যুতে ।
১৯১০ সালে একে সবচেয়ে স্পষ্ট করে দেখা গেল। ঐ বছর এটি পৃথিবীর মাত্র সোয়া দুই কোটি কিলোমিটার দূরত্ব দিয়ে অতিক্রম করে। এই দূরত্ব পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্বের ১৫ ভাগের মাত্র ১ ভাগ।

মার্কিন সাহিত্যিক মার্ক টোয়েনের জন্ম ১৮৩৫ সালে। ঐ বছরও হ্যালির ধূমকেতু পৃথিবীর আকাশে দেখা যায়। রসিক এই লেখক ১৯০৯ সালে বলেন,
আমি এসেছিলাম ধূমকেতুর সাথে। আগামী বছর আবার ধূমকেতুটি পৃথিবী ঘুরে যাবে, সাথে আমিও হয়ত চলে যাব।
টোয়েন ১৯১০ সালের ২১ এপ্রিল মারা গেলেন, যার এক দিন আগেই দেখে নিলেন তাঁর জীবনকালে ধূমকেতুটির ২য় ভ্রমণ।

হ্যালির ধুমকেতুর কক্ষপথঃ 


সূত্রঃ
১. স্পেস ডট কম
২. উইকিপিডিয়াঃ Edmond Halley
৩. এনসাইক্লোপেডিয়া ব্রিটানিকা
Category: articles