Advertisement

Tuesday, December 1, 2015

রাশিচক্রের পরিচয়

রাশিচক্র! শব্দটা শুনলে প্রথমেই খবরের কাগজে দেখা রাশিফলের কথা মনে পড়ে হয়ত। রাশিফলের কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই, কিন্তু জ্যোতির্বিজ্ঞানে রাশিচক্রের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে। সূর্য বছরজুড়ে যে যে তারামণ্ডলীতে অবস্থান করে তাদেরকে রাশিচক্র বলে। বিস্তারিত জানা যাক।
মেঘমুক্ত রাতের আকাশে আমরা অসংখ্য তারা দেখি। তবে তারা কিন্তু দিনের আকাশেও থাকে, যদিও সূর্যের আলোর কারণে ওদেরকে আমরা  দেখি না। রাতে যেমন চাঁদের আশেপাশে আমরা তারা দেখি, তেমনি দিনেও সূর্যের আশেপাশেও তারা থাকে। কিন্তু একেক রাতে চাঁদের যেমন আকাশের একেক জায়গায় থাকার কারণে এর আশপাশের তারারা বদলে যায়, তেমনি ঘটনা ঘটে সূর্যের ক্ষেত্রেও।
পৃথিবী সূর্যের চারদিকে এক বার ঘুরে আসতে এক বছর সময় নেয়। বছরের বিভিন্ন সময়ে এটি কক্ষপথের বিভিন্ন অবস্থানে থাকে। কক্ষপথে পৃথিবীর এই অবস্থানভেদে আকাশে সূর্যের আপাত অবস্থানও পাল্টে যেতে থাকে। যেহতু পৃথিবী ৩৬৫ দিনে এক বার সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে, তাই প্রতি দিন সূর্যের এই আপাত অবস্থান একটু একটু করে সরে যেতে থাকে। এইভাবে ৩৬৫ দিনে ৩৬০ ডিগ্রি প্রদক্ষিণ সম্পূর্ণ হয়।
বছরের প্রত্যেকটি আলাদা দিনে আকাশে সূর্যের আপাত অবস্থানবিন্দুগুলো যোগ করে যে রেখা পাওয়া যায় তাকে বলা হয় সূর্যপথ। এই  সূর্যপথ ৮৮টি তারামণ্ডলীর ১৩টিকে ছেদ করে। এই ১৩টি তারামণ্ডলীই রাশিচক্র বলে পরিচিত।
বছরের বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন তারামণ্ডলীতে সূর্যের আপাত অবস্থান 
তাহলে রাশিচক্র হচ্ছে এমন একটি চক্র যে স্থানে বছরজুড়ে ঘুরে ফিরে সূর্য অবস্থান করে। অন্যভাবে বলা যায়, পৃথিবীর কক্ষপথ থেকে সূর্যের দিকে একটি রেখা টানলে সেটি খ-গোলকের যে যে অঞ্চলকে ছেদ করবে, সেই অঞ্চলগুলোই হলোই রাশিচক্র।
পৃথিবীর প্রদক্ষিণের জন্যেই বছরের একেক সময় আকাশে একেক তারার দেখা মেলে। এ কারনে, প্রতি দিন প্রায় ৪ মিনিট আগে কোন তারাকে আগের অবস্থানে দেখা যায়।
অন্য দিকে প্রচলিত রাশিচক্রে আছে ১২টি তারামণ্ডলী। রাশিফলতো এমনিতেই ভিত্তিহীন, উপরন্তু পৃথিবীর আবর্তনজনিত প্রিসেশনের (Precesion) কারণে বর্তমানে সূর্য ১৮ দিন অবস্থান করে সর্পধারীমণ্ডলীতে (Ophiuchus) যার উল্লেখ প্রচলিত রাশিচক্রে নেই। শুধু তাই নয়, প্রচলিত রাশিচক্রে বিভিন্ন মণ্ডলীতে সূর্যের অবস্থানের যে তারিখ দেওয়া আছে সেটাও এখন সেকেলে হয়ে গেছে। বাস্তবতার সাথে পার্থক্য হয়ে গেছে মাসখানেকের।
ফলে, তথাকথিত রাশিচক্রের ভিত্তি আরো বেশি নড়বড়ে হয়ে গেছে।

সূত্রঃ
১। আর্থ স্কাইঃ সূর্য কখন কোথায় থাকে
২। আর্থ স্কাইঃ রাশিচক্র কী


Advertisement 02

Abdullah Al Mahmud

লেখকের পরিচয়

আব্দুল্যাহ আদিল মাহমুদ। প্রভাষক, পরিসংখ্যান বিভাগ, পাবনা ক্যাডেট কলেজ। এর আগে রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন EAL-এ। পড়াশোনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগে। সম্পাদনা করছেন Stat Mania বিশ্ব ডট কম। পাশাপাশি লিখছেন বিজ্ঞানচিন্তা, ব্যাপন পাই জিরো টু ইনফিনিটিসহ বিভিন্ন ম্যাগাজিনে। অসীম সমীকরণ মহাবিশ্বের সীমানা নামে দুটি বই লেখার পাশাপাশি অনুবাদ করেছেন অ্যা ব্রিফার হিস্ট্রি অব টাইম । লেখকের এই সাইটের সব লেখা এখানে ফেসবুক | পারসোনাল ওয়েবসাইট